মুক্তমত ও সম্পাদকীয়

বৈশ্বিক করোনা : মিশেল ফুকোর বয়ানে নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের সংস্কৃতি এবং রাষ্ট্রের স্বরূপ!

  • 339
    Shares

দুঃখের কবি,যৌবনের কবি,মানবিকতার কবি, দ্রোহের কবি,নিষিদ্ধ সম্পাদকীয়’র প্রিয় কবি হেলাল হাফিজ তাঁর “যে জলে আগুন জলে” কবিতার বইয়ে দুই লাইনের এক কবিতা রচনা করেছিলেন।

নিউট্রন বোমা বোঝ
মানুষ বোঝ না!

আমার চিন্তার মানসপটে এর গভীরতা এবং ব্যপ্তি সুদূরপ্রসারী। লাইন দু’টির মর্মার্থ আমাকে দারুনভাবে ভাবায় এবং একই সাথে ব্যথিত করে। ব্যথিত এই অর্থে এতে গভীর দুঃখবোধের বহিঃপ্রকাশ এবং আজকের দিনের বাস্তবতার চিত্র সুনিপুনভাবে ফুটে ওঠেছে! অবশ্য কবিতাটি আশির দশকে লিখা কিন্তু এখনও কবিতার প্রতিটি শব্দ আগুনের স্ফুলিঙ্গের মতো করে প্রাসঙ্গিক হয়ে আমাদের সামনে হাজির হয়।তার কারন মানুষ চাঁদকে জয় করেছে, এভারেস্টকে জয় করেছে, বিজ্ঞানকে অগ্রসর করেছে, তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহার শিখেছে, দূর থেকে লক্ষ্যবস্তু ঠিক রেখে মানুষ মারার হাতিয়ার বানানো শিখেছে কিন্তু মানুষ কি মানুষকে শিখতে পেরেছে? মানুষ হয়ে মানুষের গল্প মলাটবদ্ধ করতে পেরেছে? বোধকরি অনেকাংশেই নয়! বরং বিশ্বে যুদ্ধ, হিংসা, বিদ্ধেষ,সহিংসতা,উগ্রতা এবং পারমানবিক বোমার ঝনঝনানির শব্দ ক্রমান্বয়ে বাড়ছে! অস্থির করে তুলছে এই বিশ্বভ্রম্মান্ডকে!

যখন আন্তর্জাতিক রাজনীতি,বিশ্বায়ন,বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট, অর্থনীতি, রাষ্ট্র ও তার চরিত্র নিয়ে ক্ষুদ্র জ্ঞানের আলোকে সমাচার করি তখন ভাবনার দেয়ালগুলি ছিদ্র হয়ে চোখের সামনে এরকম খোলাসাভাবে উঁকি দেয়! তদুপরি ফেলতে হয় এক দীর্ঘ নিঃশ্বাস! করোনার এই ভয়াল সময়েও নতুন করে এই ভাবনার উদ্রেক ঘটছে! তা স্বাভাবিকও বটে।আমরা মূলত করোনা ভাইরাসের প্রকৃতি,ধরন, নিয়ন্ত্রন এবং প্রতিকার নিয়ে কথা বলছি। বর্তমান সময়টায় এই আলোচনা করা জরুরী বটে! কিন্তু করোনার নেপথ্যের কারন,প্রভাব ও করোনা পরবর্তী সময়ের বাস্তবতা এবং একই সাথে রাষ্ট্র ও বিশ্বের সামগ্রিক রূপ তুলে ধরা বোধকরি এই আলোচনা করাটাও গুরুত্বপূর্ণ।

সম্প্রতি লেখক, সাহিত্যিক ও প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আনিসুল হক “ইশতেহার ২০২০” নামক এক কবিতা লিখেছেন! মিডিয়াপারা বেশ আলোচনা হয়েছে এটিকে নিয়ে! শিমুল মোস্তাফা থেকে সৈয়দ হাসান ইমাম সহ নয়জন কবিতাটি আবৃত্তি করেছেন। জনাব আনিসুল হক কবিতায় বলছেন, ট্রাম্প আপনি কি জানেন হাজার হাজার আমেরিকার মানুষের মৃত্যুর জন্য আপনি দায়ী? পৃথিবীজুড়ে লক্ষ মায়ের সন্তান হারানোর আর্তনাদের জন্য আপনি দায়ী? এখন মা তার সন্তানকে বুকে টেনে নিতে পারছেন না,সন্তান তার বৃদ্ধ বাবাকে স্পর্শ করতে পারছেন না।

