দুপুর ১২:৫৫ বুধবার ২০শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে লালমনিরহাটে জেলা পরিষদে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড. মতিয়ার রহমান

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ৬, ২০১৯ , ৪:২৬ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিশেষ প্রতিবেদন
পোস্টটি শেয়ার করুন

আসাদুল ইসলাম সবুজ, লালমনিরহাটঃ লালমনিরহাট জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড. মতিয়ার রহমান, পেশায় একজন আইনজীবী ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক। ছাত্রজীবনেই তিনি রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। তার জীবনের বেশির ভাগ সময় রাজনীতিতে কাটছে। তিনি ছোটকাল থেকে বঙ্গবন্ধুকে ভালবেসে তার আদর্শ হৃদয়ে লালন করেন। স্কুলের বাচ্চারা যখন খেলার মাঠে সময় দিতেন তখন তিনি বড়দের সাথে মিশে বঙ্গবন্ধুর কথা শোনার চেষ্ঠা করতেন। তিনি যখন শুনতেন তোমার আমার ঠিকানা, পদ্মা মেঘনা যমুনা, তুমি কে, আমি কে, বাঙালী-বাঙালী, বীর বাঙালী অস্ত্র ধরো, বাংলাদেশ স্বাধীন করো, জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু ঠিক সেই সময় থেকে তিনি বঙ্গবন্ধুর প্রেমে পড়ে যান। হৃদয়ে ধারন করেন বঙ্গবন্ধুকে। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড. মতিয়ার রহমান রাজনীতি করে জীবনে একাধিকবার কারাবাস করেন। বিএনপি জামাত জোট সরকারের কঠিন নির্যাতনের শিকার হন তিনি। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড. মতিয়ার রহমান লালমনিরহাটের একজন জনপ্রিয় নেতা। এনেতা প্রধানমন্ত্রীর মনোনীত প্রার্থী হয়ে তিনি সর্বপ্রথম ২০১১ সালের ২৬ ডিসেম্বর জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসেবে দ্বায়িত্ব গ্রহন করেন। তিনি প্রশাসক হিসেবে সততার সহিত দ্বায়িত্ব পালন করেন ৫ বছর। পরবর্তীতে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী হয়ে জনপ্রতিনিধিদের প্রত্যক্ষ ভোটে ২০১৭ সালে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

সৎ, নিষ্টাবান, নির্ভীক, যোগ্য, মেধাবী, পরিশ্রমী, জবাবদিহিতামুলক দক্ষ ব্যক্তি ও আ’লীগের দলীয় আদর্শের প্রতি অবিচল ত্যাগ, সংগ্রামী নেতা এবং জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, অ্যাড. মতিয়ার রহমান এর একান্ত সাক্ষাৎকারে আমাদের প্রতিনিধি’র বিভিন্ন প্রশ্নের খোলা মেলা উত্তর দেন।

প্রশ্ন : প্রথমে জেলা পরিষদ প্রশাসক পরবর্তীতে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হিসেবে কতটুকু সাফল্য অর্জন করেছেন ?
উত্তর : প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে প্রথমে জেলা পরিষদ প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ প্রদান করেন। আমি সাফল্যের কথা বলবো না, জনগন বিচার করবে আমি তাদের জন্য কতটুকু করতে পেরেছি। আমি বিগত ৫ বছরে নিরলস পরিশ্রম করে জনগনের কাছে জেলা পরিষদকে পরিচিত করিয়েছি। গায়ে গ্রামে শহরে বন্দরে সব জায়গায় জেলা পরিষদের উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে।

প্রশ্ন : জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে কি কি উন্নয়ন ও সেবা দেওয়া হয়েছে ?
উত্তর : লালমনিরহাটে এমন কোনো প্রতিষ্ঠান খুঁজে পাওয়া যাবে না যেখানে জেলা পরিষদের অনুদান দেওয়া হয়নি যেটা অন্যান্য জেলায় বিরল। লালমনিরহাট জেলা পরিষদ বাংলাদেশের সবচেয়ে কম আয়ের জেলা পরিষদ। আমাদের আগে ভালো কমিউনিটি সেন্টার ছিলো না, আমরা ইতিমধ্যে পাটগ্রামে ৫০০ আসন বিশিষ্ট কমিউনিটি সেন্টার করেছি, কালীগঞ্জে ৫০০আসন বিশিষ্ট কমিউনিটি সেন্টার করেছি এবং লালমনিরহাটের কমিউনিটি সেন্টারটি আধুনিকায়ন করেছি। প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার সবার জন্য শিক্ষা, সবার জন্য স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করা, আমরা তারই ধারাবাহিকতায় কাজ করছি। কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোকে সাহায্য করে থাকি, শিক্ষাক্ষেত্রে মিডডেমিলের জন্য গত অর্থবছরে ১৪৮টি স্কুলে ১০ লক্ষ টাকার উপকরন প্রদান করেছি। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর বিশজন সন্মানিত সদস্য, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, ইঞ্জিনিয়ার, কর্মচারীগণ এবং জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হিসেবে আমি আমাদের কাজগুলোকে মানুষের দোড়গোড়ায় পৌঁছে দিতে পেরেছি।

