মুক্তমত ও সম্পাদকীয়

টেকসই উন্নয়নে নিরাপদ খাদ্য

  • 48
    Shares

প্রাণ-উচ্ছ্বল ও সুখি জীবনের জন্য স্বাস্থ্যের কোনো বিকল্প নেই। কাজ করেই সময় কাটাতে হয় মানবজীবন। কাজ করতে হলে চাই ভালো স্বাস্থ্য। চিন্তাশীলতা, বিচারবোধ, স্মৃতিশক্তি ইত্যাদির সুষ্ঠু ব্যবহারের জন্য প্রয়োজন শারীরিক সামর্থ্য। অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে চাই সুস্থ্য ও সবল জনগোষ্ঠী।

জীবনে শুধু কাজের আনন্দই নয় ভোগের ক্ষেত্রেও পরিপূর্ণ তৃপ্তি পান স্বাস্থ্যবানেরাই।তাই ব্যক্তিজীবন, সামাজিক জীবন ও জাতীয় জীবনে কল্যাণ আনয়নে সুস্বাস্থ্য অপরিহার্য।

আর সুস্বাস্থ্যের জন্য জরুরী নিরাপদ খাদ্য। নিরাপদ খাদ্য বলতে যে খাদ্য উৎপাদন স্তর থেকে শুরু করে ভোক্তার নিকট পৌঁছানো পর্যন্ত কোনোভাবেই কলুষিত হয় না এবং স্বাস্থ্যের ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায় না তাকে বুঝায়। হযরত আলী(রাঃ) বলেছেন, ‘স্বাস্থ্যের চেয়ে বড় সম্পদ আর অল্পে তুষ্টির চেয়ে বড় সুখ নেই।’

কিন্তু জীবনে সুখের জন্য স্বাস্থ্যের প্রয়োজনীয়তা থাকলেও বিবিধ কারণে অনেকের স্বাস্থ্য ভালো থাকে না। দেখা দেয় বিভিন্ন রোগব্যাধি। দশক তিনেক আগেও মানুষের রোগব্যাধি ছিল কম। থানা বা উপজেলা পর্যায়ে ছিল সীমিত সংখ্যক ওষুধের ফার্মেসি। ক্রেতাও ছিল খুব কম। বর্তমানে কয়েকগুণ বেড়েছে ফার্মেসির সংখ্যা। জেলা, উপজেলা তো বটেই প্রত্যন্ত গ্রামের ছোট ছোট দোকানেও মিলছে ওষুধ। আগে যেখানে ওষুধের দোকান বা ফার্মেসিগুলো ক্রেতা শুন্যতায় ভুগতো এখানে সেখানে লেগে আছে ভিড়। কারণ কী? বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ‘খাদ্যে ভেজাল।’
হলুদ ও মরিচের গুঁড়া, লবণ, সয়াবিন তেল, সরিষার তেল, দুধ, ঘি, মধু, মিষ্টি, গুড় এমনকী চাল, ডালেও ভেজাল।

ভেজাল শাক-সবজি, মাছ, মাংস, ফলমুলেও। বাজার গেলে চিন্তায় পড়ছেন ভোক্তারা। চিন্তার কারণ হলো নিজের বাড়ির পাকা আম, জাম, কাঁঠাল, কলা যেখানে ২-৪ দিন পর পচে যায় সেখানে বাজার থেকে ওই একই ফলমুল কিনে রেখে দিলে তাতে ধরছে না পচন। কারণ বিষাক্ত রাসায়নিক কার্বাইড দিয়ে পাকানো হচ্ছে এসব ফল।

দীর্ঘদিন তাজা আর পচন ঠেকিয়ে রাখতে ফরমালিন মেশানো হয় আঙুর, আপেল, নাশপাতি, মাল্টাসহ বিভিন্ন ফলে। বুন্দিয়া, মিষ্টি, জিলাপিতে মেশানো হয় বিষাক্ত রঙ। ভেজাল শিশুখাদ্য দুধে। ভেজাল গাভীর দুধ সেখানেও মেশানো হয় পানি। ভেজালে পিছিয়ে নেই বেকারী খাদ্যও। ভেজাল রয়েছে জীবন রক্ষাকারী ওষুধেও।