তিনি ট্রাম্পের পাশাপাশি পুতিন,কিম,মুন,লি,আবে, বরিস,ইমরান খান,মোদি, জেফ বেজোস,আম্বানিসহ জাতিসংঘ,আইএমএফ ও ওয়ার্ল্ড ব্যাংক কে এর জন্য দায়ী করেছেন। কারন তারা গড়ে তুলেছেন বর্তমান সময়ের এই নিষ্ঠুর এবং এক অসুস্থ পৃথিবী। যেখানে তাদের তৈরী করা মারণাস্ত্র দিয়ে পৃথিবীকে ছয়বার ধ্বংস করা যায় কিন্তু করোনার এই সংকটকালীন সময়ে একটি মানুষের জীবনও রক্ষা করতে পারছেনা। কবিতাটি নিয়ে বাংলাদেশের জনসাধারণ বিভিন্ন প্রশ্ন তুলেছেন, অনেক ক্ষেত্রে প্রাসঙ্গিকও তাদের প্রশ্নগুলি। তবে বৈশ্বিকভাবে করোনার সম্মুখীন কেনো হতে হলো আমাদের সেই জায়গা থেকে জনাব আনিসুল হকের প্রতি পূর্ণরূপে আমার সমর্থন রয়েছে।

করোনার বর্তমান বাস্তবতা বিশ্বজুড়ে মুক্তবাজার অর্থনীতি এবং বিশ্বায়নের গতানুগতিক ধারনার মধ্যে যে এক ধরনের শুভঙ্করের ফাঁকি রয়েছে তা আমাদের সমানে ক্যাপিটালিস্ট সোসাইটির দুর্বোধ্য দেয়াল ভেদ করে দৃশ্যত হয়েছে!থমকে গিয়েছে বিশ্বের বানিজ্য ও অর্থনীতি। ব্রিটিশ সাময়িকী ‘দ্য ইকোনোমিস্ট’ রিপোর্ট করেছেন, হিথ্রো বিমান বন্দর দিয়ে যাত্রী চলাচলের পরিমাণ আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৯৭ শতাংশ কমেছে। চলতি মাসে প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল দিয়ে কনটেইনারবাহী যেসব জাহাজ চলাচল করার কথা ছিল তার ২১ শতাংশই বাতিল হয়ে গিয়েছে! সীমান্ত কেন্দ্রিক যে এক ধরনের রাজনীতি, সতর্কতা এবং নজরদারির সংস্কৃতি তা চলমান থাকবে বলে আপাতদৃষ্টে মনে হচ্ছে।

যদিও এই সীমান্ত ও জাতিগর্বের দাপট প্রবলভাবে অবলোকন করেছি ২০১৬ সালে মিঃ ট্রাম্প নির্বাচনে
জয় লাভ করে প্রসিডেন্ট হিসেবে পদার্পণ করার পর। অভিবাসী আসা রোধ করার জন্য মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণ ও কঠোর আইন বলবৎ করতে চেয়েছে।কিন্তু সেই আইন এবং এরকম সীমান্তে শত দেয়াল কি বিশ্বব্যাপী করোনার সংক্রমণ ছড়ানোর ক্ষেত্রে কোনোরকম ভূমিকা রাখতে পারছে? পারছেনা।কিন্তু এই জাতি গর্বের অন্তরালে বিশ্ব অসহায়ের মতো দেখেছে ছোট্ট শিশু আইলান কুর্দি ও ভ্যালেরিয়ার নিথর দেহ সাগরের কিনারায় পরে থাকতে! আজকের পৃথিবীর এই বিভৎস চেহারার কারন এই উগ্র জাতীয়তাবাদ।

