মাগুরায় জামিনে মুক্ত হয়ে চাপ ও হুমকির অভিযোগ

0
66
যে ঘর থেকে পুলিশ আটক করে ওই তিন যুবককে সেই ঘরের ছবি।

মতিন রহমান, মাগুরা: মাগুরা সদর উপজেলার শত্রুজিৎপুরের বিষ্ণুপুর গ্রামে গেলো রবিবার রাতে বাবুল হোসেন নামে এক ব্যবসায়ীর বাড়ির সামনের একটি ছোট ঘরের কক্ষে কয়েকজন যুবক ছেলেরা মাদক সেবন করছে এমন সন্দেহ হলে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। খবর পেয়ে স্থানীয় শত্রুজিৎপুর ক্যাম্পের পুলিশের একটি ফোর্স ঘটনাস্থলে গিয়ে আটক করে তাদেরকে। আটকের পর আদালতে সোপর্দ করা হয়। আটককৃত ব্যাক্তিরা হলো রিয়াদ, হাসিব ও শামিম নামের তিন যুবক। তাদের তিন জনের বাড়িই শত্রুজিৎপুর ইউনিয়নে দুজনের বাড়ি বিষ্ণুপুর গ্রামে।

জানাগেছে, আদালত থেকে জামিনে ছাড়া পাওয়ার পরে ওই তিন যুবকের একজন বাড়িতে ফিরলেও দুইজন বাড়িতে না আসায় বিভিন্ন ভাবে বাবুল হোসেনকে চাপাচাপি করছে একটি মহল। এঘটনায় নিরাপত্তার জন্য বাবুল হোসেন অভিযোগ দিলে সোমবার ওই এলাকায় গিয়ে জানা যায় আসল সত্যতা। বাবুল হোসেন পুলিশকে ফোন দিয়ে তাদেরকে ধরিয়ে দেয় ধারণা করে জামিনে ছাড়া পেয়ে তাদের পক্ষ থেকে চাপাচাপি ও হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন বাবুল হোসেন।

সোমবার বিষ্ণুপুর গ্রামে গিয়ে হাসিবের ছোট ভাই সজিবের সঙ্গে কথা হলে সে জানায় তার ভাই জামিন পাওয়ার পরে বাড়িতে না এসে আত্তীয় বাড়িতে গেছে। নিজের বাড়িতে কেনো আসেনি এমন প্রশ্ন করলে সজিব কোনো উত্তর দিতে পারেনি।

এদিকে এসব ঘটনাকে উদ্দ্যেশেমূলক ভেবে বাবুল হোসেনকে ভয় দেখানোর চেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন বাবুল হোসেন।

এবিষয়ে সোমবার বাবুল হোসেন বাড়িতে গেলে তার ছোট ভাই মতিন হোসেন বলেন, আটককৃত যুবকদের মধ্যে তার আপন ভাতিজাও রয়েছে। তাকে শাসন করার ক্ষেত্রেই পুলিশের সাহায্য নেওয়া হয়েছে। কিন্তু কিছু লোক ভুল বুঝিয়ে ঘটনাকে ভিন্ন দিকে নেওয়ার পাঁয়তারা করছে।

বাবুল হোসেন বলেন, তিনি সমাজের একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে গভীর রাতে যুবকদের আড্ডা এবং মাদকে জড়িয়ে পড়ার বিষয়ে ওই যুবকদেরকে ভালো পথে ফেরাতে অনেক বার বুঝিয়েছেন। কিন্তু তারা তার কথার গুরুত্ব দেয়নি। পরবর্তীতে গেলো রাতে তাদের বাড়ির সামনে এমন ঘটনা হলে পরে তিনি পুলিশের সহযোগিতা নেন। পুলিশ তাদেরকে আটক করে এবং পরে আদালতে পাঠিয়েছে। কিন্তু তাদের একজন বাড়িতে এসেছে অন্য দুজন বাড়িতে না এসে অন্য জায়গায় আছে বলে জানতে পেরেছি। অথচো বিষয়টিকে ভিন্ন খাতে নিতেই তার উপর চাপাচাপি করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

বাবুল হোসেন ও তার ভাই জেলার বাইরে ব্যবসা করেন। কয়েকমাস পর পর তাদের গ্রামের বাড়িতে আসেন। গ্রামের বাড়ি তার মা বাবাসহ এক ভাই থাকেন। এসব ছেলেরা তার ক্ষতি করতে পারে বলে আশংকা করছেন তিনি।

এদিকে এসব ঘটনায় স্থানীয় পুলিশের ফোর্স যারা ওই রাতে ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন তাদের দুই পুলিশ সদস্যের সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তিনজনকে আটক করে আদালতে পাঠিয়েছেন তারা। সোমবার তারা জামিন পাওয়ার খবর শুনেছেন। বাবুল হোসেনের উপর কোনো চাপাচাপি ও সমস্যা না থাকে এজন্য তারা সচেষ্ট আছেন বলেও জানান তারা। তারা বলেন, কারা সমস্যা করছে সে বিষয়ে তারা কোনো খবর পাননি। সমস্যা আছে এরকম কোনো খবর পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তারা।

এসব ঘটনায় এলাকার সচেতন মহল জানায়, তরুণ সমাজকে মাদক ও খারাপ কাজ থেকে ফেরাতে সমাজের সচেতন মহলকে এভাবেই এগিয়ে আসতে হবে। কিন্তু এসবের বিপরীতে যদি চাপাচাপি হুমকি ধামকি দেওয়া হয় তবে তা অবশ্যই দুঃখজনক। বাবুল হোসেনের ভূমিকার প্রশংসা করেন স্থানীয় সচেতন মহল। একইসঙ্গে বাবুল হোসেনের যেনো কোন রকম সমস্যা না হয় এজন্য তারা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতার পাশাপাশি সমাজের সচেতন মহলকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।