ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে বিরাট প্রতিবাদ স্বপ্ন জয়ের পদ্মা সেতু

0
78

হাসিবুর রহমান মানিক: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থাকে সহজতর করার লক্ষ্যে দেশের বৃহৎ নদীসমূহের উপর দিয়ে সেতু নির্মাণ করার স্বপ্ন দেখেছিলেন। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে তার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৪ জুলাই ২০০১ তারিখে বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ এবং দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন এবং ২০১৫ সালে দেশের নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করার দূরদর্শী ও বলিষ্ঠ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

পদ্মা সেতু এখন দৃশ্যমান বাস্তবতা। স্বপ্ন ছিল, সেই লক্ষ্যে প্রতীজ্ঞা ছিল সেই কারণেই নিজ অর্থায়নে দৃশ্যমান হলো দেশের আলোচিত এই সেতুটি। স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মাণের পথ মোটেই মসৃণ ছিল না। একদিকে প্রমত্তা পদ্মার বুকে সেতু নির্মাণের জটিল প্রকৌশলগত চ্যালেঞ্জ, অন্যদিকে দেশের একটি স্বার্থান্বেষী মহলের ষড়যন্ত্র, বিশ্বব্যাংকের তথ্য-উপাত্তবিহীন ও অনুমাননির্ভর ভ্রান্ত অভিযোগ এবং তার ফলে অর্থায়নের অনিশ্চয়তা পদ্মা সেতু নির্মাণের পদক্ষেপে জগদ্দল পাথরের মতো প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছিল।

পদ্মা সেতু নিয়ে ‘আইরন লেডি’র ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিশ্বব্যাংক তথা বিশ্বের অপরাপর অনেক রাষ্ট্রের চোখ রাঙানি উপেক্ষা করে যখন তিনি দেশের অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘোষণা দেন, তখন অনেকেই বিষয়টির তীব্র বিরোধিতা করেন। পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে গিয়ে ‘বাংলাদেশ দেউলিয়া হয়ে যাবে’, এমন মন্তব্যও করেন অনেকে। অর্থনৈতিক ক্ষতির পাশাপাশি তৎকালীন সময় ‘সরকারের পতন’, ‘দুর্নীতি ঢাকার চেষ্টা’, ‘স্বেচ্ছাচারিতা’ এমন শব্দগুলো বারবার উচ্চারণ করেছেন অনেকেই। অনেক পত্রিকাও সে সময় শিরোনাম করেছে পদ্মা সেতুর দুর্নীতি নিয়ে। কিন্তু দিন শেষে তাদের সকল হুশিয়ারি ও সমালোচনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সফল বঙ্গবন্ধু কন্যা।

এখন মনে পড়ছে বিভিন্ন সমালোচনার কথা। ২০১৮ সালের ২ জানুয়ারি ছাত্রদলের এক সভায় বর্তমানে সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া তাচ্ছিল্য করে বলেছিলেন, ‘পদ্মা সেতু এই আওয়ামী লীগের আমলে হবে না। জোড়াতালি দিয়ে বানানো সেতুতে, কেউ উঠবেও না।’

রাজনৈতিক বিরোধিতার কারণে এমন সুর তোলার বিষয়টি বোধগম্য হলেও কিছু সুশীল কেনো সে সময় রাজনীতিবিদদের সুরে কথা বলেছিলো তা এক বিস্ময়। সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার পদ্মা সেতু নিয়ে বলেছিলেন, দুর্নীতি আমাদের কীভাবে পেছনে নিয়ে যাচ্ছে তার আরেকটি উদাহরণ এটি (পদ্মা সেতু)। জাতীয় উন্নয়নের ক্ষেত্রে এটি প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে।

বাংলাদেশ আকাশসম উচ্চতাকে জয় করবে, দুর্ভেদ্য,অনুপমেয় সব সূচককে স্পর্শ করবে এবং বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে আত্মমর্যাদাশীল এক বিস্ময়কর ও শক্তিশালী জাতি হিসেবে তার আত্মপ্রকাশ করবে। কারণ আমাদের আছে লৌহমানবী, অচিন্তনীয় মেধা, অবিচল আস্থা ও আত্মপ্রত্যয়ের দৃপ্ত প্রতীক শেখ হাসিনা। যিনি শপথে অসম্ভব ও দুরূহ কর্মকাণ্ডের সফল বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে গোটা বিশ্বকে চমকে দিয়েছে ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এই স্বপ্নের সোনার বাংলা!

