মিজান-বাছিরের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু

0
155

ঘুষ কেলেঙ্কারির মামলায় বরখাস্ত হওয়া পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমান ও দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পরিচালক এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। বুধবার মামলার বাদী দুদকের পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্লাহর জবানবন্দি গ্রহণ করেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ বিচারক শেখ নাজমুল আলম। এরপর আসামিপক্ষের আইনজীবীরা তাকে জেরা শুরু করেন। কিন্তু এদিন জেরা শেষ হয়নি। আদালত অবশিষ্ট জেরা এবং পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ আগামী ২ সেপ্টেম্বর ধার্য করেন।

সাক্ষ্যগ্রহণকালে মিজানুর রহমান ও এনামুল বাছিরকে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়। গত ১৯ জানুয়ারি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদ‌কের প‌রিচালক শেখ মো. ফানা‌ফিল্যা এ মামলায় অভিযোগপত্র দা‌খিল করেন। এরপর ৯ ফেব্রুয়ারি ঢাকার মহানগর সি‌নিয়র স্পেশাল জজ কে এম ইমরুল কায়েশ মামলাটি বিচারের জন্য চার নম্বর বিশেষ জজ আদালতে বদলির আদেশ দেন।

গত ১৮ মার্চ এ মামলায় তাদের দু’জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মাধ‌্যমে বিচার শুরুর নির্দেশ দেন একই আদালত। ওইদিন সাক্ষ‌্যগ্রহণের জন‌্য ২৩ মার্চ দিন ধার্য ক‌রেন আদালত। তবে করোনা পরিস্থতিতে আদালতের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সাক্ষ্যগ্রহণ আর শুরু হচ্ছিল না।

গত ৫ আগস্ট থেকে নিয়মিত আদালত চালুর পর এ মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ১২ আগস্ট দিন ধার্য করা হয়। তবে সেই নির্ধারিত দিনে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যা অসুস্থ থাকায় সাক্ষ্য দিতে আদালতে উপস্থিত হননি। তাই বিচারক সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ১৯ আগস্ট দিন ধার্য করেন।

৪০ লাখ টাকার ঘুষ কেলেঙ্কারির অভিযোগে ২০১৯ সালের ১৬ জুলাই দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ এ দুদকের পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্লাহ বাদী হয়ে এ মামলা করেছিলেন।

গত ১৯ জানুয়ারি ডিআইজি মিজান ও এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন শেখ মো. ফানাফিল্লাহ। ৯ ফেব্রুয়ারি আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জশিট গ্রহণ করেন ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কেএম ইমরুল কায়েশ। এরপর আদালত চার্জগঠনের তারিখ ধার্য করে মামলাটি ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বদলির আদেশ দেন। গত ১৮ মার্চ আসামিদের অব্যাহতির আবেদন নাকচ করে চার্জগঠন করে বিচার শুরু আদেশ দেন আদালত।