বিশ্বায়নের যুগে আমরা সীমান্তের ছকঁ আঁকি! বিশ্বায়নের পুরো ধারনাটাই বানিজ্য কেন্দ্রিক! সেখানে মানুষের স্বাস্থ্যের দাম নেই আছে শুধু মুনাফার গালগল্প। অথচ করোনা আমাদের শিক্ষা দিয়ে গেলো বিশ্বায়নের এই যুগে উগান্ডারও যদি কেউ আক্রান্ত হয় তাহলে আমি আমেরিকার লস এঞ্জেলেসে বসে থাকলেও সংক্রমন ঘটার সম্ভাবনা থাকে। তাই করোনার মতো মহামারী রোধে বৈশ্বিক ভাবে সকল শ্রেনীর মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা জরুরী। ফলে সবক্ষেত্রে সীমান্তকেন্দ্রীক রাজনীতি অমূলকই বটে!কাজেই বিশ্বায়নের যুগে বৈশ্বিক এক শিক্ষা ও স্বাস্থ্য কাঠামো গড়ে ওঠা জরুরী যেখানে মুনাফা নয় মানুষের নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্য গুরুত্ব পায়!আধুনিক রাষ্ট্রের স্বরূপটাই এরকম। জাতীয়তাবাদের নামে যে উগ্রতা প্রকাশ পাচ্ছে তা মানবিক বিশ্বের জন্য অশনিসংকেত!

আধুনিক রাষ্ট্র ব্যবস্থা বর্তমানে আমাদের সামনে দৃশ্যত। রাষ্ট্র মূলত ক্ষমতা চর্চার প্রতিষ্ঠান।রাষ্ট্র সকল কেন্দ্রীভূত ক্ষমতার আধার। কিন্তু এই ধারনা থেকে রাষ্ট্র কিছুটা বের হয়ে এসেছে। রাষ্ট্র এই ক্ষেত্রে কিছুটা সংকুচিত হয়েছে কারন আমরা এমন এক নিউলিবারেল ইকোনোতে বসবাস করছি যেখানে পুঁজি কিংবা বাজার সবকিছুকে নিয়ন্ত্রন করছে! এমনকি জাতিসংঘ, বিশ্বব্যাংক,আইএমএফ এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বহুজাতিক কোম্পানির নিয়ন্ত্রণাধীন হয়ে পড়েছে।প্রধান ভূমিকা রাখছে বহুজাতিক কর্পোরেশানগুলি।বিশ্ব স্বাস্থ্যখাত আজ কোম্পানিগুলির হাতে জিম্মি। রাষ্ট্রগুলির এখানেই তাদের অসহায়ত্ব প্রকাশ পায়। আমেরিকায় পুরোপুরি স্বাস্থ্য সেবা পাওয়ার জন্য পর্যায়ক্রমে তিনটি ইন্সুরেন্স করতে হয়। প্রায় রাষ্ট্রেই এরকমটি লক্ষণীয়! যার কারনে কোম্পানি এবং কর্পোরেশনগুলির কাছে মানুষ ও মানুষের স্বাস্থ্য গুরুত্ব পায়না, গুরুত্ব পায় লাভ,মুনাফা এবং টাকা। ফলে বিশ্বে নড়বড়ে হয়ে পড়েছে স্বাস্থ্যব্যবস্থা।

রাষ্ট্রগুলির সীমান্ত কেন্দ্রিক নজরদারি এক নতুন ‘প্যারাডাইম’ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে যদিও এই প্রাক্টিস করোনার পূর্ববর্তী সময়েও ছিল। কিন্তু পাশ্চাত্যের আধুনিক রাষ্ট্রগুলি যে নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে পূর্ব থেকেই এক প্যারাডাইম দাঁড় করিয়েছিল তা আজকের করোনাকালীন সময়ে আরও প্রকটভাবে দেখা যাচ্ছে!বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে নজরদারি চলমান রাখছে। আসলে রাষ্ট্রের নজরদারি ও নিযন্ত্রনের সংস্কৃতির গভীরতা ও বৈশিষ্ট্য বুঝতে হলে রাষ্ট্রের উদ্ভব,ধর্ম, চরিত্র সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকা জরুরী। রাষ্ট্রের উৎপত্তির ইতিহাস সম্পর্ক জানতে হলে আমাদের দ্বারস্থ হতে হবে সমাজিক চুক্তি মতবাদের (social contract theory) ওপর যা রাষ্ট্রবিজ্ঞানে সর্বজনবিদিত। এই মতবাদের প্রধান তিন তাত্ত্বিকের মধ্যে রয়েছেন ইংরেজ দার্শনিক টমাস হবস ও জন লক এবং ফরাসি দার্শনিক রুসো।

