দেশজুড়ে

তুরাগে রাইদা বাসের ধাক্কায় কলেজ শিক্ষার্থী পা ভেঙ্গে দ্বি-খন্ডিত

হাসপাতালের বেডে মৃত্যুর সাথে লড়াই করছে ফরিদ

  • 90
    Shares

এস,এম,মনির হোসেন জীবন : রাজধানীর তুরাগে ডিয়া বাড়ি এলাকায় রাইদা পরিবহনের (বাসের) ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী ও কলেজ শিক্ষার্থী মো: ফরিদ খান (২২) গুরুতর আহত হয়েছেন। তার বাম পা ভেঙ্গে দুই টুকরা হয়ে গেছে,মাথায় ও শরীরে গুরুতর আঘাত নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে বর্তমানে সে হাসপাতালের বেডে শুয়ে মৃত্যুর সাথে লড়াই করছেন। এদুর্ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন ওই ঘাতক রাইদা বাসের চালক কামরুল ইসলাম (২২)কে গাড়ি সহ আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

গত মঙ্গলবার (৯ জুন) রাত সাড়ে ৮টার দিকে তুরাগের ডিয়াবাড়ি -উত্তরা বিআরটি এর অফিসের সামনের রাস্তায় এদুর্ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী,পুলিশ,এলাকাবাসি ও মামলার বাদী শাহিদা বেগম জানান, গত ৯ জুন রাত সাড়ে ৮টার দিকে আমার আপন ছোট ভাই মো: ফরিদ খান (২২) মোটরসাইকেল যুগে চন্ডালভোগ যাওয়া পথে ডিয়াবাড়ি বিআরটিএ অফিসের সামনে পৌছালে রাইদা পরিবহনের একটি বাস যার নাম্বার ঢাকা-মেট্রো-ব-১৪-৯১৪৪ এর গাড়ি চালক বিবাদী কামরুল ইসলাম (২২) পিতা শাহজানান মৃধা মাতা মাকসুদা বেগম গ্রাম চরগজারিয়া থানা শিবচর জেলা মাদারীপুর। বর্তমানে ঢাকার মুগদা বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালাইয়া আসিনা আমার ছোট ভাই ফরিদ খানের বহনকারী মোটরসাইকেলটিকে সজোরে ধাক্কা দেয়।এসময় মোটরসাইকেল সহ ফরিদ গুরুতর আহন হয়ে রাস্তায় পড়ে থাকে। তখন স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্বার করে উত্তরা ১২ নম্বর সেক্টর খালপাড় কার্ডিওকেয়ার হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে তার অবস্থা অবনতি দেখে ডাক্তাররা তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে রেফার্ড করেন। পরবর্তীতে ফরিদ খানকে ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেলে হাসপাতালের জরুরী বিভাগের ডাক্তাররা দেখার পর তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার পোস্তগোলা মেরীল্যান্ড হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে আমার ভাই উক্ত হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎধীন রয়েছে।

এদিকে, আহত শিক্ষার্থী ফরিদ খানের বোন শাহিদা বেগম ও তার আত্নীয় স্বজনরা বলেন, ইতিমধ্যে আমার ভাইয়ের বাম পায়ে হাঁটুর নীচে হাঁড় দুই টুকরা হয়ে গেছে। সেখানে অপরেশন করা হয়েছে। তার শরীরে ২০টি সেলাই করা হয়েছে। তার হাতে ও মাথায় আঘাত রয়েছে। এছাড়া দুর্ঘটনার পর তার কান দিয়ে রক্ত বের হচিছল। সে সময় সে বমি করেছিল। খুব শিগগিরই আমার ভাইয়ের মাথায় অপারেশন করতে হবে। হাসপাতালের ডাক্তারা বলেছেন- আমার ভাইয়ের অবস্থা অনেকটাই ক্রিটিক্যাল। তার শরীরের অবস্থা সংকটাপন্ন।

ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করে বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত শিক্ষার্থী ফরিদ খান বরিশাল মুলাদী থানার আরিফ মোহাম্মদ কলেজে অনার্স ফাইনাল বর্ষের ম্যানেজমেন্ট বিভাগের মেধাবী শিক্ষার্থী। ৩ ভাই ২ বোনের মধ্যে আরিফ সকলের ছোট। ইতোমধ্যে তার চিকিৎসার জন্য ২ লাখ টাকা খরচ হয়ে গেছে। আরও কয়েক লাখ টাকার প্রয়োজন। আমার ভাইকে সময়মত চিকিৎসা করাতে না পারলে সে সারা জীবনের জন্য পঙ্গুত্বের বোঝা নিয়ে বেঁচে থাকতে হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ছোট ভাইয়ের মামলার বাদী শাহিনা বেগম (২৭) স্বামী মো: হেলাল শিকদার মাতা হেনুয়ারা বেগম। গ্রাম-চরকমিশনার থানা মুলাদী জেলা বরিশাল। বর্তমানের তুরাগের চন্ডালভোগ গ্রাম নূর হোসেনের বাড়ির ভাড়াটিয়া। মামলার বাদী শাহিদা বেগম অভিযোগ করে জানান, আমি থানায় মামলা দায়ের করার পর থেকে অদ্যবধি পর্যন্ত স্থানীয় একটি স্বার্থান্বেষী কুচক্রিমহল আমাকে স্থানীয় ভাবে আপোষ মিমাংষা-বিচার সালিশ করার জন্য বিভিন্ন ধরনের চাপ সৃষ্টি করছে।তারা মামলা তুলে নিতে চাপ প্রয়োগ সহ আমাকে নামে-বেনামে বিভিন্ন ধরনের হুমকী ও ভয়ভীতি দেখাচেছ।

এদিকে, তুরাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নুরুল মোত্তাকিন আজ গনমাধ্যমকে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

তুরাগ থানা পুলিশ জানান, এবিষয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত কলেজ শিক্ষার্থী ফরিদ খান এর বোন শাহিদা বেগম বাদী হয়ে সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এর ১০৫ ধারা মোতাবেক (বেপরোয়া ও দ্রুতগতিতে গাড়ি চালাইয়া গুরুতর আহত করার অপরাধ) তুরাগ থানার একটি মামলা দায়ের করেছেন। যার মামলা নম্বর (৬)। তারিখ- ১০ (০৬)২০২০ ইং।

এবিষয়ে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য সরকারের আইনশৃংখলা বাহিনীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তা সহ মহামান্য (বিঞ্জ) আদালতের কাছে ঘটনার সুষ্ঠ ও ন্যায় বিচার দাবী করেছেন।


  • 90
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button