রসুন একটি সুপারফুড

0
68

রসুন ( Garlic) আমাদের রসনাতৃপ্তিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি একটি বহুবর্ষজীবী গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদ। রসুন হলো পিঁয়াজ জাতীয় একটি ঝাঁঝালো সবজি যা রান্নার মশলা ও ভেষজ ওষুধ হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

তাছাড়া বিভিন্ন আচার ও মুখরোচক খাবার তৈরিতে রসুনের ব্যবহার রয়েছে। এর বৈজ্ঞানিক নাম Allium sativum। এটি Aliaceae গোএের অন্তভূক্ত। কান্ড অতিশয় ক্ষুদ্র, চাকতি সদৃশ, উদ্ভিদবিজ্ঞানের ভাষায় বাল্ব রুপে পরিচিত, মূলীয় অংশে অনেক অস্হানিক মূল। মূলীয় পএাবরণ দ্বারা ছদ্ম বায়বীয় কান্ড তৈরি হয়। পএ সরল,মূলজ, পরিণত অবস্হায় ৪-১০ টি, দ্বিসারী, রোমশ বিহীন, ফলক রৈখিক, প্রায় ৫০ সেমি লম্বা। পুষ্পবিন্যাস আম্বেল,ভৌমদন্ড দৃঢ়, পুষ্পপুটাংশ ৬ টি, ২ আবর্তে সজ্জিত, বিযুক্তদল, সবুজাভ সাদা। ফল বীজ বিহীন ফুল ও ফল ধারণ ঘটে ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল।

রসুন মূলত উঁচু দো-আঁশ মাটিতে ভালো জন্মে। বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি রসুন উৎপাদনকারী জেলা নাটোর। পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ হওয়ায় রসুনকে সুপারফুডের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। রসুনের মধ্যে শরীরের জন্য উপকারী থায়ামিন (ভিটামিন বি১), নায়াসিন (ভিটামিন বি৩), রিবোফ্লাবিন (ভিটামিন বি২), প্যান্টোথ্যানিক অ্যাসিড (ভিটামিন বি৫), ভিটামিন বি৬, ফোলেট (ভিটামিন বি৯), সালফার কম্পাউন্ড ও সেলেনিয়াম ইত্যাদি উপাদান রয়েছে।
রসুন বাংলাদেশসহ মধ্য এশিয়া, ভারত, চীন, মিশর, সাউথ কোরিয়া, থাইল্যান্ড ও তুরস্কে রসুন চাষ করা হয়। রসুনের মধ্যে রয়েছে অসাধারণ কিছু ভেষজগুণ।

উপকারিতা

১। রসুন প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ হওয়ায় ইউরিন ইনফেকশন কমায়।

২। রসুন এর সঙ্গে গরম পানি নিয়মিত খেলে যক্ষ্মা রোগে উপকার পাওয়া যায়।

৩। রসুন খেলে উচ্চ রক্ত চাপের সমস্যা কমে।

৪। রসুন দেহের বিভিন্ন অংশের পুঁজ ও ব্যথাযুক্ত ফোঁড়ার যন্ত্রণা কমায়।

৫। রসুন খেলে হৃদপিণ্ড ভালো থাকে। কোলেস্টেরল কমায়। এতে করে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমে।

৬। রসুন হজমশক্তি বাড়ায় ও কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে।

৭। রসুন ডায়বেটিস নিয়ন্ত্রণে করে।

৮। ব্রণের উপর রসুন ঘসলে ব্রণ খুব দ্রুত ভালো হয়ে যায়।

৯। রসুন খেলে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে।

১০। মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে ও স্মৃতিশক্তি বাড়াতে রসুন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।