রাত ৪:৫১ বৃহস্পতিবার ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ফুটবলারদের সঙ্গে উদ্দাম নাচ ক্রোয়েশিয়ার প্রেসিডেন্টের

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুলাই ৮, ২০১৮ , ৯:৪৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : খেলাধুলা
পোস্টটি শেয়ার করুন

বুকে আবেগের বারুদ। কিন্তু বিস্ফোরণের সুযোগ নেই। তাই মাঠে দেশের ছেলেরা গোল করলেও গ্যালারিতে উচ্ছ্বাসের আতিশয্যে গা ভাসানো যাবে না। আবার হারের পর বুক ফেটে গেলেও তার ছাপ পড়লে চলবে না চোখে মুখে। না ক্রোয়েশিয়ার প্রেসিডেন্টের, না রুশ প্রধানমন্ত্রীর।

শনিবার খেলা শুরুর আগে থেকে টাইব্রেকারের শেষ পেনাল্টি শুটআউট না হওয়া পর্যন্ত দু’জনে বসে খেলা দেখেছেন। ময়দানে যুদ্ধের আবহ থাকলেও ভিআইপি লাউঞ্জে পাশাপাশি বসা কোলিন্ডা গ্রবার কিটারোভিচ বা দিমিত্রি মেদভেদেভের মধ্যে সেসব চাপা পড়েই ছিল পদমর্যাদা আর প্রোটোকলের অন্তরালে।

কিন্তু বাঁধ ভাঙল ম্যাচের ফলাফল নির্ধারিত হওয়ার পর। টাইব্রেকারের পঞ্চম তথা শেষ রাকিটিচের পেনাল্টি গোলে ঢুকতেই সমস্ত বাঁধ ভেঙে জলোচ্ছ্বাসের মতো আছড়ে পড়ল আবেগ। দেশের প্রতি, ফুটবলের প্রতি ভালবাসার উথলানো আবেগে দু’হাত উপরে তুলে নেচে উঠলেন ক্রোট প্রেসিডেন্ট।

এতক্ষণ যে দেশের জার্সি ওভারকোটের নিচে উঁকি মারছিল, চলে এল প্রকাশ্যে। লাল ওভারকোট নেমে এল কোমরে। রুশ প্রধানমন্ত্রী মেদভেদেভের সামনেই। পাশেই ফিফা প্রেসিডেন্ট জিয়ানি ইনফান্তিনো, ১৯৯৮ বিশ্বকাপের তারকা তথা বর্তমানে ক্রোয়েশিয় ফুটবলের প্রধান দাভর সুকারের মতো ভারী ভারী নাম। পদমর্যাদার ওজন হারিয়ে হারের হতাশা তখন ছড়িয়ে পড়েছে রুশ প্রধানমন্ত্রীর চোখে-মুখেও। টুইটারে পোস্ট হতেই ক্রোয়েশিয়ার প্রথম মহিলা প্রেসিডেন্ট কিটারোভিচের সেই নাচের ছবি ইন্টারনেট দুনিয়ায় দাবানলের মতো ভাইরাল হয়ে পড়েছে।

তার আগে পর্যন্ত সারা ম্যাচের বিভিন্ন সময়ে ধরা পড়েছে ভিন্ন ছবি। গোল হলেই দেখা গিয়েছে একে অন্যকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন হাত মিলিয়ে। তাতে উচ্ছ্বাসের চেয়েও বেশি ছিল আনুষ্ঠানিকতা। ম্যাচের লাইভ সম্প্রচারের সুবাদে গোটা বিশ্ব দেখেছে সেই ছবি। গ্যালারিতে বসে দেশের ছেলেদের এভাবে উৎসাহ দেওয়ার প্রশংসা করেছে তামাম ফুটবল দুনিয়া।

কিন্তু এখানেই শেষ নয়। ভিআইপি বক্স থেকে কিটোরাভিচ ঢুকে পড়েছেন লুকা মদ্রিচ, সুবাসিচদের ড্রেসিং রুমেও। সেখানে খেলোয়াড়দের সঙ্গে রীতিমতো উদ্দাম নাচের ছন্দে পা মেলালেন। নেচে গেয়ে সেলিব্রেট করলেন সেমিফাইনালে ওঠার জয়কে।

সেমিফাইনালে উঠে গিয়েছে ক্রোয়েশিয়া। সোমবার লুকা মদ্রিচদের সামনে ইংল্যান্ড। মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামের ভিআইপি লাউঞ্জেও তাঁকে দেখা যাবে বলেই মনে করছেন ফুটবল ভক্তরা। যেমন প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে ডেনমার্কের বিরুদ্ধে দলের জার্সি পরে তাঁকে দেখা গিয়েছিল ভিআইপি গ্যালারিতে। সেদিনও ড্রেসিংরুমে গিয়ে কোচ-সহ প্রত্যেককে আলাদা আলাদা করে বুকে জড়িয়ে ধরেছেন। দেশের জন্য, দেশের ফুটবলের জন্য। দেশ, রাজনীতি, কূটনীতি এসব না হয় কিছুদিন তোলাই থাক।

Comments

comments