দেশজুড়ে

আখাউড়া বন্দর দিয়ে রফতানির উদ্দেশ্যে আসা গাড়ি গ্রহণ করতে সময় নিচ্ছে ভারত

  • 6
    Shares

আখাউড়া প্রতিনিধি: দেশের বৃহৎ ও দ্বিতীয় স্থল বন্দর হিসেবে পরিচিত ও রফতানি খাতে রাজস্ব আয়ে আখাউড়া স্থলবন্দরে করোনা প্রকোপে ভারতে রফতানির জন্য আসা বহু পণ্যবাহী গাড়ি বন্দরের বাহিরে রাস্তায় আটকা পড়েছে। তবে ব্যবসায়ী নেতা বলছেন ভারত বন্দর কর্তৃপক্ষ প্রতিদিন ৪০টির মতো ট্রাক গ্রহণ করছে। পণ্যবাহী প্রতিটি ট্রাক গ্রহণ করতে ৪০-৪৫ মিনিট সময় নেয়ায় রফতানিতে জটিলতা দেখা দিচ্ছে।

মঙ্গলবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, আখাউড়া বন্দর হয়ে ভারতে যাবার জন্য প্রতিদিন ৪০টির মতো ট্রাক ভারতে প্রবেশ করছে এতে করে ট্রাকের ড্রাইভার ও হেলপাররা পড়েছেন বিপাকে। কথা হলে বন্দরে আগত ট্রাকচালক বলেন, ভারতে পণ্যবাহী ট্রাক গ্রহণ করতে সময় নেয়ায় এখানে আমাদের অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে।

এবিষয়ে আখাউড়া স্থলবন্দরের আমদানি রপ্তানি কারক এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক শফিকুল ইসলাম বলেন, ভারত প্রতিদিন আমাদের কাছ থেকে ৪০টি ট্রাক গ্রহণ করছে আর প্রতিটি পণ্যবাহী ট্রাক গ্রহণ করতে সময় নিচ্ছে ৪০-৪৫ মিনিট কিন্তু প্রতিদিন বন্দরে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পণ্যবাহী ট্রাক আসছে ১৬০-১৭০টি তায় আমরা নতুন একটি আইন করেছি বন্দর থেকে প্রতিদিন ৪০টি গাড়ি বের হবে এবং ৪টি গাড়ি বন্দরে প্রবেশ করবে। পর্যায়ক্রমে সকল ব্যবসায়ীদের গাড়ি ভারতে প্রবেশ করবে।

এবিষয়ে কথা হলে আখাউড়া স্থলবন্দরের সহকারী পরিচালক (এডি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ভারতে রফতানির উদ্দেশ্যে আগত পণ্যবাহী ট্রাক গোলি গ্রহণ করতে সময় নিচ্ছে ভারত। প্রত্যেকটি ট্রাক গ্রহণের সময় প্রত্যেকটি ট্রাককে স্প্রে করা হচ্ছে এতে করে প্রতিটি ট্রাক কে স্প্রে করতে ৩০-৪০ মিনিট সময় নিচ্ছে ভারত এতে করে প্রতিদিন ৪০ টির মতো ট্রাক ভারতে প্রবেশ করতে পারছে। মূলত এ কারণেই আখাউড়া স্থল বন্দরে পণ্যবাহী ট্রাক আটকে আছে এবং বন্দরের অভ্যন্তরে জায়গা না থাকায় কিছু ট্রাক বাইরে রাস্তায় দাড়িয়ে আছে। তবে বন্দরে আসা ট্রাক চালক ও হেলপারদের জন্য বন্দরের অভ্যন্তরে তাবু টানিয়ে থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে এবং তাদের খাবারের জন্য বাইরে যেতে না দিয়ে স্থানীয় প্রসাশনের নির্দেশে পার্সেলের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

তবে আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাহমিনা আক্তার রেইনা বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে আখাউড়া স্থলবন্দরের ব্যবসা সিমিত করে দেয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী ব্যবসায়ীরা ১৪ জনের একটি তালিকার অনুলিপি দিয়েছে উপজেলা প্রশাসনকে। উপজেলা প্রশাসন কোন তালিকা করেনি। তালিকায় যদি কোন প্রকার অনিয়ম থাকে সেটি আমি খতিয়ে দেখবো।


  • 6
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button