ভিটামিন ডি কমে গেলে বাড়ে যেসব স্বাস্থ্যঝুঁকি

0
209

ইদানীং ভিটামিন ডি-এর অভাবে ভুগছেন অধিকাংশ মানুষ। রোদের আলো লাগলেও যেন শরীরে ভিটামিন ডি’র মাত্রা অনেক কম, এর ঘাটতিতে হচ্ছে অনেক রোগ। যা আপনাকে চলাফেরায় কিংবা জীবন-যাপনে ক্ষতিগ্রস্ত করবে।

নিয়মিত দুধ খাওয়া হলে ভিটামিন ডি ঠিক থাকে। শুধু নিরামিষ খেলে এর মাত্রা বাড়ে না। এর প্রধান উৎসতো সূর্যালোকের সংস্পর্শ।

তাছাড়া সামুদ্রিক মাছ, দুধ, ডিমের কুসুম, মাছের যকৃতের তেলেও পাওয়া যায় ভিটামিন ডি।

ভিটামিন ডি কমে গেলে যেসব স্বাস্থ্যঝুঁকি বেড়ে যায় সেগুলো হলো-

১. ভিটামিন ডি কমে গেলে অস্টিওপরোসিস এবং ফ্র্যাকচার হতে পারে। কারণ এর ফলে হাড়ের ঘনত্ব কমে যায়। সিঁড়িতে উঠতেও কষ্ট হয় ভিটামিন ডি কমলে।

২. যদি দেখেন মেঝেতে চুল পড়ে ভরে যাচ্ছে কিংবা চিরুনিতে আর জায়গা নেই। তাহলে বুঝতে হবে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি হয়েছে শরীরে।

৩. সারাদিন ক্লান্ত লাগলে এবং শরীরে ব্যথা বাড়লে ধরে নেবেন ভিটামিন ডি’র ঘাটতি। এমনকি বিষণ্ণতা বা মন খারাপও ভিটামিন ডি এর অভাবে হতে পারে।

৪. ভিটামিন ডি এর অভাবে শিশুদের রিকেট হতে পারে। এটি হলে হাড় নরম হয়ে যায়। অনেক সময় হাড় বাঁকাও হয়ে যেতে পারে। মাথার খুলি বড় হয়ে যেতে পারে।

৫. তবে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ভিটামিন ডি-এর গুরুতর অভাব অস্টিওম্যালাসিয়ার মতো সমস্যার কারণ হতে পারে।

৬. শরীরের এনার্জি লেভেল কমতে শুরু করে এই ভিটামিনের অভাবে, অল্প কাজ করেও লাগতে পারে ক্লান্ত।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভিটামিন ডি আসলে একটি স্টেরয়েড হরমোন যা শরীরে প্রোটিন তৈরিতে নিয়ন্ত্রণকারীর ভূমিকায় থাকে এবং এর ঘাটতি হলে শিশু থেকে বয়স্ক- সবারই নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে।

মার্কিন ইনস্টিটিউট অব মেডিসিনের পরামর্শ অনুযায়ী, গড়ে দৈনিক ১০-২০ মাইক্রোগ্রামের ভিটামিন ডি খাওয়া প্রয়োজন। সূর্যালোক থেকে আমরা ভিটামিন ডি পেতে পারি সহজেই। তবে কিছু খাবার আছে যা থেকে আমরা ভিটামিন ডি এবং ক্যালসিয়াম প্রচুর পরিমাণে পেতে পারি। যেমন- টুনা মাছ ও স্যামন মাছ, ডিমের কুসুম, দই ও দুগ্ধজাত খাবার, মাশরুম, সিরিয়াল, কমলার রস, পনির ইত্যাদি।