আন্তর্জাতিক

বিশ্বে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত এক লাখ, মৃত্যু ৫ হাজার


আবারও আশঙ্কাজনকহারে বাড়তে শুরু করেছে করোনা সংক্রমণ। ইউরোপের কয়েকটি দেশে কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসলেও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ রাশিয়া, ব্রাজিল, মেক্সিকোর মতো দেশগুলোতে হু হু করে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। পিছিয়ে নেই দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতেও।

যাতে বেশ কিছুদিন পর বিশ্বে আবারও গত একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় লাখে পৌঁছেছে। প্রাণ গেছে ৫ হাজারের বেশি মানুষের।

আজ শনিবার বাংলাদেশ সময় সকাল পর্যন্ত বিশ্বখ্যাত জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, বিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনার শিকার হয়েছেন ৪৬ লাখ ২১ হাজার ৪১৪ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৯৯ হাজার ৪০৫ জন। প্রাণহানি বেড়ে ৩ লাখ ৮ হাজার ১৫৪ জনে ঠেকেছে। যেখানে একই সময়ে মারা গেছেন ৫ হাজার ৭২ জন। আর সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছাড়ার সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৭ লাখ ৫৮ হাজার ৩৯ জনে।

করোনায় ভয়াবহ বিপর্যয় ঘটেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ১৪ লাখ ৮৪ হাজার ২৮৫ জন মানুষ সংক্রমিত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৮৮ হাজার ৫০৭ জনের।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আক্রান্তের দেশ স্পেনে আক্রান্ত ২ লাখ ৭৪ হাজার ৩৬৭ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন দেশটির ২৭ হাজার ৪৫৯ জন মানুষ। আক্রান্তের তালিকায় তিনে থাকা রাশিয়ায় দুই লাখ ৬২ হাজার ৮৪৩ জন। যেখানে মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৪১৮ জনের।

এরপরই প্রাণহানির তালিকায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দেশ যুক্তরাজ্য। সেখানে ৩৪ হাজার মানুষের প্রাণ কেড়েছে করোনা। আক্রান্ত বেড়ে ২ লাখ ৩৬ হাজার ৭১১ জনে পৌঁছেছে। আংশিক শিথিলে থাকা ইতালিতে প্রাণহানি ৩১ হাজার ৬১০ জন। আক্রান্ত ২ লাখ ২৩ হাজার ৮৮৫ জনে দাঁড়িয়েছে।

ভয়াবহ অবস্থা দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে। গত একদিনে সেখানে সর্বোচ্চ আক্রান্তের রেকর্ড হয়েছে। নতুন ১৫ হাজার ৩০৫ জনসহ বর্তমানে সেখানে করোনা সংক্রমণ বহনকারীর সংখ্যা ২ লাখ ১৮ হাজার ২২৩ জন। প্রাণ হারিয়েছেন আরও ৮২৪ জন। ফলে, মৃতের সংখ্যা ১৪ হাজার ৮১৭ জনে ঠেকেছে।

দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা ভারতে। ইতিমধ্যে দেশটি আক্রান্তে চীনকেও ছাড়িয়ে গেছে। যেখানে সংক্রমিতের সংখ্যা ৮৫ হাজার ৭৮৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৭৫৩ জনের।

আর বাংলাদেশে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেয়া তথ্যানুযায়ী গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত করোনার শিকার হয়েছেন ২০ হাজার ৬৬ জন। তাদের মধ্যে ২৯৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। সুস্থ হয়ে হয়েছেন ৩ হাজার ৮৮২ জন।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button