অর্থনীতি

লাগামহীন স্বর্ণের মূল্য, এর শেষ কোথায় ?

  • 13
    Shares

হাবিব ফারুকী: করোনার জন্য বিশ্ব বাজারে স্বর্ণ স্মরণাতীতকালের সব মূল্যকে ছাড়িয়েছে গেছে । এখন বিনিয়োগকারীরা সোনা মজুদ করছেন।বিশেষজ্ঞরা আগামীতে এর দাম আরো বাড়বে বলে মনে করেন।

অনেকেই স্বর্ণকে বিপদের বন্ধু বলে থাকেন।যদিও এর মূল্য যে কোন সময় অস্বাভাবিকভাবে নেমে যেতে পারে। সম্পদ রক্ষা না করে এটি বিপুল লোকসানের কারণ হতে পারে।

শেয়ারবাজারে ধস,সঞ্চয় স্কিম, বন্ড,এবং আমানতে সুদের হার কমে আসলে বিনিয়োগকারীদের স্বর্ণের প্রতি আকর্ষণ বেড়ে যায়।বিগত একশ বছরে এর দাম ছয়শত শতাংশ বেড়েছে।যা চাট্টিখানি কথা নয়। কলকারখানা ও অন্যান্য শিল্প এর ব্যবহার কিন্তু সীমিত। সর্বত্র এর প্রয়োজন একেবারে নেই বললেই চলে।

স্বর্ণের মূল্য বৃদ্ধি বা হ্রাস সাধারণত মানুষের আবেগ দিয়ে পরিচালিত ।যখন অর্থনৈতিক আর রাজনৈতিক সংকট দেখা দেয় তখন এর দাম বৃদ্ধি পায়। আর সংকট শেষে এর মূল্য কমে যায়। উনিশ শ উনাশি(1979) সালে ইরানে বিপ্লব আর রাশিয়া আফগানিস্তান দখলের পর বিশ্ববাজারে সোনার দাম বেড়ে যায়। কিন্তু দুই বছর পর এর দাম অর্ধেক হয়ে পড়ে।যা পরবর্তী এক যুগেও আর বাড়েনি।এরপর দুই হাজার বার সালে (2012) ইউরোপীয় ইউনিয়নে মুদ্রা সংকটে প্রতি আউন্স সোনার দাম আটারো শ (1800) ডলারের উপর চলে যায়।মজার ব্যাপার হলো ইউরোপের অচলাবস্থা শেষে এটি চল্লিশ শতাংশ মূল্য হারিয়ে ফেলে। তখন যারা উচ্চমূল্যে স্বর্ণ কিনেছিলেন তারা পরবর্তীতে অনেক টাকা লোকসান দেন।

তারপরও স্বর্ণের কদর বিন্দু মাত্র কমেনি বরং বেড়েছে। এই মহামারিতে সরকার আর কেন্দ্রীয় ব্যাংক গুলো সোনা দিয়ে ডলার কিনছেন।এই কঠিন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখছেন।একথা ঠিক যে স্বর্ণ সহজে উত্তোলন করা যায় না । এর সরবারহ ও সীমিত। টাকার মত এটি ছাপানো যায় না। যদিও এটি কোন সুদ দেয় না তবুও নিম্নমুখী সুদের বন্ড আর আমানতের চেয়ে অনেকটা লাভজনক।

পরিশেষে বলতে হয় স্বর্ণের দাম দ্রুত কমে যেতে পারে, যদি করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কৃত হয়।আর মহামারি থেকে পরিত্রাণের খুশিতে পৃথিবীর মানুষ বিজয় উত্সবে মেতে উঠবে।


  • 13
    Shares

Related Articles