দেশজুড়ে

উলিপুরে ইভটিজিং এর শিকার স্কুল ছাত্রীর বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা

প্রতিবাদ করায় ছাত্রীর বাড়ি ঘরে হামলা

  • 145
    Shares

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) উপজেলা সংবাদদাতা: কুড়িগ্রামের উলিপুরে ইভটিজিং এর শিকার হয়ে এক স্কুল ছাত্রীর বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বখাটেরা ওই ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করায় তার পিতা প্রতিবাদ করলে ছাত্রীর বাড়িঘর ভাংচুরসহ একজনকে গুরুত্বর আহত করা হয়। ঘটনাটি ঘটেছে, সোমবার (০৩ আগষ্ট) নারিকেলবাড়ি তেলিপাড়া গ্রামে।

বর্তমানে ওই ছাত্রী ও আহত ব্যক্তি কুড়িগ্রাম সদর হাতপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে মঙ্গলবার (০৪ আগষ্ট) রাতে নামীয় ৯জন ও অজ্ঞাত নামা ৭-৮ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন।

ছাত্রীর পরিবার ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, পৌরসভার নারিকেলবাড়ি তেলিপাড়া গ্রামের দশম শ্রেণিতে পড়–য়া ওই ছাত্রীকে প্রতিবেশি জেয়াদুল হকের পুত্র শেখ ফরিদ (২১) ও আকবর আলীর পুত্র সেনা মিয়া (২০)সহ কয়েকজন বখাটে দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাঘাটে উত্ত্যক্ত করে কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। বিষয়টি ওই ছাত্রী তার পিতা-মাতাকে জানান। পরে ছাত্রীর পিতা বখাটেদের পিতা-মাতাকে জানিয়ে বিষয়টির প্রতিকার চান।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই বখাটেরা সংঘবদ্ধ হয়ে সোমবার (০৩ আগষ্ট) সকালে ছাত্রীর বাড়িতে হামলা চালিয়ে বাড়ি-ঘর ভাংচুরসহ ছাত্রীর পিতাকে মারধর করে। এ ঘটনা দেখে ওই ছাত্রী সকলের অজান্তে রাগে-ক্ষোভে ও ঘৃনায় ওই দিন দুপুরে বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। পরে স্বজনরা টের পেয়ে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। এদিকে বিষয়টি নিয়ে ছাত্রীর পিতা প্রতিবেশিদের কাছে অভিযোগ করলে ওই দিন বিকালে বখাটের দল ক্ষিপ্ত হয়ে পুর্ণরায় ছাত্রীর বাড়িতে হামলা চালায়।

এ সময় প্রতিবেশি আঃ হাকিমের পুত্র মিলন মিয়া (২৪)সহ কয়েকজন এ ঘটনার প্রতিবাদ করেন। এতে বখাটের দল ক্ষিপ্ত হয়ে ওই দিন রাতেই নারিকেলবাড়ি বকুলতলা বাজারে মিলন মিয়ার গালামালের দোকান থেকে ডেকে নিয়ে তাকে বেধরক মারপিট করে। এতে মিলন মিয়া গুরুত্বর আহত হলে এলাকাবাসী তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। পরে মিলন মিয়ার অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায় রাতেই কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে কুড়িগ্রাম সদর হাতপাতালে রেফার্ড করেন।

এদিকে ওই স্কুল ছাত্রীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তাকেও মঙ্গলবার (০৪ আগষ্ট) কুড়িগ্রাম সদর হাতপাতালে প্রেরণ করা হয়। এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে মঙ্গলবার রাতে নামীয় ৯জন ও অজ্ঞাত নামা ৭-৮ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ মাঈদুল ইসলাম জানান, বিষপান করা ওই ছাত্রীকে মঙ্গলবার সকালে কুড়িগ্রাম সদর হাতপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, মিলন মিয়া নামের এক যুবকের অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায় তাকেও প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে সোমবার রাতেই কুড়িগ্রাম সদর হাতপাতালে প্রেরণ করা হয়।

উলিপুর থানার ওসি (তদন্ত) রুহুল আমীন জানান, এ ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে। আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।


  • 145
    Shares

Related Articles