রাত ১১:০৫ মঙ্গলবার ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

মির্জাপুরে আজগানা ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে সভাপতি মোক্তার, সম্পাদক শহিদুল | নাটোরে “টেকসই উন্নয়ন বাস্তবায়ন ও সমন্বয়” বিষয়ে সভা অনুষ্ঠিত | রাজধানীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ইন্দোনেশিয়ার নাগরিকের মৃত্যু | টানা চারবার ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিলেন ক্যানসারজয়ী নারী | বান্দরবানে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে এপেক্স ক্লাব | বান্দরবানে যে বিদ্যালয়ে এ ভর্তির আগে সাঁতার শিখতে হয়! | ঝালকাঠিতে নদী ভাঙ্গনের কবলে দোকনঘর, নদীগর্ভে ফেরি | আবারও একসঙ্গে রণবীর-ক্যাটরিনা | লভ্যাংশ ঘোষণার পর দুই কোম্পানির দরপতন | আট বিভাগীয় শহরে হবে পূর্ণাঙ্গ ক্যান্সার চিকিৎসাকেন্দ্র |

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম এর মৃত্যুবার্ষিকী আজ

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ২৭, ২০১৯ , ৫:২৩ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : সাহিত্য ও সংস্কৃতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

তানজিদ শুভ্রঃ বিংশ শতাব্দীর অন্যতম অগ্রণী বাঙালি কবি, ঔপন্যাসিক, সাংবাদিক, সম্পাদক, সুরকার, গীতিকার, নাট্যকার, দার্শনিক, রাজনীতিবিদ এবং সৈনিক যিনি বাংলা কাব্যে অগ্রগামী ভূমিকা রাখার পাশাপাশি প্রগতিশীল প্রণোদনার জন্য সর্বাধিক পরিচিত। ব্রিটিশ ভারতীয় হয়ে জন্ম নিয়ে দেশভাগের পর থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত ছিলেন ভারতীয় আর মৃত্যুর পূর্বে ছিলেন বাংলাদেশী। তিনি কিন্তু আর কেউ নয়; তিনি বাংলাদেশের জাতীয় কবি।

পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশ – দুই বাংলাতেই তাঁর কবিতা ও গান সমসমাদৃত। তাঁর কবিতায় বিদ্রোহী দৃষ্টিভঙ্গির কারণে তাঁকে বিদ্রোহী কবি নামে আখ্যায়িত করা হয়েছে। অগ্নিবীণা হাতে তাঁর প্রবেশ, ধূমকেতুর মতো তাঁর প্রকাশ। যেমন লেখাতে বিদ্রোহী, তেমনই জীবনে। তিনি পরাধীনতার শিকল ভেঙে স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখিয়েছেন জাতিকে। আজ সেই বিদ্রোহী কবির মৃত্যুবার্ষিকী। বাংলাদেশ সরকারের আমন্ত্রণে ১৯৭২ সালে তিনি সপরিবারে ঢাকা আসেন। এসময় তাঁকে বাংলাদেশের জাতীয়তা প্রদান করা হয়। ৭৭ বছর বয়সে কবি কাজী নজরুল ইসলাম ২৯ আগস্ট ১৯৭৬ ঢাকায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। “মসজিদেরই পাশে আমায় কবর দিয়ো ভাই / যেন গোরের থেকে মুয়াজ্জিনের আযান শুনতে পাই” – কবির এই ব্যক্তি ইচ্ছা অনুযায়ী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মসজিদ প্রাঙ্গনেই সমাধিত করা হয় এই মহান পুরুষকে।

১৩০৬ বঙ্গাব্দের ১১ জ্যৈষ্ঠ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার আসানসোল মহকুমার জামুরিয়া ব্লকের চুরুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন কাজী নজরুল ইসলাম। পিতামহ কাজী আমিন উল্লাহর পুত্র কাজী ফকির আহমদের দ্বিতীয় স্ত্রী জাহেদা খাতুনের ষষ্ঠ সন্তান তিনি

এক দরিদ্র মুসলিম পরিবারে জন্ম নেওয়া নজরুলের প্রাথমিক শিক্ষা ছিল ধর্মীয়। স্থানীয় এক মসজিদে মুয়াযযিন হিসেবেও কাজ করেছিলেন। কৈশোরে বিভিন্ন থিয়েটার দলের সাথে কাজ করতে যেয়ে তিনি কবিতা, নাটক এবং সাহিত্য সম্বন্ধে সম্যক জ্ঞান লাভ করেন। কাজ করেছেন রুটির দোকানেও। ভারতীয় সেনাবাহিনীতে কিছুদিন কাজ করার পর কলকাতায় ফিরে সাংবাদিকতাকে পেশা হিসেবে বেছে নেন তিনি। ব্রিটিশ রাজের বিরুদ্ধে প্রত্যক্ষ সংগ্রামে অবতীর্ণ হয়ে প্রকাশ করেন বিদ্রোহী এবং ভাঙার গানের মতো কবিতা; ধূমকেতুর মতো সাময়িকী।

ছোটগল্প, উপন্যাস, নাটক লিখলেও তিনি মূলত কবি হিসেবেই বেশি পরিচিত। বাংলা কাব্যে তিনি এক নতুন ধারার জন্ম দেন। এটি হল ইসলামী সঙ্গীত তথা গজল, এর পাশাপাশি তিনি অনেক উৎকৃষ্ট শ্যামা সংগীত ও হিন্দু ভক্তিগীতিও রচনা করেন। নজরুল প্রায় ৩০০০ গান রচনা এবং অধিকাংশে সুরারোপ করেছেন যেগুলো এখন নজরুল সঙ্গীত বা “নজরুল গীতি” নামে পরিচিত এবং বিশেষ জনপ্রিয়।

মধ্যবয়সে তিনি পিক্‌স ডিজিজে আক্রান্ত হওয়ায় আমৃত্যু তাকে সাহিত্যকর্ম থেকে বিচ্ছিন্ন থাকতে হয়। একই সাথে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন।

১৯৪৫ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক বাংলা সাহিত্যের সর্বোচ্চ পুরস্কার জগত্তারিণী স্বর্ণপদক নজরুলকে প্রদান করা হয়। ১৯৬০ সালে ভারতের তৃতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা পদ্মভূষণে ভূষিত করা হয়।

বাংলাদেশ কাজী নজরুল ইসলামকে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জাতীয় কবির মর্যাদা দেওয়া হয়। তাঁর রচিত “চল্‌ চল্‌ চল্‌, ঊর্ধগগনে বাজে মাদল” বাংলাদেশের রণসংগীত হিসাবে গৃহীত। বাংলা সাহিত্য এবং সংস্কৃতিতে তাঁর বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৭৪ খ্রিস্টাব্দের ৯ ডিসেম্বর তারিখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তাঁকে সম্মানসূচক ডি.লিট উপাধিতে ভূষিত করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সমাবর্তনে তাঁকে এই উপাধি প্রদান করা হয়। ১৯৭৬ খ্রিস্টাব্দের জানুয়ারি মাসে বাংলাদেশ সরকার কবিকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব প্রদান করে। একই বছরের ২১ ফেব্রুয়ারিতে তাঁকে একুশে পদকে ভূষিত করা হয়।

Comments

comments