দেশজুড়ে

শ্রীনগরে বোংগায় ধান মারাই করে বাড়তি আয়

  • 36
    Shares

আরিফুল ইসলাম শ্যামল: দেশব্যাপী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে এর প্রভাবে হাজারও কৃষক কৃষি শ্রমিকের অভাবে অনেকটাই হতাশায় পরেছিলেন। স্থানীয় প্রশাসন, সংশ্লিষ্ট কৃষি অফিস ও জনপ্রতিনিধিদের সার্বিক সহযোগিতায় করোনা মোকাবেলার পাশাপাশি পাকা ধান নিয়ে দুশ্চিন্তায় পরা কৃষকদের দুর্ভোগ লাঘবে সুন্দরভাবে সোনালী ফসল ঘরে তুলতে বিভিন্ন প্রদক্ষেপ নেওয়ায় এখানকার কৃষকদের মনে সস্তি ফিরে আসে। সরকারের পক্ষ থেকে উন্নত প্রযুক্তি সম্পর্ণ একাধিক কম্বাইন্ড হারবেস্টার, রিপারসহ হাজার হাজার কৃষি শ্রমিকের ব্যবস্থা করা হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় বিখ্যাত আড়িয়লবিলসহ উপজেলার বিভিন্ন বিলের ধান কাটা থেকে শুরু করে গোলায় ধান তুলতে এখন কৃষকরা প্রচুর ব্যস্ত সময় পার করছেন। জমি থেকে পাকা ধান কৃষাণরা কাটার পরে মারাইয়ের কাজে বোংগা মেশিন অন্যতম। এতে করে ধানের মৌসুমে বোংগার চাহিদা বেশী থাকায় স্থানীয় অনেকেই নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে অন্য কৃষকের ধান মারাই করেও বাড়তি আয়ের উৎস তৈরী করছেন। এমনি দৃশ্য চোখে পরেছে জেলার শ্রীনগর উপজেলা জুড়ে। বোংগায় স্বাচ্ছন্দে ধান মারাইয়ের কাজ করছেন। বোংগার মালিকরাও কয়েক দিনের ব্যবধানে প্রায় লাখ টাকা আয় করতে পারছেন।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, আড়িয়লবিল এলাকায় ধান কাটা শুরু হলেও উপজেলার অন্যান্য ছোট ছোট বিল ও চকের ধান ইতিমধ্যেই কাটা শুরু হয়েছে। লক্ষ্য করা গেছে, বিল এলাকাসহ সব খানেই ধান মারাইয়ে বোংগায় ধান মারাই করা হচ্ছে। চকের টান জমি, লোকালয়ের মাঠে কিংবা রাস্তার পাশে ত্রিপাল বিছিয়ে কৃষকরা ধান মারাইয়ের কাজ সারছেন। অনেক কৃষকরই নিজস্ব বোংগা মেশিন নেই। তাই দ্রুত ধান মারাইয়ে অন্যের বোংগা ভাড়ায় আনছেন। কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে প্রায় শত মন ধান মারাই ও হালকা ঝাড়ের কাজও সারছেন। এতে করে কৃষকরা শান্তিতে তাদের কাজ করতে পারছেন।

অন্যদিকে অল্প পুঞ্জি খাটিয়ে বোংগা মালিকও আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। শ্যালো ইঞ্জিন চালিত দ্রুত ধান মারাইয়ের কাজে ব্যবহারকৃত বোংগা নামক মেশিনটি এখন কৃষকদের কাছে প্রিয় ও পরিচিত বস্তু। স্থানীয় কয়েকজন বোংগার মালিকের সাথে কথা বলে জানা যায়, বছরের এই সময়ে ধান মারাইয়ে বোংগার কোনও বিকল্প নেই। এখানকার প্রায় ৯০ ভাগ কৃষকই বোংগার ওপর নির্ভরশীল। এ সময় বোংগা পরিচানাকারী শ্রমিক মোশারফ নামে এক ব্যক্তি জানান, কয়েকদিন যাবত বোংগায় কাজ করছেন তিনি। মালিক তাকে দৈনিক খাবারসহ এই (প্রায় এক মাস) সিজনে ১৫ হাজার টাকা বেতন দেবেন।

