শীর্ষ নিউজ

জাতিসংঘ, ওআইসি ও ইইউকে বাংলাদেশের চিঠি


নভেল করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চাকরি হারিয়েছেন হাজার হাজার প্রবাসী। সৌদি আরবসহ বিভিন্ন দেশ থেকে বিতাড়িত হয়েছেন এমন প্রবাসীর সংখ্যাও কম নয়। চাকরিচ্যুত ও বিতাড়িত এসব প্রবাসী বাংলাদেশীদের সহযোগিতা ও পুনর্বাসনের জন্য রেসপন্স ফান্ড বা সাড়াদান তহবিল গঠনে জাতিসংঘ, ইসলামিক দেশগুলোর জোট ওআইসি, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ (ইইউ) বিশ্ব সংস্থাগুলোকে চিঠি পাঠিয়েছে বাংলাদেশ। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, নভেল করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পরিপ্রেক্ষিতে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশের সরকার সেখানে অবস্থান করা প্রবাসীদের নিজ নিজ দেশে পাঠাচ্ছে। আবার অনেকে ওই দেশগুলোতে অবৈধভাবে অবস্থান করছিলেন। তারাও সাধারণ ক্ষমার আওতায় দেশে ফিরছেন। বাংলাদেশের শ্রমবাজার হিসেবে পরিচিত সব দেশই বাংলাদেশী শ্রমিকদের ফেরত পাঠিয়ে দিচ্ছে। এরই মধ্যে সাড়ে তিন হাজারের বেশি প্রবাসী ফিরে এসেছেন। আর আগামী কয়েক সপ্তাহে আরো ২৯ হাজার শ্রমিককে ফেরত পাঠানো হবে।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর পাশাপাশি ইউরোপও সেখান থেকে বাংলাদেশীদের ফেরত পাঠানোর কথা আগে থেকেই বলছে। ফলে সামনের দিনগুলোয় কয়েক লাখ প্রবাসী বাংলাদেশীর ফিরে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। রিয়াদে বাংলাদেশ মিশন এরই মধ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছে যে শুধু সৌদি আরব থেকেই ফিরে আসবে ৫ থেকে ১০ হাজার প্রবাসী শ্রমিক। এ অবস্থায় এসব বাংলাদেশীর জীবিকা সচল রাখতে সরকার থেকে কিছু ক্ষেত্রে ঋণ প্রদানের ঘোষণা দিয়েছে। বিশালসংখ্যক এসব বাংলাদেশীর সহায়তা ও পুনর্বাসনে জাতিসংঘসহ ওআইসি ও ইইউর শরণাপন্ন হয়েছে বাংলাদেশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, আমরা বিভিন্ন সংস্থার কাছে চিঠি লিখেছি। ওআইসির সঙ্গে আমরা টেলিকনফারেন্স করেছিলাম। তাদের আমরা বলেছি, তোমরা একটা রেসপন্স ফান্ড বা সাড়াদান তহবিল তৈরি করো। শুধু ওআইসিই নয়, আমরা ইইউকেও বলেছি। মোটামুটি কেউ এতে না করেনি। এখন এর মডেল তৈরি করতে হবে। আমরা জাতিসংঘকেও জানিয়েছি। আমরা তাদের বলেছি, যারা চাকরিচ্যুত হচ্ছে তারা সবাই মানুষ। সুতরাং তাদের হঠাৎ করে সাগরে ভাসিয়ে দেয়া ঠিক হবে না।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার যে দেশগুলো থেকেই বাংলাদেশীদের ফেরত পাঠানো হোক না কেন, সব দেশকে আরো মানবিক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ বিভিন্ন দেশের সরকারকে জানিয়েছে, এসব প্রবাসী আপনাদের উন্নয়ন অংশীদার। এসব দেশের উন্নয়নের জন্য এ মানুষগুলো দিনের পর দিন খেটেছে। বাংলাদেশ এ দেশগুলো থেকে দুটি বিষয়ের নিশ্চয়তা চেয়েছে। প্রথমটি হলো, কোনো প্রবাসী যাতে এ পরিস্থিতিতে না খেয়ে মারা না যায়।

আর দ্বিতীয় বিষয়টি হচ্ছে, প্রবাসী বাংলাদেশীদের যদি চাকরি থেকে বের করে দেয়া হয়, তবে অন্তত পক্ষে ছয় মাসের জন্য যেন তাদের ধারণ করে। হঠাৎ করে তাদের বের করে দিলে তারা ঝামেলায় পড়বে। বাংলাদেশের এ অনুরোধে কোনো কোনো রাষ্ট্র ইতিবাচকভাবে নিয়ে সাড়া দিয়েছে। কয়েকটি রাষ্ট্র আশ্বস্ত করেছে, প্রবাসীদের স্বাস্থ্যসেবা ও খাবারের জন্য বাংলাদেশের চিন্তা করতে হবে না। সেই সঙ্গে এসব বাংলাদেশী যাতে রেমিট্যান্স দেশে প্রেরণ করতে পারে, সেজন্য তাদের অর্থ দিয়ে দেয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছে দেশগুলো।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, আগামী কয়েকদিনে মধ্যপ্রাচ্য থেকে ২৯ হাজারের মতো বাংলাদেশী ফিরে আসবেন। তারা বর্তমানে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোতে বন্দি অবস্থায় রয়েছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে শুধু বাংলাদেশ প্রবাসীদের ফিরিয়ে আনছে তা নয়, ভারত ও পাকিস্তানকেও তাদের শ্রমিকদের ফিরিয়ে নিতে হচ্ছে।

শুধু সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে ভারতের প্রায় ১ লাখ ৯৭ হাজার কর্মীকে ফেরত নেয়ার কর্মসূচি শুরু হয়েছে। বর্তমানে মধ্যপ্রাচ্যের এমন কোনো দেশ নেই, যেখানে বাংলাদেশী শ্রমিকরা সংকটময় পরিস্থিতিতে নেই। এসব বাংলাদেশীকে অনেক দেশ নিজ খরচে পাঠিয়ে দিচ্ছে। আবার অনেককে আমাদেরই নিয়ে আসতে হবে। আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) বা অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে বিনা পয়সায় তাদের আনার চেষ্টা চলছে।বণিক বার্তা


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

আরও পড়ুন
Close
Back to top button