দেশজুড়ে

শ্রীনগরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে যুবধারা নেতার নেতৃত্বে হামলা

  • 324
    Shares

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি: শ্রীনগর উপজেলার আটপাড়া ইউনিয়নেরর হাঁসাড়াগাঁও এলাকায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিকল্পযুব ধারার এক নেতার নেতৃত্বে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে হামলা চালানো হয়। এতে করে পশ্চিম ও পূর্ব হাসাড়া গাঁও গ্রাম বাসীর মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গত শুত্রবার, শনিবার ও রোববার ৩ দফায় এই সংঘর্ষের ঘটনায় পূর্ব হাসাড়া গাঁওয়ে দোকানঘর ভাঙচুর ও উভয় পক্ষের ৫ জন আহত হয়। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি শান্ত করে। এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার পূর্ব হাঁসাড়া গাঁও গ্রামের আশরাফ আলীর পুত্র মো. বাচ্চু (৫৫) বাড়ির কাজের জন্য ভ্যানে করে বাশ ও বেড়া আনছিল। পশ্চিম হাঁসাড়া গাঁও রাস্তার মোড় ঘুরতে গিয়ে একটি ল্যাম্প পোষ্টের সাথে বাশ লাগলে উপস্থিত পশ্চিম হাঁসাড়া গাঁওয়ের আবুল কালাম কালু (৫০) ও তার ভাতিজা রাব্বি মো. বাচ্চুকে গালমন্দ করে। এসময় কেন্দ্রীয় বিকল্প যুবধারা নেতা মো. নূর হোসেন সুমনকে জানালে তিনি সায়েস্তা করার হুকুম দিলে চাচা ভাতিজাসহ শহিদুল (৪২), রাব্বি (২০), নাফিজ (২২) বাচ্চুকে মারধর করে আহত করে।

পরের দিন শনিবার বিকালে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ঘটনাটি মিমাংসার জন্য নূর হোসেন সুমনের সাথে কথা বলতে গেলে তাদেরকে উদ্দেশ্য করে উস্কানিমূলক কথাবার্তা বলে। সন্ধ্যার দিকে পশ্চিম হাঁসাড়া গাঁও ও পূর্ব হাঁসাড়া গাঁও গ্রামের লোকজন সংঘর্ষে জরিয়ে পরে। এতে করে পশ্চিম হাঁসাড়া গাঁওয়ের মো. মতলব ও পূর্ব হাঁসাড়া গাঁওয়ের আলীনুরসহ অপু আহত হয়। তার পরে রোববার বিকালে পুনরায় পার্শ্ববর্তী ইউনিয়ন তন্তরের পাড়া গাঁও গ্রামের লোকজন নিয়ে পূর্ব হাসাড়া গাঁও গ্রামে এসে দোকানে হামলা চালিয়ে দোকানঘর ভাঙচুর ও দোকানি খোকাকে মেরে আহত করে তারা। এসময়ও বিকল্প যুবধারার নেতা নূর হোসেন সুমন উপস্থিত ছিলেন।

মারধরের স্বীকার মো. বাচ্চু বলেন, নূর হোসেন সুমনের হুকুমে আমাকে তারা মারধর করে। সুমন নিজেকে স্থানীয় এমপির লোক দাবী করে বলেন, আমার কিছুই করতে পারবা না।

ওই এলাকার মো. আজাহার হোসেন, মো. আসাদুজ্জামান, সাইফুল, আক্তার, আবু বখরসহ অনেকেই তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উস্কানি দিয়ে সংঘর্ষ বাঁধানোর তীব্র নিন্দা জানান।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. শাজাহান মোল্লার কাছে এবিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এমন সংঘর্ষ হওয়াটা অতি দুঃখজনক। বিকল্প যুব ধারার নেতা নুর হোসেন সুমন ইচ্ছে করলে ওখানেই ঘটনাটির সমাধান করতে পারতেন। তা না হয়ে শনিবার সন্ধ্যার দিকে সংঘর্ষ হয়। জনপ্রতিনিধি হিসেবে পশ্চিম হাঁসাড়া গাঁও গেলে বহিরাগতরা আমাকে আটক করে রাখে। এখানেও সুমনের ভুমিকা প্রশ্নবৃদ্ধ।

ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. হিরু জানান, ঘটনাটির সমাধানে বিকল্প যুবধারা নেতার সাথে কথা বলেছিলাম। তিনি মঙ্গলবার বসার জন্য বলেন। কিন্তু সন্ধ্যার দিকে সুমন বহিরাগত লোকজন নিয়ে আক্রমন চালায়। পরে এলাকাবাসি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠলে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। ঘটনা এখানেই শেষ নয় রোববার বিকালেও পাড়াগাঁও থেকে লোকজন নিয়ে এসে সুমন এখানে হামলা চালায়। বিকল্প যুবধারা নেতা নূর হোসেন সুমনের কাছে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সব অস্বীকার করে বলেন যদি কোনও অন্যায় কাজের প্রমান পাওয়া যায় তালে যে শাস্তি হয় তা মেনে নিব।

শ্রীনগর থানা অফিসার ইনচার্জ মো. হেদায়াতুল ইসলাম ভূঞা জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করা হয়েছে। এখনও কোনও অভিযোগ দায়ের হয়নি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


  • 324
    Shares

Related Articles