হবস তারঁ লেভিয়াথান( Leviathan) বইয়ে সর্বপ্রথম রাষ্ট্রের ব্যাখার নেপথ্যে সামাজিক চুক্তি মতবাদটি পেশ করেন।যদিও রাষ্ট্র সম্পর্কে তিনজনের কিঞ্চিৎ ভিন্নতা রয়েছে তবে অনেকাংশে মিল খোঁজে পাওয়া যায়।একসময় সমাজে বসবাস করতে গিয়ে মানুষ নিজেদের বিভিন্ন স্বার্থের বেড়াজালের দ্বন্ধে লিপ্ত হতো এবং নানান জটিলতার সম্মুখীন হয় যার ফলশ্রুতিতে নিয়ন্ত্রণ ও সামাজিক শৃঙ্খলের জন্য একজনকে কর্তৃত্ব দেয়া হয় এবং সমাজের মানুষের ও শাসক শ্রেনীর সাথে একধরনের চুক্তি সম্পাদিত হয়, আর সেখান থেকেই রাষ্ট্রের উৎপত্তি হয়! অর্থ্যাৎ সমাজের উপরিকাঠামো হিসেবে রাষ্ট্র গঠিত হয়।

উপরোক্ত আলোচনা করোনার মূল কারন অনুসন্ধ্যান করার নেপথ্যে প্রাসঙ্গিক! করোনার আজকের দিনের বাস্তবতায় পুঁজিবাদ,জাতীয়তাবাদ,ভোগবাদ,বিশ্বায়ন ও মুক্তবাজার অর্থনীতি, পরিবেশ বিনষ্টকারী ধ্বংসাত্মক উনয়ন এবং নিউ লিভারেল ইকনোমির আলোচনার পাশাপাশি নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের সংস্কৃতির আলোচনা করাটা প্রাসঙ্গিক এবং অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। যদিও আধুনিক রাষ্ট্র ব্যবস্থায় এই সকল উপাদানগুলি একই সূত্রে গাঁথা। একটিকে বুঝা ছাড়া অন্যটি বোধোদয় হওয়া কঠিন কিংবা বুঝার গভীরতায় স্বচ্ছতা আসবেনা। কাজেই রাষ্ট্রের নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের সংস্কৃতির আলোচনার আগে রাষ্ট্রের স্বরুপ বোঝাটা জরুরী।

করোনার এই সময়টায় রাষ্ট্রের প্রতিটি নাগরিক এক ধরনের রিস্কের মধ্যে জীবন অতিবাহিত করছে।নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের অধীন হয়ে গিয়েছে প্রত্যেকের স্বাভাবিক জীবন। কর্তৃত্ববাদী রাষ্ট্রগুলি সুবর্ণ সুযোগ পেয়েছে করোনার এই সময়টাকে যথাযথ ব্যবহার করে ক্ষমতাকে নিরঙ্কুশ করার।অনেক রাষ্ট্র কোয়ারেন্টাইন, আইসোলেশন এবং লকডাউনের মতো জবরদস্তি মাধ্যমগুলিকে কঠোরভাবে ব্যবহার করে মানুষের চলাফেরা, মানবিক অধিকার এবং স্বাধিনতাকে খর্ব করে কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে চাচ্ছে। রাষ্ট্র ঠিক করে দিচ্ছে আপনি সাবান কিংবা স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধৌচ্ছেন কিনা এমনকি বর্তমান রাষ্ট্র নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের নাম করে মানুষের দেহেও এক প্রকার অস্ত্রপাচার চালাচ্ছে!টেকনোলোজি, বিগ ডাটা এবং স্যোসাল মিডিয়ার মাধ্যমে রাষ্ট্র তার নাগরিকদের নজরদারির মধ্যে রাখছে এবং আমরাও প্রতিনিয়ত নিয়ন্ত্রিত হচ্ছি এসকল মাধ্যম ধারা।

