দেশজুড়ে

চেয়ারম্যানের স্ত্রীর থেকে জ্বিনের বাদশা নিয়ে গেলো ১৬ লাখ টাকা; ৩ সহোদর আটক

৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

  • 326
    Shares

রাব্বি ইসলাম, স্টাফ রিপোর্টারঃ টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে জ্বিনের বাদশা চক্রের ৩ সক্রীয় সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের সুত্র ধরেই অভিযান পরিচালনা করে শুক্রবার (০৪জুন) রাতে ভোলা জেলার বোরহান উদ্দিন উপজেলার দেওলা শিবপুর গ্রামের তাদের নিজ বাড়ি থেকে আটক করা হয়। তারা তিনজন সহোদর ভাই।

জানা যায়, মির্জাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর এনায়েত হোসেন মন্টুর স্ত্রী মনোয়ারা বেগম দীর্ঘদিন যাবৎ পেটের ব্যাথায় ভুগছেন এবং ভালো চিকিৎসারও সন্ধান করে আসছেন। চলতি বছরের গেলো ১৫ মার্চ রাতে টিভি দেখার এক পর্যায়ে ৪৩ ভিডিও নামের একটি চ্যানেলের স্ক্রলে দেখানো বিজ্ঞাপন দেখে তাদের দেয়া মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করেন। পরবর্তীতে তাদের সঙ্গে কথা হলে আটককৃতরা ভুলিয়ে-ভালিয়ে তাদের প্রতি তাকে বিশ্বাস স্থাপন করান।

একপর্যায়ে তারা নিজেদের জ্বিনের বাদশা পরিচয়ে জ্বিন দ্বারা চিকিৎসা করাবে এবং সারাজীবনের জন্য এই সমস্যা সমাধান হবে বলে আশ্বস্ত করেন। সমস্যা থেকে চিরমুক্তি পেতে জ্বিনের বাদশার কথা মোতাবেক বিকাশে টাকা পাঠান। গেলো মার্চ মাস থেকে শুরু করে পরবর্তী তিন মাসেই একাধিকবার ৩টি বিকাশ নাম্বার ব্যবহার করে ১৫ লাখ ৯৯ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় এই তিন কথিত জ্বিনের বাদশা প্রতারক সংঘবদ্ধ চক্র। পরে ঘটনাটি পারিবারিকভাবে জানাজানি হলে চেয়ারম্যানের ভাইয়ের মেয়ে (ভাতিজী) খালেদা আক্তার অজ্ঞাত কয়েকজনকে বিবাদী করে গত ২৩ মে মির্জাপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগের সুত্র ধরে তথ্য-প্রযুক্তির সাহায্যে তাদের সন্ধান করে পুলিশ। পরে গত শুক্রবার (০৪জুন) রাতে তিন সহোদরকে ভোলা জেলার নিজ বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের পর শনিবার দুপুরে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন চেয়ে টাঙ্গাইল চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নেয়া হলে আদালতের বিচারক তাদের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন বলে নিশ্চিত করেছেন, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মির্জাপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই) মোহাম্মদ আলাউদ্দিন।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। জিজ্ঞাসাবাদে মূল রহস্য ও চক্রের সন্ধান উদঘাটনের চেষ্টা করা হবে।

আটককৃতরা হলেন, ভোলা জেলার বোরহান উদ্দিন উপজেলার দেওলা শিবপুর গ্রামের তিন সহোদর ভাই আব্দুর রবের ছেলে মিন্টু মিয়া (৩৫), আলম মিয়া (২৭) ও মিজান মিয়া (২২)। তাদের কাছ থেকে প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত মোবাইল ও সিমকার্ড উদ্ধার করা হয়েছে।


  • 326
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন