রেসিপি

নিরামিষের কয়েকটি রেসিপি জেনে নিন

দুই একদিন পরেই শুরু হতে যাচ্ছে শারদীয় দূর্গা পুজা। এই সময়ে খাওয়া-দাওয়া অনেকটাই বেড়ে যায়। এর মধ্যে কিন্তু নিরামিষকে অবশ্যই রাখবেন। তাতে আপনার শরীর ভাল থাকবে। আনন্দ-ফূর্তি করতে শক্তি পাবেন।

নিরামিষের মধ্যে অধিকাংশেরই পছন্দ পনির। তাই তাঁদের কথা মাথায় রেখেই আজ তিনটি পনিরের, একটি আলু ও একটি পটলের রেসিপি তুলে ধরা হলো।

আচারি পনির
ভিন্ন স্বাদ পেতে হলে এই রান্নাটি অবশ্যই করুন। এতে আচারের স্বাদ ও পনিরের স্বাদ মিলে অদ্ভুত স্বাদ পাবেন। মনে রাখবেন আচারি পনির রান্নায় নানা ধরনের মশলা ব্যবহার করা হয়। এই রান্নাটি একটু বেশি তেলে হয়। স্বাদে টক, ঝাল, নোনতা।

উপকরণ : পনির আধা কেজি (চৌকা করে মাঝারি আকারে কাটা), তেল ১০০ মিলিলিটার, মৌরি ৪ চা চামচ, মেথি দানা ১ চা চামচ, কালোজিরা আধা চা চামচ, আদা বাটা ৩ চা চামচ, গোটা জিরা ২ চা চামচ, গোটা ধনে ২ চা চামচ, কাঁচালঙ্কা ৪টি (কুচনো), হলুদ ১ চা চামচ, ফেটানো দই ২০০ গ্রাম, আমচুর পাউডার ৩ চা চামচ, চিনি ২ চা চামচ, লঙ্কা গুঁড়া ২ চা চামচ, লবণ প্রয়োজন মতো।

প্রণালী : ঠাণ্ডা তেলে মৌরি, মেথি, কালোজিরা, রাই সর্ষে, জিরা ফোড়ন দিন। মশলার হালকা গন্ধ বেরুলে এবং ১৫-২০ সেকেন্ড বাদে ফোড়ন ফাটতে শুরু করলে এতে সামান্য জল দিন, তারপর এতে আদা বাটা দিন। এতে হলুদ গুঁড়া দিয়ে এক, দেড় মিনিট ভাল করে ভাজুন। তারপর দই দিন, আমচুর পাউডার দিন, লঙ্কাগুঁড়া দিন, চিনি ও স্বাদমতো লবণ দিন। তেল ছেড়ে বেরিয়ে আসা পর্যন্ত রান্না করুন। এর মধ্যে পনির দিন এবং আধ কাপ জল দিন। ভাল করে ফুটে গেল হাল্কা আঁচে ১ মিনিট বসিয়ে নামিয়ে নিন। গরম গরম রুটি, পরোটা বা লুচির সঙ্গে পরিবেশন করুন।

জিরা আলু
চট-জলদি নিরামিষ মুখরোচক আইটেম। আলু যারা ভালোবাসেন তাদের জন্যে প্রিয় হবে এই রান্নাটি।

উপকরণ : সেদ্ধ আলু ৪টি কিউব করে কাটা, গোটা জিরা ১ চা চামচ, ভাজা জিরার গুঁড়া ১ চা চামচ, তেল ৪ টেবিল চামচ, লংকার গুঁড়া ১ চা চামচ, ধনের গুঁড়া ১ চা চামচ, লবণ স্বাদ মতো, লেবুর রস ১ চা চামচ, ধনে পাতা কুচি ২ টেবিল চামচ।

প্রণালী : ঠাণ্ডা প্যানে গোটা জিরা দিয়ে এবার চুলায় আগুন ধরান। জিরা হালকা করে ভেজে নিন। লবণ দিয়ে কিছুক্ষণ নেড়ে লংকার গুঁড়া, ধনে গুঁড়া, জিরার গুঁড়ো আর লেবুর রস দিন। সেদ্ধ করা আলুর কিউবগুলো দিয়ে সাবধানে নেড়ে মশলার সঙ্গে ভালোভাবে মিশিয়ে দিন। নামানোর আগে ধনে পাতা ছিটিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

পনির সবজি
এই রান্নাটা অনেকেই অনেক রকম করে করেন। এই রান্নায় আপনার পছন্দের যে কোনো সবজি দিতে পারেন।

উপকরণ : পছন্দ অনুযায়ী আলু, গাজর, বিনস ইত্যাদি নিন। মটরশুটি নিন আধা কাপ, তেজপাতা ১টা, কালোজিরা ১ চামচ, কাঁচালঙ্কা ২টি, নারিকেল, দুধ এবং পনির রাখুন।