রাষ্ট্র যে নাগরিকদের নিরাপত্তার নাম করে নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে মানুষকে স্রেফ খাচাঁয় বন্দি পাখিতে পর্যবসিত করে ফেলে এই সম্পর্কে অনেক আগেই উত্তর আধুনিকতাবাদের ফরাসি দার্শনিক ও তাত্ত্বিক মিশেল ফুকো আলোকপাত করে গিয়েছেন। ফুকো তাঁর discipline and puunish, the history of sexulity,madness and civilization, the birth of clinic, the archeoloy of knowledge, the birth of biopolitics ইত্যাদি বইয়ে তিনি মূলত রাষ্ট্র, ক্ষমতা ও ক্ষমতা কাঠামো, কারাগারের ইতিহাস, যৌনতার ইতিহাস, পাগলাগারদের ইতিহাস এবং জৈব রাজনীতির বিভিন্ন দিক পর্যালোচনা করেছেন। বিশেষ করে ফুকো তারঁ বিখ্যাত বই Discipline and Punish: The birth of the prison এ ক্ষমতা তত্ত্বের আলোকে ক্ষমতার তিনটি ফ্যাক্টরের কথা উল্লেখ করেছেন। সার্বভৌমত্ব( sovereignty), শৃঙ্খলা ( Discipline) এবং প্রশাসনিকতা ( governmentality)। ক্ষমতার সার্বভৌমত্বের প্রদর্শনের ক্ষেত্রে রাষ্ট্র শাস্তি প্রদান করতো। পরে রাষ্ট্র আইন প্রয়োগের মাধ্যমে নাগরিকের জীবন আইনের মাধ্যমে এক আবদ্ধ ফ্রেমে বন্দি করে ফেলে। শৃঙ্খলার জালে আটকে ফেলে মানুষকে।

ফুকো মনে করেন আধুনিক রাষ্ট্রের মানুষ আইনের নিশ্চিদ্র বেড়ার ভেতরে জন্মগ্রহন করেন।মানুষ রাষ্ট্রের রীতি-নীতি কিংবা আইনকানুন ভঙ্গ করছে কিনা তা নিশ্চিত করার জন্য সার্বক্ষণিকভাবে রাষ্ট্র নজরদারি জারি রাখে। ফুকো এই ব্যবস্থাটিকে কারাগার কিংবা পাগলাগারদে ব্যবহার করা প্যানঅপটিমিজমের সাথে তুলনা করেছেন। প্রাচীনকালে কারাগারে বন্দিদের চলাফেরা নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের জন্য ৩৬০ ডিগ্রি কোণে আলোকস্তম্ভ ( প্যানঅপটিমিজম) চারদিকে ঘুরানো হতো। বর্তমান সময়ে রাষ্ট্রের এই নজরদারি ও নিয়ন্ত্রনের কাজটি করছে স্কুল,কলেজ,বিশ্ববিদ্যালয়, হাসপাতাল, বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান,টেকনোলজি এবং নিউ স্যোসাল মিডিয়া।

পুঁজিবাদী এই সমাজব্যবস্থায় নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের নিরিখে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ফুকোর তৃতীয় ফ্যাক্টর গভর্নমেন্টালিটি। গভর্নমেন্টালিটির বহিঃপ্রকাশ হলো আজকের বায়াপলিটিক্স (Biopolitics) তথা জৈবরাজনীতি। ফরাসী বিপ্লবের পূর্বে সামন্তবাদ সমাজব্যবস্থায় (Feudalism society) রাজনীতির কেন্দ্র ছিল জমি। জমিদাররা জমিকে ইস্যু করে প্রজাদের ওপর নানান ধরনরে অন্যায়, অত্যাচার, শোষণ চালাতো। কিন্তু যখন স্বাধীনতা, সাম্য ও মৈত্রীর স্লোগানকে সামনে রেখে ফরাসি বিপ্লবের মধ্য দিয়ে সামন্তবাদ সমাজব্যবস্থা থেকে পুঁজিবাদী সমাজব্যবস্থার উত্থাণ হলো তখন রাষ্ট্রের রাজনীতির ভাবধারায় আমূল পরিবর্তন এসে পরে। জমি থেকে জীবন হয়ে যায় গুরুত্বপূর্ণ। কারন কারখানাগুলিকে টিকিয়ে রাখার জন্য রাষ্ট্রের ম্যান পাওয়ার গুরত্ব হয়ে পরে। যেভাবেই হোক জীবনকে টিকিয়ে রাখতে হবে। ফলে জীবন যে রাষ্ট্র ও রাজনীতির গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে যাওয়া ফুকো এর নাম দিয়েছেন বায়োপলিটিক্স।ফুকো তাঁর ‘the birth of biopolitics’বইয়ে এর বিস্তর বর্ণনা করেছেন।

