কৃষি তথ্য

পান বরজ পরিচর্যায় ব্যস্ত চাষী


আরিফুল ইসলাম শ্যামল: পান গ্রীষ্মমন্ডলীয় অঞ্চলের পিপুল পরিবারের লতা জাতীয় গাছের পাতা। নিশ্বাসকে সুরভিত করা ঠোঁট ও জিহবাকে লাল করার জন্য মানুষ পান খান। যদিও পান খাওয়ার মধ্যে অন্যান্য সামগ্রীতে কিছুটা মাদকের আনন্দও বিদ্যমান থাকে। স্বভাব হিসেবেই নয়, বাংলাদেশের ঐতিহ্যগতভাবে রীতি, ভদ্রতা ও আচার-আচরণের অংশ হিসেবেও পানের ব্যবহার হয়ে আসেছে যুগযুগ ধরে। যে কোনও অনুষ্ঠানে অতিথি আপ্রায়নে পান প্রস্থানের সময় ইঙ্গিত করা হয়ে থাকে।

এক সময় প্রচীন অভিজাত জনগোষ্ঠীর মাঝে তৈরী করা পান সুন্দরভাবে রাখার জন্যও হাতে হাতে পানদানি শোভা পেত। এখনও অনেক বয়সজষ্ঠ্য মানুষ প্রিয় পানদানি তারা বহন করে তারা ভ্রমণে যান। লক্ষ্য করা গেছে, কয়েক দশক আগেও গ্রাম বাংলার যে কোনও অনুষ্ঠানে বিভিন্ন রকমের পানদানি উপহার হিসেবে দেওয়া হত। আর এসব বাহারী সব উপহার শুধু পানের চাহিদা বা গুরুত্বের বিষয়টি আলোচনায় উঠে আসত। এক সময় পান চাষ দেশের প্রায় সব অঞ্চলেই কম বেশী করা হত।

কালের পরিবর্তনে পানে আগ্রহী চাষীদের সংখ্যা দিনদিন কমতে শুরু করেছে। সারা দেশের ন্যায় মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরেও কমতে শুরু করছে পান বরজ ও চাষীর সংখ্যা। নানা প্রতিকুলতা ও প্রাকৃতিক বাঁধা উপেক্ষা করে শ্রীনগরে এখনও টিকিয়ে রেখেছেন কয়েকটি পানের বরজ। এচাষে সফল নাম তার গুরুপদ দত্ত। উপজেলার তন্তর ইউনিয়নের কাননীসার গ্রামে তিনি গড়ে তুলেছেন আলাদা আলাদা ভাবে কয়েকটি বাংলা পানের বরজ। পান পরিচর্যায় সারক্ষণ ব্যস্ত থাকেন তিনি।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় ৭০-৮০ শতাংশের ওপর তার পানের বরজ। বরজের চার পাশ বাশের কঞ্চি দিয়ে বেড়া দিয়ে রাখা হয়েছে। রবজের ওপরেও একইভাবে বাশের কঞ্চি ও খরকুট (নাড়া) দিয়ে ছাউনি তৈরী করা হয়েছে। পান চাষের জন্য বরজে মাটি ভরাট করে অন্যান্য জমির তুলনায় অনেকটাই উঁচু করা হয়েছে। সারিবদ্ধ ভাবে (কেল) বরজে অসংখ্য পানপাতায় ছেঁয়ে আছে।

এ সময় লক্ষ্য করা যায়, ৪/৫ জন লোক পান বরজের পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। এসময় হরিদাস (৬০), হেমন্ত দাস ( ৫০), আনন্দদাস (৫৩), বসন্ত দাস (৫৫) বলেন, গত আম্পান ঘূণিঝড় ও অতি বৃষ্টির কারণে বরজে অনেক পান নষ্ট হয়েছে। বরজের লতা জাতিয় পান গাছ গুলো অনেকটাই এলোমেলো হয়ে গেছে। তাই কয়েকদিন যাবত পান বরজের পরিচর্যায় তারা দিনমজুরের কাজ করছেন। দৈনিক দুপুরের খাবারসহ ৪০০ টাকা করে পাচ্ছেন। তারা জানান, বিভিন্ন পান বরজ পরিচর্যায় তারা কাজ করেন।

একাজে তাদের অভিজ্ঞতা থাকায় উপজেলার বিভিন্ন পান বরজ মালিকরা তাদের ওপর অনেকটাই নির্ভরশীল থাকেন। কিছুক্ষণ সময় অপেক্ষা করে দেখা যায় ৪ থেকে ৫ ইঞ্চি দূরত্বে প্রতিটি লতা গাছের গোরায় ৫ থেকে ৬ ফুট লম্বা বাশের লাঠি গেরে পান লতা বেঁধে দিচ্ছেন। তারা বলেন, পুরোন পান গাছগুলো প্রায় ১৫-১৮ ফুট পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে। পান লতাগুলো মাটির ওপর থেকে দুই আড়াই ফুট রেখে বাকিটা নিচের দিকে মাটি দিয়ে ঢেকে দিতে হয়। ৩ মাস পর পর এভাবে বরজে পান পরিচর্যা করতে হয়। এছাড়াও বরজে চুনা, সরিষার খইল ও জৈবসার হিসেবে গোবর ব্যবহার করা হয়।

গুরুপদ দত্তের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, বছরে আর্শিন ও কার্তিক মাসে গাছের চারা লাগাই। গাছের কোনও ক্ষতি না হলে প্রতি বছর এই চারা লাগাতে হয়না। শীতে সপ্তাহে এক বার ও গরমের সিজনে দুইবার বরজ থেকে পান সংগ্রহ করি। তার এখানে সব বাংলা পান রয়েছে। সরকারিভাবে এই চাষে কোনও সাহায্য সহযোগিতা আসেনা। তার পরেও পূর্ব পুরুষদের স্মৃতি হিসেবে পান বরজ ধরে রেখেছেন। স্থানীয় সিংপাড়া বাজারে তিনি পাইকারী ভাবে পান বিক্রি করেন।

জানা যায়, গত দুই বার আলু চাষে লোকসানের মুখ দেখেছেন কৃষক গুরুপদ দত্ত। তবে এবছর আলুর দাম ভাল হওয়ায় আলুতে মুখে হাসি ফুটেছে। আড়াই হাজার মন আলু উৎপাদন হয়েছে তার। অন্যান্য কৃষি কাজের পাশাপাশি নিজস্ব পান চাষেও বছরে কয়েক লাখ টাকা আয় করছেন। গুরুপদ দত্ত এলাকায় একজন সফল কৃষক হিসেবে পরিচিত।

খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়, শ্রীনগর উপজেলার সোন্ধারদীয় ও বীরতারা এলাকায়ও বেশ কিছু পান বরজ রয়েছে। এখানকার পান উৎপাদনকারীরা উপজেলার সিংপাড়া বাজারে সপ্তাহে শনিবার ও বুধবার, বীরতারা বাজারে সপ্তাহের বৃহস্পতিবার পাইকারী পান বিক্রি করে থাকেন। এছাড়াও বরজ থেকে বেশী পানের আমদানী হলে জেলার লৌহজং উপজেলার নওপাড়া হাটসহ জেলার সবচেয়ে বড় পাইকারী পানের আড়ৎ বেতগাঁ বাজারেও এখানকার কৃষকরা পান বিক্রি করেন।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button