দেশজুড়ে

বুড়িগঙ্গায় লঞ্চ ডুবিতে, মুন্সীগঞ্জে চলছে শোকের মাতম

  • 37
    Shares

আবু সাঈদ দেওয়ান সৌরভ, মুন্সীগঞ্জ: গতকাল সোমবার ২৯শে জুন মুন্সীগঞ্জ সদরের মিরকাদীম লঞ্চ ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া ‘মনিং বার্ড ’ নামক লঞ্চ ঢাকার বুড়িগঙ্গা নদীতে ডুবির ঘটনায় মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় বইছে শোকের মাতম। সন্ধার পর বিভিন্ন এলাকায় মৃতদেহ পৌছাতে শুরু করলে মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় মৃতদের স্বজনদের কান্নায় রোল পড়ে যায়। চারদিকে নেমে আসে শোকের ছায়া।

পুরো জেলায় চলছে অঘোষিত শোক। মৃতদের মধ্যে মুন্সীগঞ্জ সদরের মিরকাদীম পৌরসভা, পঞ্চসার ইউনিয়ন, টঙ্গীবাড়ি উপজেলাসহ রামপাল ইউনিয়ন ছাড়া ও মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন স্থানের লোক রয়েছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী উদ্ধার হওয়া ৩৬ জন মৃতের মধ্যে প্রায় সকলে মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন এলাকার। এ লেখা পর্যন্ত জেলা প্রসাশনের পক্ষ থেকে ঁজানানো হয় ৩১ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। মুন্সীগঞ্জ সদরের ১৯ জন, টঙ্গীবাড়ির ৯ জন, শ্রীনগরের ১জন, সিরাজদিখানের ১জন, ঢাকা দোহারের ১জন। উল্লেখ্য মৃতদের মধ্যে মিরকাদীম পৌরসভার লোক বেশি।

মিরকাদীম পৌরসভার গোয়াল ঘুন্নি এলাকার যমুনা ব্যাংকের ৩ জন কর্মচারী। রামপালের ফারইষ্ট কোম্পানিতে কর্মরত একজন কর্মকর্তা ছাড়াও মিরকাদীমের পশ্চিমপাড়া, নুরপুর, বণিক্যপাড়া ও বিভিন্ন এলাকায় মৃতের খবর পাওয়া গেছে।

লঞ্চে থাকা বেঁচে যাওয়া মিরকাদীমের একজন যাত্রী জানান, লঞ্চে প্রায় ১৫০ জন যাত্রী ছিল্ যাদের সবাই মুন্সীগঞ্জের বাসিন্দা। এর মধ্যে ৬০-৭০ জন বিভিন্ন ভাবে বেঁচে গেছেন। তিনি আরো বলেন উদ্ধার হওয়া মৃতদের ছাড়াও অনেকে নিখোঁজ রয়েছে। এছাড়াও এখনো মিরকাদীম ঘাটে লাশের অপেক্ষায় রয়েছে অনেকে।

মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে শোক প্রকাশের পাশাপাশি জানানো হয়, নিমজ্জিত লঞ্চের বেশির ভাগই মুন্সীগঞ্জের সদর উপজেলার। মুন্সীগঞ্জ সদরের মিরকাদীম পৌরসভা, পঞ্চসার ইউনিয়ন, টঙ্গীবাড়ি উপজেলাসহ রামপাল ইউনিয়ন ছাড়া ও তৎসংলগ্ন এলাকার বাসিন্দা।

উদ্ধারকৃত মৃতদেহ ঢাকার মিটফোর্ড হাসপাতালে সংরক্ষিত রয়েছে। মৃতদের স্বজনদের সার্বক্ষনিক সহযোগিতা ও মৃতদেহ শনাক্তের জন্য হাতিমারা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রর একজন সাব ইন্সপেক্টর হাসপাতালে রয়েছ্। মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ নিহতদের দাফন-কাফন সহ আনুষঙ্গিক সকল কার্যক্রমে মানবিক সহযোগিতা প্রদানের জন্য আন্তরিকভাবে সচেষ্ট রয়েছে।


  • 37
    Shares

Related Articles