তাত্ত্বিক দিক থেকে দেখলে মনে হবে বায়োপলিটিক্সে রাষ্ট্র আসলে নাগরিকদের জীবনের নিরাপত্তা দিচ্ছে। জীবনমানকে উন্নয়ন করার প্রয়াস চলমান রাখছে কিন্তু এতে বড় ধরনের এক শুভঙ্করের ফাঁকি রয়েছে। আদত রাষ্ট্র আসলে নিরাপত্তার নাম করে মানুষের জীবনকে শৃঙ্খলিত ও অনুশাসনের ছকে আবদ্ধ করে রাষ্ট্রের প্রতি আনুগত্য স্বীকার করতে বাধ্য করে! জীবন হয়ে ওঠে রাষ্ট্রের ক্ষমতা প্রয়োগের হাতিয়ার! জন্ম- মৃত্যু নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে রাষ্ট্র আসলে মানুষের জীবনের ওপর কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করে। করোনার এই সময়েও ফুকোর এই ধারনা প্রাসঙ্গিক হয়ে সামনে এসেছে। মানুষের অসুস্থ শরীর মানেই সন্দেহজনক ! এমনকি করোনাকালীন এবং এর পরবর্তী সময়েও মানুষের চলাফেরার বিষয়গুলোকেও রাজনীতির বিষয়বস্তু হিসেবে রাষ্ট্রগুলি পর্যবসিত করে ফেলতে পারে।

ফুকোর পথ ধরে করোনার এই সময়ে ইতালির দার্শনিক জর্জিও আগামবেনও তার লেখায় রাষ্ট্রগুলি যে করোনাকে ইস্যু করে নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের সংস্কৃতির চর্চা করছে,তিনি তার ব্যাখ্যা দাঁড় করিয়েছেন। কবি ও চিন্তক জনাব ফরহাদ মজহার এর দারুন বিশ্লেষণ করেছেন।শুধু ফরহাদ মজহার বললে ভুল হবে! আলী রীয়াজ স্যার,আলতাফ পারভেজ স্যার,জনাব পারভেজ আলম সহ বুদ্ধিবৃত্তিক পাড়ায় এই বয়ানকে সামনে নিয়ে এসেছেন। আসলে অনেকেই যারা কল্যাণমূলক রাষ্ট্র প্রতিষ্টা করতে চায় তারা প্রত্যেকেই একই দাবি ভিন্ন আঙ্গিকে বলছেন। জনাব ফরহাদ মজহার বলছেন যে আগামবেন দেখিয়েছেন আধুনিক রাষ্ট্র মানুষকে স্রেফ জীব বা জন্তুতে পর্যবসিত করছে। তিনি এই জীবনকে বেয়ার লাইফ( bare life) বা ন্যাংটো জীবন বলে সম্ভোধন করেছেন।তিনি বলছেন রাষ্ট্র সবচেয়ে বড় কুকর্ম যেটি করে সেটি হচ্ছে ব্যতিক্রমি পরিস্থিতি বা জরুরী অবস্থা ( state of exception) জারি করে মানুষকে জীবের মতো করে খোয়ারে আটকে রেখে মানুষের জীবনকে এক জৈব বস্তুতে পরিণত করে । এই জরুরী অবস্থার নাম করে রাষ্ট্র এমন সব আইন নিয়ে সামনে হাজির হয় যেটাতে নাগরিকের সকল সামাজিক, নাগরিক এবং রাজনৈতিক অধিকার ক্ষুন্ন হয়। যেটি করোনার এই মহামারীর সময়েও প্রদর্শিত হচ্ছে। কিন্তু ভয়ঙ্কর বিষয় হচ্ছে এটি আমাদের কাছে স্বাভাবিক বিষয় হিসেবে পরিগণিত হচ্ছে! মানুষ হিসেবে আমাদের সকল স্বাধীনতা বিকিয়ে দিচ্ছি রাষ্ট্রের কেন্দ্রীভূত ক্ষমতার কাছে। করোনা মহামারীতে এই সংস্কৃতির অনুশীলন আরও বেশি প্রকট হয়ে ওঠেছে এবং একনায়কতান্ত্রিক সরকারগুলি আরও ক্ষমতা হস্তগত করছে।

