দেশজুড়ে

জামালপুর জেলা ছাত্রলীগ নেতা সিয়াম সাদী’ফেসবুকে স্ট্যাটাসের জেরে বহিষ্কার


আবু সায়েম মোহাম্মদ সা’-আদাত উল করীম : জামালপুর জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি আব্দুল্লাহ আল সাদী সিয়াম (সিয়াম সাদী) ফেসবুকে বিতর্কিত স্ট্যাটাস দেয়ায় তাকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে জামালপুর জেলা ছাত্রলীগ।জেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, দলীয় ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ ও শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি আব্দুল্লাহ আল সাদী সিয়ামকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।একই সঙ্গে কেন তাকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হবে না, তা জানতে চেয়ে সাত দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়েছে।

জামালপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাকসুদ বিন জালাল প্লাবন জানান, গত ৫ মে আব্দুল্লাহ আল সাদী সিয়াম তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে একটি বিতর্কিত স্ট্যাটাস দেন, যা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। স্ট্যাটাসে সংগঠনের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে।২৮মে ২০২০ বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে জেলা ছাত্রলীগ জরুরি সভা ডেকে তাকে সাময়িক বহিষ্কার করে।

সাময়িক বহিষ্কৃত সহসভাপতি আব্দুল্লাহ আল সাদী সিয়াম গণমাধ্যমকে বলেন, কোনো নোটিশ আমি পাইনি। কী কারণে আমাকে বহিষ্কার করা হয়েছে তাও জানি না।এর পর তিনি জানান, এ রকম নোটিশ তাকে কয়েক দিন পরপরই দেয়া হয়। এটি কোনো ব্যাপার নয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন বিক্রেতা নেতা বলেন দীর্ঘদিন ধরে সাদী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিভিন্ন ধরনের বিতর্কিত মন্তব্য করে আসছে, তাকে স্থায়ী ভাবে বহিস্কার করা উচিত। যাতে ভবিষ্যতে কোন নেতা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে জড়িত না হয়।

অপর দিকে মো. মেহেদী হাসান জামালপুর সদর উপজেলার ৭ নং ঘোড়াধাপ ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সদস্য তার ফেসবুকে সালাম সাদীকে নিয়ে সমালোচনা করে তার পেইজে স্টেটাসে উল্লেখ করেন, “তোফায়েল আহমেদ এর মতো জাতীয় নেতার লিখা চুরি করে নিজের নামে চালিয়ে দিয়েছে! বাটপার,তেলবাজ সিয়াম সাদী, ভুলিনি ৭ ফেব্রুয়ারি ভারুয়াখালী আমাদের ছাত্রলীগের জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠানের ঘটনাটা।

জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সিয়াম সাদির বিরুদ্ধে লেখা নকলের অভিযোগ
জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সিয়াম সাদি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে জ্ঞানপাপীদের মধ্যে তিনি ইতিমধ্যে সেরাদের সেরা হয়েছেন। সদ্য সাময়িক বহিষ্কার হওয়া এই নেতার বিরুদ্ধে লেখা নকল করে নিজের নামে চালিয়ে দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন জেলা ছাত্রলীগের অন্যান্য নেতা কর্মীরা।
তিনি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন সহ বিভিন্ন দিবসে অন্যের লিখা কপি করে তা হুবহু নিজের নামে চালিয়ে আসছেন। ইতিমধ্যে এমন কর্মযজ্ঞের জন্য হাস্যরসে পরিণত হয়েছেন তিনি।
আওয়ামী লীগের প্রবীণ এই নেতা তোফায়েল আহাম্মেদ এর ১৭ই মে ২০১৮ সালের লেখা টা হুবুহু নকল করে নিজের নামে লেখক হিসেবে প্রচার করে তা একটি অনলাইন পোর্টালে নিউজ করছেন জেলা ছাত্রলীগের সমালোচিত এই নেতা।
জানা যায়, অন্ধকারের ঘোর অমানিশা থেকে আলোর পথে যাত্রা শুরু নামের একটি লিখা তিনি দৈনিক জামালপুর অনলাইন নিউজ পোর্টালে ১৭ মে ২০২০ এ লেখক হিসেবে প্রকাশ করেন৷ অথচ লিখাটি কন্যাবঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন নিয়ে এই লিখাটি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ নামের একটি ব্লগে ১৭ মে ২০১৮ সালে জয়যাত্রায় জননেত্রী নামে প্রকাশিত হয় । যার লেখক ছিলেন
তোফায়েল আহমেদ।
এছাড়াও অনেক লিখাই নিজের নাম ও পদবী দিয়ে তিনি চালিয়ে দিয়েছেন বলে প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে।
নাম জানাতে অনিচ্ছুক এক ছাত্রলীগের কর্মী বলেন, চাটুকারীতার মাধ্যমে সে নেতা বনে গেছেন।আসলে তার মাঝে মিনিমাম লজ্জা নেই৷ একজন জেলা ছাত্রলীগের কতটুকু স্পর্ধা হলে লিখা কপি করে নিজের নামে চালিয়ে দেন তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।
জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাকসুদ বিন জালাল প্লাবন বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। তথ্যাদি মিলিয়ে দেখেছি। অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা মিলেছে। ইতিমিধ্যে তাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।
এছাড়াও জেলা ছাত্রলীগের সমালোচিত এই নেতা এখন দায়িত্ব পালন করেন জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তরের সকল কাজ। ব্যক্তিগত সম্পর্কিকে প্রাধান্য দিয়ে সব সময় জেলা আওয়ামী লীগের তার ব্যক্তি সম্পর্কের বাইরে অন্য নেতাদের কাজগুলোও ঠিকমতো করেন না।
দ্রুত তাকে স্থায়ী বহিষ্কার করে জেলা ছাত্রলীগকে নির্লজ্জদের থেকে রক্ষা করবেন বলে দাবী করেছেন অন্যান্য নেতাকর্মীরা।”


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button