প্রণালী : সব সবজি বড় বড় করে কেটে অল্প তেলে সাঁতলিয়ে নিন। এরপর পনিরের টুকরা ছোট ছোট করে কেটে তেলে ভেজে গরম জলে ১০ মিনিট ভিজিয়ে নিন। এগুলো আলাদা বাটিতে উঠিয়ে রাখতে হবে। তারপর ঠাণ্ডা কড়াইয়ে তেল ও ঘি একসঙ্গে দিয়ে এর মধ্যেতেজপাতা, সামান্য কালজিরা, চেরা কাঁচালংকা দিয়ে ফোড়ন দিন। তারপর এক কাপ দুধের মধ্যে একটু নারিকেল মিহি করে বেটে দিন। ভালোভাবে কষিয়ে নিতে নিন। কষানো শেষে পনিরের টুকরোসহ সব সবজি কড়াইয়ের ঢেলে দিন। এভাবে পনিরের তরকারি তৈরি হয়ে যাবে। আর নাবাবার সময় গরম মশলা, ঘিও দিতে পারেন।

পনির বাটার
পনিরের অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি রেসিপি হল পনির বাটার মশালা। রেঁস্তোরায় গিয়ে কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা খরচ করে অনেকেই পনির বাটার মশালা খান। তার চেয়ে শিখে নিন কী করে বানাতে হবে পনির বাটার মশালা।

উপকরণ : পনির ৫০০ গ্রাম (চৌকো করে কাটা), চারমগজ ১/৪ কাপ, কাজুবাটা ১/৪ কাপ, টমেটো ৩টি (পিউরি), কাঁচা লঙ্কা ২টি (চেঁরা), আদাবাটা ১ টেবিল চামচ, হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, লাল লঙ্কাগুঁড়া ১ চা চামচ, ধনে গুঁড়া ২ চা চামচ, গরম মশলা গুঁড়া ১ চা চামচ, চিনি আধা চা চামচ, লবণ স্বাদ মতো, গোটা জিরা ১ চা চামচ, দুধ আধা কাপ, মাখন ১ টেবিল চামচ, তেল ১ টেবিল চামচ, আদার পাতলা ফালি (সাজানোর জন্য)।

প্রণালী : পনিরের টুকরোগুলো লবণ হলুদ মাখিয়ে গরম তেলে ভাল করে ভেজে নিন। গরম জলে ১০ মিনিট রেখে দিন। একটি প্যানে মাখন ও জিরা দিয়ে ওভেন অন করুন। জিরা ফাটতে শুরু করলে তাতে শুকনা লঙ্কা ফোড়ন দিন। এতে আদা বাটা, কাঁচা লঙ্কা ও গুঁড়া মশলাগুলো দিয়ে ভাল করে কষতে থাকুন। ২-৩ মিনিটের মতো কষুন। এতে টমেটো পিউরি দিয়ে দিন। ৫ মিনিট ভাল করে রান্না করুন।

এতে কাজু ও চারমগজ বাটা দিয়ে দিন। টমেটোর সঙ্গে কাজু ভাল করে মিশে গেলে এতে উষ্ণ জল ঢেলে দিন। আন্দাজমতো জল দেবেন। আপনি যদি বেশি ঘন ঘন চান তাহলে অল্প জল দেবেন। কারিটা ফুটতে দিন। তারপর ভাজা পনিরের টুকরোগুলো দিয়ে দিন। ঢাকনা দিয়ে ৫-৬ মিনিট রান্না করুন। হয়ে গেলে উপর থেকে আর একটু মাখন ছড়িয়ে দিন। আদার জুলিয়ন ও ক্রিম ছড়িয়ে পরিবেশন করুন।

দই পটল
নিরামিষ খাবারের মধ্যে অনেকে আবার পনির পছন্দ করেন না। আবার অনেকেই দই পটল খুব ভসলবাসেন। দই পটল করতে পটল অবশ্যই বিচি ছাড়া কচি হতে হবে।

উপকরণ : টাটকা কচি পটল ৫০০ গ্রাম, দই ২০০ গ্রাম, আদাবাটা বড় আধা চামচ,
লঙ্কাবাটা আধা চা চামচ, হলুদ বাটা আধা চা চামচ, তেজপাতা দুটি, সামান্য হিং, পরিমাণ মতো লবণ, সামান্য চিনি, তেল, ঘি বড় ১ চামচ, বাটা গরম মশলা (৩-৪টি এলাচ, দারুচিনি ছোট টুকরো ৪-৫টি), ফোড়নের জন্য জিরা।

প্রণালী : পটলের পাতলা খোসা ছাড়িয়ে দু’দিকের মুখ একটু করে কেটে ধুয়ে রেখে দিন। কড়াইতে তেল নিন। তেল গরম হলে পটলগুলো লবণ হলুদ মাখিয়ে লালচে করে ভেজে রাখুন। পটল ভাজার তেল কালো হবে সেই জন্য এই ভাজা তেল অন্য একটি পাত্রে ঢেলে রেখে দিন। আবার ভাল তেল দিন। তেলে একটু ঘি দিন, হিং, গোটাজিরা, তেজপাতা ও ফোড়ন দিন, এবার ওভেন অন করুন। হালকা গন্ধ বেরোলে, আদাবাটা, লঙ্কাবাটা, অল্প হলুদ বাটা চিনি ও পরিমাণ মতো লবণ দিয়ে বেশ করে কষে নিন। মশলা কষা হয়ে গেলে দই, অল্প চিনি দিয়ে ভালো করে ফেটিয়ে নিন। একটু নাড়াচাড়া করে ভাজা পটলগুলো দিয়ে দিন। প্রয়োজন হলে সামান্য জলের ছিটেও দিতে পারেন। নেড়েচেড়ে নামিয়ে ঢেকে দিন।

 

Comments

comments