তিনি বলেন, যদি কাটা ধান প্রস্তুত থাকে তাহলে ননস্টপ কাজ করে ১টি বোংগায় প্রতিদিন প্রায় ৩০০ মন ধান মারাই করা যায়। এলাকায় ঘুরে ঘুরে কাজ করতে গেলে কিছুটা সময় অপচয় হয়, তারপরেও কমপক্ষে ১০০ মন ধান মারাই কর সম্ভব। বিল পাড়ের এক বোংগার মালিক আলম হোসেন জানান, তিনি গত বছর একটি বোংগা খরিদ করেছেন ৪৫ হাজার টাকায়। এটা তিনি ধান মারাইয়ের কাজে ব্যবহার করছেন। বোংগা চালানোর জন্য বেতন ভুক্ত একজন শ্রমিক রেখেছেন। তার বোংগাটি নিজের চাহিদা মিটিয়েও অন্য কৃষকের ধান মারাইয়ের জন্য কাজ করছে। প্রতি মন ধান মারাই করে দেয়ার জন্য ২ কেজি করে ধান পান তিনি। সে হিসাব অনুযায়ী অনেকে নগদ অর্থও দিয়ে থাকেন।

প্রতি ১০০ মন ধান মারাই করতে ইঞ্জিনের জ্বালানী বাবদ ৫-৬ লিটার ডিজেলের লাগে। সিজন শেষে সব খরচের হিসাব বাদ দিয়ে লাখ টাকা আয় হবে জানান তিনি। মাহবুব, তমিজউদ্দিনসহ কয়েকজন কৃষক বলেন, উন্নত প্রযুক্তির কম্বাইন্ড হারভেস্টার থাকলেও সব খানে এই মেশিনে কাজ করানো সম্ভব হচ্ছেনা। এখাকার বেশীর ভাগ কৃষকই জমি থেকে শ্রমিক দিয়ে ধান কেটে আনেন। পরে বোংগা দিয়ে ধান মারাই করা হচ্ছে। এক সময় তো এতো প্রযুক্তি ছিলনা। তখন সব কাজ হাতেই করা হত। এখনতো কৃষি কাজে আধুনিক মেশিনের অভাব নেই। বোংগাও আধুনিকতায় কোনও অংশে কম নয়। এই অঞ্চলে গত ১ যুগ ধরে ধান মারাইয়ের কাজে বোংগার ওপর নির্ভরশীল স্থানীয়র সব কৃষক।

শ্রীনগর উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবছর বোরো ধানের আবাদ করা হয়েছে ১০ হাজার হেক্টর জমিতে। এরমধ্যে আড়িয়লবিলের শ্রীনগর অংশেই ধান চাষ হয়েছে ৫ হাজার হেক্টর জমিতে। গত ১৩ মে এখানে কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয়ের আনুষ্ঠানিক ঘোষনা দেওয়া হয়েছে। উপজেলা থেকে ১৪০৯ মেট্রিক টন ধান ও ২০১৫ মেট্রিক টন চাল সংগ্রহ করবে সরকার। প্রতি কেজি ধান ক্রয় করা হবে ২৬ টাকা ও চাল ক্রয় করা হবে ৩৬ টাকা দরে। একজন কৃষকের কাছ থেকে ১২০ মন থেকে ৩ টন ধান সংগ্রহ করা হবে। উপজেলা এলএসডি খাদ্য গুদামে কার্ডধারী ৫২৯ জন কৃষকের নামের তালিকা আপাদত দেয়া হয়েছে।


  • 36
    Shares

Related Articles