খুলনায় স্বাভাবিকের চেয়ে ৬ ফুট উচ্চতায় নদীর পানি, আশ্রয়কেন্দ্রে ছুটছে মানুষ

0
107

বাংলাদেশের দিকে ধেয়ে আসছে সুপার সাইক্লোন ‘আম্পান’। আজ বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে ঘূর্ণিঝড় আম্পান আঘাত হানতে পারে খুলনার উপকূলে।ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে খুলনাঞ্চলের নদ-নদীতে জোয়ারে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। মোংলার পশুর নদীতে স্বাভাবিকের চেয়ে ৫/৬ ফুট পানির উচ্চতা বেড়েছে।

মঙ্গলবার রাত থেকেই বৃষ্টি শুরু হয়েছে। বুধবার সকাল থেকে ঝড়ো বাতাস বইছে ও মাঝে মাঝে ভারী বৃষ্টিপাতও হচ্ছে।এ কারণে উপকূলের উপজেলা কয়রা, দাকোপ ও পাইকগাছায় জনমনে আতঙ্ক বেড়েছে। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নিম্নাঞ্চলের বিশেষ করে বেড়িবাঁধ এলাকার মানুষ মানুষ ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।এদিকে বেলা বাড়ার সাথে সাথে আশ্রয় কেন্দ্রে ছুটছেন মানুষ। আশ্রয়কেন্দ্রে আসা অধিকাংশই বৃদ্ধ ও শিশু।

দাকোপ উপজেলার কৈলাশগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য জিএম ফয়সাল আলম বলেন, রামনগর সরকারি জগন্নাথ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাইক্লোন শেল্টারে এলাকাবাসী আশ্রয় নিয়েছেন এবং নিচ্ছেন। সাইক্লোন শেল্টার কমিটি খিচুড়ির ব্যবস্থা করেছে।দাকোপের পানখালি এলাকার বাসিন্দা হাবিবুর রহমান বলেন, আমাদের এখানে বাঁধে ভাঙন লেগেছে। যতই নদীতে পানি বাড়ছে তত বাঁধ ভাঙছে। আমরা বড় বিপদে আছি।

খুলনার কয়রা উপজেলার দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থার সভাপতি মো. আবু সাঈদ খান বলেন, কয়রার দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের আংটিহারা এলাকায় বুধবার দুপুরের জোয়ারের পানিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সড়ক ছাপিয়ে ভেতরে পানি ঢুকছে। স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থার সদস্যরা স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে তাৎক্ষণিকভাবে বেড়িবাঁধ মেরামতের কাজ করছে।

কয়রা উপজেলার কয়রা সদর, উত্তর বেদকাশী এবং দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের কয়েক জায়গা দিয়ে বেড়িবাঁধ উপচে পানি প্রবেশ করেছে। স্থানীয় মানুষ বেড়িবাঁধের উপর মাটি দিয়ে পানি আটকানোর চেষ্টা করেন।খুলনা আবহাওয়া অফিসের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ মো. আমিরুল আজাদ বলেন, সুপার সাইক্লোন আম্পান বুধবার সন্ধ্যা নাগাদ সুন্দরবনের নিকট দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশ উপকূল অতিক্রম করতে পারে।