মুক্তমত ও সম্পাদকীয়

২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট নিয়ে বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের ভাবনা


দেশের ৪৬টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ২০২০-২১ অর্থবছরে ৮ হাজার ৪৮৫ কোটি ১২ লাখ টাকার বাজেট অনুমোদন করেছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)। এরমধ্যে ৫৪ কোটি ২ লাখ টাকার বাজেট পেয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(বশেমুরবিপ্রবি)।যা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম বলে মনে করছেন অনেক শিক্ষার্থী।

আবার অন্যদিকে সদিচ্ছা ও আন্তরিকতার সাথে কাজ করলে এই বাজেটেই ভালো ফল পাওয়া সম্ভব বলে মনে করছেন অনেকেই। ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট নিয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীরা সন্তুষ্ট কিনা,কেমন বাজেট প্রত্যাশা করেন তাদের সাথে কথা বলে তুলে ধরেছেন আব্দুল্লাহ আল মামুন।

মোঃআলী আহসান,পরিবেশ বিজ্ঞান ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ

” একজন সাধারণ শিক্ষার্থী হিসেবে বলবো, এই বাজেট শিক্ষার্থীদের জন্য কল্যাণকর বাজেট হয় নি । বশেমুরবিপ্রবির সেশন চার্জ, হলের ভাড়া কমানো সহ আরো বিভিন্ন শিক্ষাব্যয় হ্রাস সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে অনেক দিন ধরেই শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করছেন। সেক্ষেত্রে বাজেটের পরিমাণ আরেকটু বেশি হলে ভালো হতো। তবে আশার দিক এই যে, গবেষণা খাতে ব্যয় বাড়ানো হয়েছে যা বিশ্ববিদ্যালয় এর জন্য গুরুত্বপূর্ণ । আমি বলব এই বাজেট কে যেনো সঠিক ভাবে বাস্তবায়ন করা হয় । শিক্ষার্থীবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি হোক প্রিয় বশেমুরবিপ্রবিতে ।

আকাশ সারোয়ার,ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগ।

অামাদের পরিপ্রেক্ষিতে বাজেটের পরিমান টা নিয়ে এখন ভাবা উচিত নয়।বিগত কয়েক বছরে দেখা গেছে অামাদের বিভিন্ন প্রকল্পে বাজেট অাসছে কিন্তু প্রকৃতপক্ষে সেসব প্রকল্পের বাস্তবায়ন অামরা ক্যালেন্ডারের ছবিতেই দেখতে পাই।
অামার মত হলো যে বাজেট টা অাসছে তা পূর্ন বাস্তবায়ন হোক।যেসব প্রকল্পের জন্যে বাজেট দেওয়া হয়েছে সেসব প্রকল্প বাস্তবায়িত হোক।
চলতি যেসব সমস্যা সকল শিক্ষার্থীরা বয়ে বেড়াচ্ছে সেগুলো সমাধান হোক।

জাহানারা জয়া,ফার্মেসী বিভাগ।

আমার মতে ,বরাদ্দকৃত অর্থে পরিমাণ আরও বাড়ানো উচিত ছিল বলে আমি মনে করি ।
বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় বেশিরভাগ ডিপার্টমেন্টে পর্যাপ্ত ক্লাসরুম না থাকার শিক্ষার্থীরা ঠিকমত ক্লাস করতে পারে না ।এছাড়া বেশ কয়েককটি অনুষদে পর্যাপ্ত ল্যাব ব্যাবস্থা না থাকার কারনে শিক্ষার্থীদের অনেক ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে । বেশ কয়েকটি অনুষদে ল্যাব থাকলে ও পর্যাপ্ত রাসায়নিক দ্রব্যাদির অভাবে শিক্ষার্থীদের গবেষণা কাজে ব্যাঘাত ঘটছে।এছাড়া ও লাইব্রেরি তে ছাত্র ছাত্রীদের পর্যাপ্ত পরিমাণ পাঠ্যবই , হলব্যবস্হা , অতিরিক্ত ভর্তি ফি ,সেমিস্টার ফি এর জন্য অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে।

মারুফ খন্দকার, লাইভস্টক সাইন্স এন্ড ভেটেরিনারি মেডিসিন

আমরা বশেমুরবিপ্রবি ২০২০-২১ বাজেটে আর কিছুটা সম্প্রসারিত কর্মসূচি প্রত্যাশা করছি।
আমরা আশা করি ক্লাস রুমের সংকট,শিক্ষক সল্পতা,ল্যাবের মানগত উন্নতির দিকে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে প্রণিত বাজেটের অন্তর্ভুক্ত করার মাধ্যমে

রিদায়ানুল হক ইমন,অর্থনীতি বিভাগ।

আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান পরিপ্রেক্ষিতে হয়তো অনুদান আরো একটু বেশি হলে ভালো হতো, তবে প্রকৃতপক্ষে যে অনুদান ঘোষণা করেছে তা যদি সদিচ্ছা ও আন্তরিকতার সাথে কাজ করা হয় তা হলে এর থেকে ও ভালো একটা ফল পাওয়া সম্ভব।

আব্দুর রাহিম,ইতিহাস বিভাগ।

আসন সংখ্যার দিক দিয়ে আমাদের বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ বিশ্ববিদ্যালয় হলো আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়। একটা বৃহৎ বিশ্ববিদ্যালয় হিসাবে যে পরিমাণের অবকাঠামো উন্নয়ন, গবেষণায় ও সুযোগ সুবিধা থাকা দরকার তা আমরা এখন পর্যন্ত অর্জন করিনি।তাই আমি একজন সাধারণ শিক্ষার্থী হিসেবে মনেকরি এইবারে বাজেটের সুষ্ঠু বণ্টনের প্রত্যাশা করছি এবং প্রকৃতপক্ষে একটি বিশ্ববিদ্যালয় বলতে যা বুঝাই এই বাজেটের মাধ্যমে অরেকটাই ফিরে আসবে বলে আশা করি।

রনি ইসলাম,কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং

এত ছোট্ট একটা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩৪ টা বিভাগের ১৩ হাজার শিক্ষার্থীদের জন্য বাজেট। সাথে আছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাব,ক্লাসরুম, হলরুম,লাইব্রেরি,শহীদ মিনার,মুরাল সহ বিভিন্ন উন্নায়ন প্রকল্পের সমস্যা। সত্যি বলতে এসব তুলনায় বাজেট অরেকটাই কম হয়ছে।তবে আশা করি যতটুকু বরাদ্দের ঘোষণা দিয়ছে তার যথার্থ বাস্তবায়ন হবে।

মোঃমেহেদী হাসান,আইন বিভাগ।

গবেষণায় বরাদ্দ বাড়লেও এটি পর্যাপ্ত নয় বলে আমি মনে করি।গবেষণায় যে পরিমাণ অর্থ প্রয়োজন তার তুলনায় এই অর্থ অতি সামান্য। তবে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে ল্যাবগুলোর অবস্থা ভালো নয়, এখানে গবেষণার পর্যাপ্ত সুযোগও নেই। তাই অর্থ বরাদ্দ দিলেও সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করা কঠিন। তারপরও আমরা আশা করছি, যে অর্থ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে তার সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করা এবং পরবর্তীতে বাজেট আরও বৃদ্ধি করবে।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button