ভাগ্যকুল-দোহার সড়কে চরম ভোগান্তি

0
8

আরিফুল ইসলাম শ্যামল: ভাগ্যকুল-দোহার সড়কের শ্রীনগর উপজেলার কামারগাঁও বাজার থেকে তালুকদার বাড়ি পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার রাস্তার সংস্কার কাজ বন্ধ থাকায় হাজারো যানবাহন ও পথচারীদের চলাচলে চমর দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। প্রায় দিনই খানাখন্দ্বে ভরা সড়কে ঘটছে দুর্ঘটনা। এর আগে ওই এলাকার সড়কের পাশে বসতি কয়েকটি পরিবারের অভিযোগের পরিপেক্ষিতে কাজ বন্ধ থাকার কথা স্বীকার করেন সড়ক ও জনপথ শ্রীনগর অফিস। যদিও ওই দেড় কিলোমিটার রাস্তা বাদে বাকি সম্পূর্ন সড়কের সংস্কার কাজ অনেক আগেই শেষ করেছেন ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান জানায় স্থানীয়রা।

কাজ বন্ধ থাকার বিষয়ে জানা যায়, কামারগাঁও বাজার থেকে তালুকদার বাড়ি পর্যন্ত রাস্তায় প্রায় ১০/১২টি ঝুঁকিপূর্ণ বাক বা মোড় রয়েছে। সংস্কার কাজের সময় বাকগুলো সরলীকরণের জন্য উদ্যোগ নেয়া হয়। সড়কের পাশের বেশ কয়েকটি বসতি পরিবারের জায়গা সড়ক সংস্কারের কাজের মধ্যে পরে জায়। এতে করে পরিবারগুলো সড়কের কাজে আইনগত ভাভে বাঁধা প্রদান করে। এর পর থেকেই দেড় কিলোমিটার সড়ক সংস্কার কাজ বন্ধ থাকে। এতে করে দেড় কিলোমিটার ভাঙাচুরা সড়কের কারণে মুন্সীগঞ্জ ও ঢাকার বেশ কয়েকটি উপজেলার জনসাধারণের চলাচলে দুর্ভোগ হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, দীর্ঘদিন যাবত এভাবে পরে থাকায় সড়করে দেড় কিলোমিটার রাস্তায় যানবাহনসহ মানুষের হাঁটা চলাফেরায় অনুপযোগি হয়ে পরে। এতে করে খানাখন্দ্বে ভরপুর রাস্তায় সামান্য বৃষ্টি পানি জমে বড় বড় গর্তগুলো মৃত্যুর ফাঁদে পরিনত হয়। এতে করে প্রায় সময়েই দুর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছেন পথচারী। অন্যদিকে ভাঙাচুরা রাস্তায় সার্বক্ষনিক ধুলবালুতে নাকাল হয়ে পরে পুরো এলাকা। এতে করে স্থানীয় বসবাসকারী ও পথচারী স্বাস্থ্য ঝুঁকিকে পরেছে। ভাঙাচুরা সড়কে একদিকে যানবাহন চলাচলে বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে অপরদিকে পথচারীদের দুর্ঘটনার আশঙ্কায় থাকছেন এমনটাই জানান ভোক্তভোগীরা। বসতিদের বাঁধার কারণে নিরুপায় হয়ে সংস্কার কাজ বন্ধ রাখতে বাধ্য হয়েছেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এনডিই।

বসতি বাড়ির পক্ষ থেকে শিপন বেপারীসহ কয়েকজন জানান, সড়কের সংস্কার কাজে বাকগুলো সরলী করতে তাদের জমি একোয়ার (অধিগ্রহন) করার কথা। এখনও তারা এবিষয়ে শতভাগ নিশ্চিত হতে পারেননি। তাদের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠকও হয়েছে। তবে কোনও প্রতিকার হয়নি। তারা সুনিদিষ্ট সুরাহা পেলে সংস্কার কাজে তাদের কোনও আপত্তি নেই জানান তারা।

এ বিষয়ে ভাগ্যকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী মনোয়ার হোসেন শাহাদাতের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এবিষয়ে একাধিকবার স ও জ কর্মকর্তা ও স্থানীয় বসতি পরিবার গুলোর সাথে সমাধানে বৈঠক হয়েছে। এতে কোনও সমাধান আসেনি। পরিবার গুলোর দাবি জমি অধিগ্রহনের টাকা হাতে না পাওয়া পর্যন্ত তারা তাদের জায়গা ছাড়বেনা। সুশিল মহল বলছেন, উভয় পক্ষের দন্দ্বের কারণে কাজে বেগাত যাই হোক না কেন এটার একটা দ্রুত সমাধান হওয়া প্রয়োজন। তা না হলে একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়কে হাজার হাজার যানবাহন ও মানুষের চলাচলে দুর্ভোগ পোহাতেই হবে। জনগণের দুর্ভোগ লাঘবে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের এ বিষয়ে সুদৃষ্টি কামনা করেন তারা।

সড়ক ও জনপথ উপ-সহকারী প্রকৌশলী (শ্রীনগর উপ-বিভাগ মুন্সীগঞ্জ) মো. জাকির হোসেনের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাকগগুলো সরলী করণের জন্য আমাদের জমি অধিগ্রহন করতে হচ্ছে তা এখন প্রায়ই শেষের দিকে। করোনা কালীনের জন্য বিলম্ব হচ্ছে। এর আগে আমরা কয়েক বার কাজ করার জন্য চেষ্টা করেছিলাম কিন্তু বসতিরা টাকা হাতে না পাওয়া পর্যন্ত কাজ করতে দেবেনা বলে জানান তিনি।