রাত ১২:২৭ শুক্রবার ১৫ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

সিরাজদিখানে কচু চাষে হাসি ফুটেছে শহিদুলের মুখে

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুন ৩, ২০১৯ , ১০:১৩ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : কৃষি
পোস্টটি শেয়ার করুন

জাহাঙ্গীর আলম চমক: সিরাজদিখানে কচু চাষ করে হাসি ফুটেছে শহিদুলের মুখে। ৬ গন্ডা জমিতে কচু চাষ করে খরচ বাদ দিয়ে প্রায় ১ লক্ষ ৯ হাজার টাকা বিক্রি হবে বলে আশা প্রকাশ করেছে। তবে দুই ধরনের বলÍাকচু ও নারিকেল কচু চাষ হলেও আমাদের এ উপজেলায় বলÍা কচুই চাষ হচ্ছে।

সরজমিনে সিরাজদিখান উপজেলার বাসাইল ইউনিয়নে গেলে কচু ক্ষেত পরিচর্যাকালীন সময় কথোপকথনের এক পর্যায়ে শহিদুল হাওলাদার(৪০) বলেন, আলু চাষ না করে আলোর মৌসুমেই অগ্রাহায়ন থেকে মাঘ মাস পর্যন্ত আমার ৬ গন্ডা জমিতে কফি,পারংশাক, ধনিয়াপাতা চাষের পাশাপাশি কচুর চারা বুনে দেই। তবে তিন মাসে কফি,পারংশাক, ধনিয়াপাতা বিক্রি করে ফেলি। এসময় সব মিলিয়ে খরচ হয় প্রায় ২৫ হাজার টাকা। তিন ফসল বিক্রি করেছে প্রায় ৪৫ হাজার টাকা। তবে খরচ বাদদিয়ে ২০ হাজার টাকা এখানেই লাভ হয়েছে। পরবর্তিতে শুধু কচুর চারাই রয়েগেল। জ্যৈষ্ঠ মাসে বিক্রির উপযোগী হয়ে উঠেছে। তিনি আরো বলেন, আমার ৬ গন্ডা জমিতে প্রায় ৫ হাজার কচুর চারা রয়েছে। প্রতি পিছ সর্ব নিম্ন ২০ টাকা করে বিক্রি করলেও ১ লক্ষ টাকা আসে। একি জমিতে প্রায় ১১ মন লতি হয়ে থাকে। ২০ টাকা কেজি হলেও ৮ হাজার ৮শ টাকা বিক্রি হয়। কচুতে তেমন কোন খরচ না হওয়ায় শহিদুলের পাশাপাশি এখন একই গ্রামের ফারুক হাওলাদার(৬০)সহ অনেকেই কচু চাষে আগ্রহ প্রকাশ করছে। তবে এবছর খরার কারনে কিছুটা খরচ বেশি হয়েছে। তবে সব মিলিয়ে কচু চাষে কোন খরচ নাই বল্লেই চলে।

জানাযায়, কচুর উপকারিতা রয়েছে অনেক। এর মধ্যে কচুর শাকে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন এ,বি,সি,ক্যালসিয়াম ও লৌহ। ভিটামিন এ জাতীয় খাদ্য রাতকানা প্রতিরোধ করে আর ভিটামিন সি শরীরের ক্ষত সারাতে সাহায্য করে। তাই শিশুদের ছোট বেলা থেকেই কচুর শাক খাওয়ানো উচিত।কচুতে আছে আয়রন,যা রক্ত শূন্যতা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

কচুতে আছে নানা রকমের ভিটামিন যা গর্ভবতী মা ও শিশুর জন্য রয়েছে উপকার। কচুর ডাঁটায় প্রচুর পরিমানে পানি থাকে, তাই গরমের সময় কচুর ডাঁটা রান্না করে খেলে শরীরের পানির ঘাটতি পূরণ হয়।কচুর শাকে পর্যাপ্ত পরিমানে আঁশ থাকে যা হজমে সহায়তা করাসহ আরো অনেক উপকারি তা রয়েছে।

Comments

comments