গত শুক্রবার একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত তথ্য বলছে, জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট সারাদেশ থেকে শতাধিক প্রকার পণ্যের ১০৫৮টি নমুনা সংগ্রহ করে। এসব পণ্যের নমুনা পরীক্ষায় ঘিতে ভেজাল ৬৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ, গুড়ে ৪০ দশমিক ৭৫, মধুতে ৩৩ দশমিক ৩৩, মিষ্টিতে ২৮ দশমিক ৫৭, হলুদ গুড়ায় ২৭ দশমিক ৯৩, লবণে ১৭দশমিক ৩৩, শিশুখাদ্যে ১৬ দশমিক ৬৭, মরিচের গুড়ায় ১৪ দশমিক ৬৩, ধনিয়া গুড়ায় ৩ দশমিক ৪৫, সরিষার তেলে ১ দশমিক ০৩, চালে ৮ দশমিক ৩৩, ডালে ৫ শতাংশ এবং আটায় ভেজাল রয়েছে ৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ। পরীক্ষায় মিলেছে টেক্সটাইল কেমিকেল, রঙ ও ইউরিয়ার অস্তিত্ব।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন ভেজাল বা অনিরাপদ খাদ্য খেয়ে আমাশয়, রক্তচাপ, কিডনি, হৃদরোগ ও ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে কর্মক্ষমতা হারাচ্ছে মানুষ সাথে বাড়ছে অকাল মৃত্যুর হার। বিবেক থাকলেও মুনাফাখোর অসাধু ব্যবসায়ীরা নীতি-নৈতিকতাকে বিসর্জন দিয়ে অজ্ঞানতা থেকে নয় বরং সচেতনভাবে খাদ্যদ্রব্যে মেশাচ্ছে ক্ষতিকর বিষাক্ত উপাদান। অর্থের নেশা বন্দি করেছে তাদের বিবেক। অবস্থাদৃষ্টে মনে হয় তাদের কাছে মানুষের জীবন নয়, অর্থই যেন মূখ্য।

থেমে নেই কর্তৃপক্ষ। খাদ্যে ভেজাল রোধে চলছে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান, হচ্ছে জেল, জরিমানা। কিন্তু তারপরও কমছে না ভেজাল। এক্ষেত্রে উত্তরণের পথ হলোঃ পরিবারে নৈতিক শিক্ষার প্রসার ঘটাতে হবে, ভোক্তাদের সচেতন করতে টেলিভিশন, পত্রপত্রিকায় প্রচার চালাতে হবে কোন কোন পণ্যে ভেজাল, ভেজাল খাদ্যে সৃষ্ট ক্ষতির প্রভাব সম্পর্কে, খাদ্যে ভেজাল করলে তার শাস্তির ধরণ বা আইন।

এ ছাড়া অপরাধের সঙে জড়িতদের ট্রেড লাইসেন্স বাতিল করা, ভেজাল বিরোধী অভিযান আরো জোরদার করা, প্রত্যেক উপজেলায় পরীক্ষাগার স্থাপন করা, পণ্যের মোড়কে সুস্পষ্ট করে কোম্পানির লাইসেন্স নম্বর, ট্রেডমার্ক, পণ্যের উৎপাদন ও বিক্রির সময়সীমা উল্লেখ করতে হবে। যাই হোক, দেশ খাদ্য নিরাপত্তা অর্জন করেছে।

২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন অভিষ্ট বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে গেলে মানবসম্পদ ধ্বংসকারী খাদ্যে ভেজাল দেয়া অসাধু ব্যবসায়ীর লাগাম টেনে ধরতে হবে। তবেই রোগমুক্ত থেকে কর্মক্ষম হয়ে উঠবে আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্ম। অর্জিত হবে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট। সেটাই সবার প্রত্যাশা।

এম এ মাসুদ
লেখকঃ কলামিস্ট ও গণমাধ্যম কর্মী


  • 48
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন