বিবিধ

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ


গত ২০-২১ তারিখে কয়েকটি অনলাইন নিউজ পোর্টালে ও সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে আমাকে নিয়ে ‘হরিপুর থানা পুলিশের বিরুদ্ধে মাদক কারবারীকে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ করেছেন আব্দুর রহিম। আমি লিখিতভাবে প্রতিবাদ করছি, আমাকে জড়িয়ে যে খবর প্রকাশিত হয়েছে তা সম্পূর্ণ ভুয়া, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। আমি উক্ত ঘটনার সাথে জড়িত নহে। আমাকে নিয়ে যে অভিযোগ করা হয়েছে এবং সংবাদটি প্রকাশিত করা হয়েছে সে বিষয়ে আমার সঙ্গে কথা বললেই বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে যেতো।

আমি মোঃ আঃ রহিম, পিতা মৃত ওসমান গণি, সং- গেদুড়া কিশমত (গেরুয়াডাঙ্গী), থানা হরিপুর, জেলা ঠাকুরগাঁও। আমার জানামতে মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে কখনও লেনদেন বা তাদেরকে সহযোগিতা করার ঘটনার সাথে আমি সম্পৃক্ততা নহে।আমার বাড়ি সীমান্ত এলাকায় হওয়ার কারণে বিজিবি এবং পুলিশ সদস্যরা আমার সাথে প্রায় যোগাযোগ করে। তাদেরকে আমি মুঠোফোনের মাধ্যমে সহযোগিতা করে থাকি। আমার সীমান্ত এলাকায় মাদক নির্মূল করার জন্য সর্বধিক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

এই মাদক চোরাচালান বন্ধ করতে গিয়ে আমাকে অনেক হয়রানির শিকার হতে হয়েছে। তাছাড়া প্রকাশিত নিউজের মধ্যে উল্লেখ্য থাকে যে পুলিশ আমাকে আটক করে ছেড়ে দিয়েছে। আসলে তা সত্য ঘটনা নহে। আমি সেদিন রাতে খাওয়া শেষে ঘুমাতে যায়, গভীর রাতে এক মহিলা ও একজন পুরুষ আমার বাড়িতে এসে কান্নাকাটি করে আমি বিষয়টি জানতে চাইলে তারা আমাকে বলে যে, মহসিনকে হরিপুর থানা পুলিশ আটক করেছে। আমি হরিপুর থানা পুলিশ কে ফোন দিলে তারা বলেন ১০০ বোতল ফেন্সিডিলসহ মহসিনকে হতেনাতে আটক করা হয়েছে।

যেহেতু আমি জনপ্রতিনিধি হিসাবে সমাজের বিভিন্ন ব্যক্তিদের সাথে যোগাযোগ করতে হয়,তাই মাদক কারবারী মহসিনকে শান্তনা দেওয়ার জন্য আমি পুলিশকে ফোন দিয়ে নিজে থেকে থানা যাওয়ার জন্য রাজি হয়। ঘটনার সময় আটক মহসিন বলেছে যে, এই ১০০ বোতল ফেন্সিডিল এর সাথে আমি জরিত যা আমি পরে জানতে পারি। আসলে আমি জরিত নহে। আমি নির্ষোশ। যদি আমি মাদকের সাথে জরিত হয়ে থাকি তবে, এসআই কে ফোন দিয়ে থানায় হাজির হওয়ার জন্য বলতাম না এবং আমি মহসিন এর আত্মীয়দের নিয়ে থানায় হাজির হওয়ার জন্য ঠাকিঠুকি মোড় (দোকান)এ অবস্থান করলে ফোনের মাধ্যমে এসআই ঈসাকে আসার জন্য বলি।

পুলিশ আসার পরে আমাকে বলে যে আপনি থানায় চলেন, আমরা মহসিনের বিষয়ে কোনো কিছু করা যায় কি না সে বিষয়ে আলোচনা করবো। আমি তাদেরকে বলি থানা যাওয়া জন্য আমি প্রস্তÍত নিয়ে এসেছি। এই বলে আমি থানায় হাজির হয়ে দেখি যে ওসি স্যার নাই, পরে তারা আমাকে ডিউটি রুমে আটক রাখে। সকালে ওসি স্যার কে মহসিনের বিষয়ে কিছু বলার সময় ওসি স্যার আমার প্রতি ক্ষিত হয়ে বলে যে, মাদক বিষয়ে আমার কাছে কোনো ছাড়া নাই, যে ব্যক্তি সুপারিশ করতে আসবে তার বিরুদ্ধে আইনগতভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মহসিনকে শান্তনা দেওয়ার জন্য মাদকের বিষয়ে সুপারিশ করতে গেলে ওসি স্যার আমাকে আটক করে এবং অনেক আকুতি ও পরিবারের লোকজনের কাছে মুচলেখা নেওয়ার পর ছেড়ে দেওয়ার সময় বলে যে আর কোনদিন মাদক বিষয়ে সুপারিশ করতে আসলে তোমাকে জেলহাজতে নিয়ে যাব। তোর এলাকার মাদককারবারীদের বলে দিস মাদকের বিষয়ে ছাড়া নেই আমার কাছে। প্রকাশ থাকে যে, আমি মোঃ আঃ রহিম, পিতা মৃত ওসমান গণি

। গত ইউপি নির্বাচনে ওয়ার্ড সদস্য হিসাবে নিবার্চন করেছি, অল্প ভোটে আমি পরাজিত হই। তাই এবার আসন্ন ইউপি নিবার্চনে ইউপি সদস্য হিসাবে নিবার্চন করার জন্য আমি প্রস্তÍতি নেওয়া সময় আমাকে দিয়ে কিছু স¦ার্থ লোভী ব্যক্তি বিভিন্ন ভাবে আমাকে হে পূর্ণ বা ফাঁসানোর চেষ্টা করে। একটি পক্ষ নিজেরাই এমন কাজ করে আমার বিরুদ্ধে কুৎসা ছাড়াচ্ছে। আমি এতে সামাজিক, মানষিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হয়েছি। দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠান হিসেবে অনলাইন পত্রিকাটিকে বিষয়টি আরও গভীরভাবে অনুসন্ধান করা উচিত ছিলো বলে আমি মনে করছি।

উক্ত পত্রিকায়গুলোতে প্রকাশিত সংবাদটি সম্পূণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মিথ্যা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। কে বা কারা প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার জন্য এহেন কর্মকা-ে লিপ্ত। এবিষয়ে আমি সশরীরে উপস্থিত হয়ে সাক্ষ্য দিতে রাজি আছি যে আমি উক্ত ঘটনার সাথে কোনো ধরণের লিপ্ত নহে। অসত্য মিথ্যা ঘটনা সমর্থন করতে পারেন না বিদায় উল্লেখিত প্রতিবেদনটির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।
বিনীত

মোঃ আঃ রহিম
পিতা মৃত ওসমান গণি
গ্রামঃ কিশমত (গেরুয়াডাঙ্গী) গেদুড়া
হরিপুর-ঠাকুরগাঁও


Related Articles