প্রশ্ন : জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে বিলুপ্ত ছিটমহলে উন্নয়ন ও জলবায়ুর পরির্বতনে ভুমিকা কেনছিল ?
উত্তর : ৪৭ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত যে ছিটমহলগুলো ভারতীয় ছিটমহল হিসেবে পরিচিত ছিলো আমাদের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সেগুলো উদ্ধার করেছেন, সেই জায়গাগুলোতে আমরা রাস্তা, ঘাট, মসজিদ, মন্দির নির্মান করেছি, টিউবওয়েল স্থাপন করেছি। প্রাকৃতিক পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা ও সৌন্দর্য বৃদ্ধিও জন্য বৃক্ষ রোপন করেছি। তারা যেনো শিক্ষার দিক থেকে পিছিয়ে না পড়ে এজন্য স্কুল স্থাপন করেছি। বিশ্ব জলবায়ুর যে বৈরি অবস্থা সে অবস্থা নিরসন কল্পে আমি চেয়ারম্যান হওয়ার পর দুই অর্থবছরে প্রায ৫ লক্ষ গাছের চারা রোপন করেছি। প্রধানমন্ত্রী প্রত্যেককে ৩ টি করে গাছের চারা রোপন করার কথা বলেছেন। আমরা এ বিষয়ে জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে মানুষকে উদ্ভুদ্ধ করছি। লালমনিরহাট জেলায় নতুন করে কিছু চা বাগান হচ্ছে। আমরা চা বাগানের শ্রমিকদের জন্য কিছু করার চেষ্ঠা করছি। কারন চা একটি সম্ভাবনাময় শিল্প সেটাকে এ জেলায় বিস্তৃত করতে চাই।

প্রশ্ন : জেলায় বেকারত্ব দূরীকরনে জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে কি করনীয় আছে ?
উত্তর : আমরা  বেকারত্ব দূরীকরনের লক্ষ্য নিয়ে সেলাই প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করেছি, কম্পিউটার প্রশিক্ষনের ব্যাবস্থা করেছি। যারা আউটসোর্সিং এর কাজ করছে তাদের কম্পিউটার প্রদান করেছি এবং আর্থিকভাবে সহযোগীতা করছি। আমরা বেকারত্ব দূরীকরনের জন্য বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করার পরিকল্পনা গ্রহন করেছি এবং এটি অব্যাহত থাকবে।

প্রশ্ন : লালমনিরহাট জেলা পরিষদের অবস্থান দেশের ৬৩তম জেলা পরিষদের আয় বৃদ্ধির জন্য আপনার পরিকল্পনা কি ?
উত্তর : আমরা আয়ের উৎস তৈরি করছি, মার্কেট নির্মান করছি। আমাদের যে জায়গা জমিগুলো বেদখল ছিলো তা আমরা উদ্ধার করছি। এভাবে আয়ের উৎস আমরা সৃষ্টি করে জেলা পরিষদের আয় বৃদ্ধির ধারাবাহিক চেষ্ঠা অব্যাহত রেখেছি।

প্রশ্ন : প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত গ্রাম হবে শহর জেলা পরিষদ কিভাবে সম্পৃক্ত হবে এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর কোনো নির্দেশনা আছে কি ?
উত্তর : অবশ্যই নির্দেশনা আছে। কারন সরকারের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান, স্থানীয় সরকারের আমরা প্রতিনিধি। আপনারা জানেন, বর্তমান গ্রামগুলোতে সুন্দর সুন্দর বিল্ডিং রাস্তাঘাট দেখা যায় এসব রাস্তাঘাট ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সুন্দর বিল্ডিংগুলোতে জেলা পরিষদের অবদান রয়েছে। জেলা জুড়ে বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মসজিদ, মন্দির, মাদ্রাসার অবকাঠামো নির্মানে আমরা বড় ধরনের সহায়ক ভুমিকা পালন করি।

Comments

comments