দেশজুড়ে

করোনা জয়ী মায়ের আকুতি, স্যার এখন কি আমার ছেলেরে ধরতে পারমু


মোঃ ওমর ফারুক, শরীয়তপুর প্রতিনিধি: শরীয়তপুরের করোনা জয়ী মায়ের আকুতি, স্যার এখন কি আমার ছেলেরে ধরতে পারমু। গত ২৩ এপ্রিল ভেদরগঞ্জ উপজেলার মহিষার ইউনিয়নের মনুয়া গ্রামের বাসিন্দা দুলাল বেপারীর স্ত্রী রোকেয়া বেগম (৩৮) ও ছেলে সাকিব (১৭) এর দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছিল। পরে গত ৭ মে এবং ১৪ মে দুই দফা পরীক্ষায় তাদের দেহে করোনার ফলাফল নেগেটিভ আসে। দীর্ঘ ১মাস ৬দিন ঘরবন্দি থাকার পর করোনা জয় করে মুক্ত হয় মা এবং ছেলে।

তাদের দুই দফা করোনা নেগিটিভ আসার পর ফলমূল ও পুষ্টি সামগ্রী নিয়ে তাদের বাড়িতে হাজির হন ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর আল নাসীফ। এ সময় সুস্থ হয়ে ওঠা মা ও ছেলেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। তখন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে উপস্থিত ছিলেন ভেদরগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালের ডা. মাসুম আবিদ।

ফুলেল শুভেচ্ছাকালে সেখানে এক অাবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। চোখের সামনে থেকেও পরিবার পরিজন থেকে দূরে থাকা রোকেয়া বেগম তখন ব্যাকুল ছিলেন নিজের বড় ছেলেকে জড়িয়ে ধরতে, স্বজনদের কাছে যেতে।

তখন উপস্থিত নির্বাহী কর্মকর্তা ও ডাক্তারের কাছে তিনি জিজ্ঞাসা করেন, স্যার,আমি আমার ছেলেরে ধরতে পারমু ? “হ্যা অবশ্যই” এমন উত্তর দিতেই তখন নিজের ছেলেকে জড়িয়ে ধরে কেঁদে ফলেন রোকেয়া বেগম। তখন জল গড়িয়ে পড়ছিল তার দু চোখের পাপড়ি বেয়ে।

এ ঘটনায় আবেগী হয়ে পড়েন নিজের মাকে হারোনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানভীর আল নাসীফ।যিনি নিজের কান্না চেপে যান বুকে গহিনে। পরে ঘটনাটি নিয়ে তার ফেসবুক এক আবেগী ভাষায় স্ট্যাটাসে লিখেন তিনি। স্ট্যাটাসটি নিচে তুলে ধরা হলোঃ “চোখভরা পানি ও ক্লান্তি নিয়ে একজন মায়ের প্রশ্ন আজ আমাদের কাছে-স্যার,আমি আমার ছেলেরে ধরতে পারমু?

আমার সহযোদ্ধা ভেদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমও মাসুদ আবিদ যখন বললেন যে ,অবশ্যই পারবেন ধরতে। মায়ের চোখের জল গড়িয়ে পড়ছে আর সন্তানকে ছুয়ে দেখছে। মা না থাকার বেদনাও তীব্রভাবে আপ্লুত করলোও আমাকে যখন একজন মায়ের এই আকুলতা দেখলাম।

সনাক্ত হওয়ার ১ মাস ০৬ দিন পরে ছয়গাও ইউনিয়নের মনুয়া গ্রামে করোনা ভাইরাস থেকে আরোগ্য লাভ করায় উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানানো হয়।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button