করোনা এই পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে কিছু কিছু দেশ আরও মারাত্মক পদক্ষেপের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। হাঙ্গেরি সরকার সংসদে একটি বিল প্রেরণ করেছে যা প্রধানমন্ত্রীকে জরুরি অবস্থা’র অজুহাতে স্বৈরাচারী ক্ষমতা প্রদান করবে। শুধুমাত্র নির্বাহী আদেশ দিয়ে পরিচালনা করতে পারবে।চিলিতে জোরজবরদস্তি টহল চলছে।ইসরায়েলেও একই রকম পরিবর্তন ঘটছে। নির্বাচনে হেরেও প্রধানমন্ত্রীত্বে বহাল থাকা বেনজামিন নেতানিয়াহু জরুরি আদেশ জারি করেছেন। সন্ত্রাসীদের নজরদারি করার জন্য যে কৌশলগুলি অনুসরন করতো তা ব্যবহৃত হবে করোনাকালীন সময়ে কোয়ারেন্টাইনে থাকা লোকদের অবস্থান নির্নয়ে।চীনে জনসাধারণের স্মার্টফোনগুলোকে নিবিড় তত্ত্বাবধানের আওতায় আনা হয় এবং নাগরিকদের চেহারা-শনাক্তকরণ ক্যামেরা ব্যবহার করে, জনসাধারণকে তাদের দৈহিক তাপমাত্রা ও স্বাস্থ্যের অবস্থা চেক করতে বাধ্য করা হয় । তদুপরি ফিলিপাইন,ফ্রান্স, ব্রিটেন, যুক্তরাষ্ট্র, সিঙ্গাপুর, তাইওয়ান এবং দক্ষিন কোরিয়ায় তা পরিলক্ষিত হয়েছে। যদিও এই সংস্কৃতি আগে থেকেই ছিল কিন্তু করোনাকে কেন্দ্র করে আরও প্রকট হয়েছে এবং কিছু কিছু রাষ্ট্র কর্তৃত্বের আসনে পাকাপোক্তভাবে আসীন হচ্ছেন যা আগামী পৃথিবীর গনতান্ত্রিক ব্যবস্থা বহাল রাখার ক্ষেত্রে হুমকিস্বরূপ হবে।

অনেকেই প্রশ্ন তুলতে পারে মহামারীকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য এই পদক্ষেপ তো নেয়া জরুরী। এই প্রশ্ন তোলা স্বাভাবিক কিন্তু এই প্রশ্নের নৈতিক ভিত্তি দুর্বল।প্রথমত, আধুনি রাষ্ট্রগুলি মহামারী সহ এরকম আরও ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি তৈরীর জন্য দায়ী। নিজেরাই সমস্যা তৈরী করে নিজেরাই সমস্যার সমাধানের নাম করে রাষ্ট্রের নাগরিকদের স্বাধীনতা, অধিকার, প্রাইভেসি নষ্ট করতে পারেনা। এর নৈতিক কোনো ভিত্তি থাকেনা তাহলে। দ্বিতীয়ত, রাষ্ট্রগুলি শুধু করোনার এই সময়টায় এর অনুশীলন করছেনা। এর আগেও নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের সংস্কৃতি ছিল এবং করোনা পরবর্তী সময়ে আরও ভয়াবহ হবে বলে মনে করছি।

রাষ্ট্রগুলি কিন্তু শুধু করোনাকে ইস্যু করে এই কাজ করছেনা, রাষ্ট্র তার সহজাত বৈশিষ্ট্য থেকেই এই সংস্কৃতি ধারন ও এর অনুশীলন করছে। ভয়ের জায়গাটা ঠিক এখানেই!কাজেই মানুষের জীবন যে সময়ের পরিক্রমায় খাঁচায় বন্দি জীবে পর্যবসিত হচ্ছে এবং দেহ ও শরীরের যে কোনো প্রাইভেসি থাকছেনা তার জন্য করোনার এই সময়টায় নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের যে সংস্কৃতি উত্থিত হচ্ছে তা রোধ করার জন্য কিংবা রাষ্ট্রের নিরঙ্কুস ক্ষমতা সংকুচিত করার জন্য এই আলোচনা বহাল রাখা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করি। তা না হলে বিশ্বব্যাপী কর্তৃত্ববাদী রাষ্ট্রের উত্থান ক্রমান্বয়ে বাড়তে থাকবে যেখানে মানুষের বেঁচে থাকা ছাড়া আর কোনো মূল্য থাকবেনা।

লেখক,
মোঃ শাহজালাল
শিক্ষার্থী, চতুর্থ বর্ষ
ক্রিমিনোলজি এন্ড পুলিশ সায়েন্স বিভাগ
মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়


  • 339
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button