দেশজুড়ে

পবার কাঁটাখালি পৌরসভায় মিলনের খাদ্য সামগ্রী প্রদান

  • 4
    Shares

বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সহ-সম্পাদক ও রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলন পবার কাঁটাখালি পৌরসভার জনগণের জন্য খাদ্য সামগ্রী পাঠিয়েছেন। রোববার নেতাদের হাতে এই খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন তিনি। তিনি বলেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দেশনায়ক তারেক রহমানের নির্দেশক্রমে নির্বাচনী এলাকা রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) ব্যক্তিগত অর্থায়নে এই সকল খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন তিনি।

মিলন বলেন, সামনে ঈদ আসছে। সেইসাথে চলছে রোজা। এই চলমান লকডাউনে কর্মহীন মানুষগুলো দিশেহারা হয়ে পড়েছে । তাদের ঘরে দেখা দিয়ে খাদ্য ও নগদ অর্থের সংকট। করোনা ভাইরাস থেকে জনগণকে রক্ষা করতে চলছে এই লকডাইন। ফলে সকল মানুষ ঘরে বন্দি হয়ে আছেন। এসময়ে সরকারের পক্ষ থেকে কর্মহীন মানুষদের জন্য খাদ্য সহায়তা দেয়ার কথা ছিলো। কিন্তু সরকার এ কর্মসূচীতে অনেকটাই ব্যর্থ হয়েছে। কারণ সরকারী ত্রাণ ও নগদ অর্থ সরকার দলীয় নির্বাচিত সদস্য ও নেতারা চুরি করে সাবাড় করে দিয়েছে। ফলে সরকারের প্রদানকৃত ত্রাণ বেশীরভাগ কর্মহীন মানুষের নিকট পৌঁছায়নি বলে জানান মিলন।

মিলন আরো বলেন, রাজশাহীর অন্যান্য থানা ও উপজেলাগুলো করোনার রোগি দেখা গেলেও এই প্রথম নগরীতে করোনা ভাইরাসে এক নারী আক্রান্ত হয়েছেন। এরফলে নগরীর জনগণ আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। ঈদকে সামনে রেখে দোকানপাট খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিলেও পড়ে তা বন্ধ ঘোষনা করা হলেও দোকানদাগণ মানছেন না নিষেধাজ্ঞা। তারা মার্কেটের প্রধান ফটক বন্ধ রেখে ভিতরে ব্যবসা করে চলছেন। আইন শৃংখলা বাহিনী ও প্রশাসনের লোকজন দেখেও না দেখার ভান করছেন বলে জানান তিনি। এই অবস্থা চলতে থাকলে নগরীতে দ্রুত করোনা ভাইরাস ছড়াতে পারে। সেক্ষেত্রে মহামারী আকারও ধারণ করার সম্ভাবনা রয়েছে।

মিলন বলেন, প্রতিদিন করোনায় সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত ২৪ ঘন্টায় ১,২৭৩জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে। আজ পর্যন্ত ২২,২৬৮জন আক্রান্ত হয়েছে। বেশ কয়েকদিন ধরে প্রতিদিন হাজারের বেশী আক্রান্ত হচ্ছে। কিন্তু এর মধ্যেই লকডাউন ঢিলেঢালা করা হয়েছে। আইনশৃংখলা বাহিনীর লোকজন নজরদারী কমিয়ে দিয়েছে। ব্যাপকভাবে চলছে ব্যক্তিগত যানবাহন ও রাস্তাঘাটে বের হয়েছেন সাধারণ মানুষ। বেশীর ভাগ মানুষ স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে রাস্তায় চলাফেরা করছে। গাদাগাদি করে দোকানপাটে ঈদের বাজার করছে। এক কথায় সরকার পুরোপুরি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ব্যর্থ হয়েছেন বলে জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, সরকারের লোকজন যখন ত্রাণ চুরি করতে ব্যস্ত, সে সময়ে বিএনপি, অঙ্গ ও সহেযাগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা কর্মহীন খেটে খাওয়া অসহায়, দরিদ্র ও মধ্যবিত্তদের পাশে দাঁড়িয়ে নিজ উদ্যোগে এবং নিজ অর্থায়নে খাদ্য সামগ্রী, মাস্ক, হ্যান্ডস্যানিটাইজার, সাবান ও হ্যান্ডওয়াস বিতরণ করে যাচ্ছে। বিএনপি তথা তাঁর এই কর্মসূচী এই অবস্থা দূর না হওয়া পর্য়ন্ত চলবে বলে জানান মিলন।

বক্তব্য শেষে সপুরাস্থ নিজ কার্যালয় থেকে কাঁটাখালি পৌর এলাকার জনগণের জন্য খাদ্য সামগ্রী প্রেরণ করেন। অত্র পৌর বিএনপি’র সদস্য সচিব নাজমুল হক, বিএনপি নেতা মনিরুজ্জামান দুলাল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফুল ইসলাম , যুবদলের আহবায়ক মাসুদ ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান খান এই খাদ্য সামগ্রী গ্রহন করেন। সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে খাদ্য সামগ্রী প্রতিটি বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছে দেয়ার জন্য নেতাদের নির্দেশ প্রদান করেন তিনি। এছাড়াও করোনাভাইরাস থেকে মুক্ত থাকতে সকলকে ঘরে থাকার পরামর্শসহ বার বার সাবান পানি দিয়ে হাত ধোয়ার আহবান জানান তিনি। সেইসাথে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে চলার জন্য এলাকাবাসীসহ দেশবাসীর প্রতি আহবান জানান মিলন।


  • 4
    Shares

Related Articles