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইস্পাত কঠিন মনোবল নিয়ে এদেশের সার্বিক উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির চাকাকে অধিকতর সচল রাখতে বিরামহীন কর্মযজ্ঞ সম্পন্ন করে চলেছেন। দেশ-দেশের মানুষের জন্য তিনি সম্ভাব্য সব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে যাচ্ছেন; সুনিপুণ দক্ষতার সঙ্গে একের পর এক মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন। পদ্মা সেতুর বাস্তবায়ন দেশের ইতিহাসে তেমনি এক অবিস্মরণীয় অর্জন, যা আমাদের সামগ্রিক অর্থনীতিকে অনেক উচ্চতায় নিয়ে যাবে।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু: ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে বিরাট প্রতিবাদ
পদ্মা সেতু এখন দৃশ্যমান বাস্তবতা। স্বপ্ন ছিল, সেই লক্ষ্যে প্রতীজ্ঞা ছিল সেই কারণেই নিজ অর্থায়নে দৃশ্যমান হলো দেশের আলোচিত এই সেতুটি। স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মাণের পথ মোটেই মসৃণ ছিল না। একদিকে প্রমত্তা পদ্মার বুকে সেতু নির্মাণের জটিল প্রকৌশলগত চ্যালেঞ্জ, অন্যদিকে দেশের একটি স্বার্থান্বেষী মহলের ষড়যন্ত্র, বিশ্বব্যাংকের তথ্য-উপাত্তবিহীন ও অনুমাননির্ভর ভ্রান্ত অভিযোগ এবং তার ফলে অর্থায়নের অনিশ্চয়তা পদ্মা সেতু নির্মাণের পদক্ষেপে জগদ্দল পাথরের মতো প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছিল।

পদ্মা সেতু এখন শুধু একটি সেতুই নয়, এটি আমাদের আবেগ, ভালোবাসা, অনন্য গৌরব, মর্যাদা আর অহঙ্কারের প্রতীক। বাঙালির স্বপ্ন পূরণের অনবদ্য উপাখ্যান। বাঙালি জাতিকে কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না জাতির পিতার সেই সাহসী উচ্চারণকে আবারো অসীম সাহসিকতায় প্রমাণ করে বিশ্ববাসীকে তাক লাগিয়ে দিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা।

পদ্মা সেতু হচ্ছে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার প্রত্যয় আর দৃঢ়তার প্রতিচ্ছবি। কতটা দেশপ্রেম, মাটি ও মানুষের জন্য ভালোবাসা থাকলে বিশ্বব্যাংককে ফিরিয়ে দিয়ে দেশি-বিদেশি ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে নিজস্ব অর্থায়নে এমন একটি বিরাট কর্মযজ্ঞ করা যায় তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরিষ্কার বক্তব্য, ‘দেশ স্বাধীন করেছি, পদ্মা সেতুর বিষয়ে মাথা নত করব না।’ তিনি কথা রেখেছেন। বাঙালি যে মাথা নত করার জাত নয়, শেখ হাসিনার সাহসী নেতৃত্বে আবারও তা টের পেল বিশ্ববাসী।

কোন পরিস্থিতিতে এমন সাহসী সিদ্ধান্ত নিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমন প্রশ্নের উত্তর এখন আর কারও অজানা নয়। বঙ্গবন্ধুকন্যা এ দেশের মানুষের সুখ-দুঃখ আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে থাকা ভালোবাসার নাম। তিনি জানেন, তিনি বোঝেন কীভাবে এ দেশের মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন হবে, কীভাবে এ দেশের মানুষের মুখে হাসি ফুটবে। তিনি জানেন একটি অঞ্চলকে গুরুত্বপূর্ণ জনপদে রূপান্তর করতে কী করণীয়। পিতার রক্তের যোগ্য উত্তরসূরি বলেই তিনি জানেন কীভাবে একটি জাতিকে আত্মমর্যাদায় শীর্ষে পৌঁছানো সম্ভব?

নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের অসার ও কল্পিত দুর্নীতির অভিযোগ আর চূড়ান্ত অসহযোগিতার সমুচিত জবাব মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিশ্বব্যাংকের ভ্রান্ত দুর্নীতির অভিযোগের জবাবে বাংলাদেশ বলে দেয়, এখন পর্যন্ত বিশ্বব্যাংকের কোনো অর্থ ছাড় হয়নি।

অন্য কেউ অর্থ দেয়নি। দুর্নীতি হবে কীভাবে? তখন বিশ্বব্যাংক বলেছিল দুর্নীতির গভীর ষড়যন্ত্র হয়েছে। তারা দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণ না করেই ২০১২ সালের ২৯ জুন বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করে। ২০১২ সালের জুলাইয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে তিনি সিদ্ধান্ত নেন যে, বাংলাদেশ সরকার নিজস্ব তহবিল দিয়ে পদ্মা সেতু নির্মাণ করবে। সেই সিদ্ধান্তের বাস্তবায়নের স্বপ্নের পদ্মা সেতু আজ মাইলফলক স্পর্শ করে সোনার বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে এগিয়ে এসেছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাত ধরে ।

বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা অর্জনের লক্ষ্য দুই দার্শনিক নীতিকে চিহ্নিত করেছেন। ‘ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত দেশ ও আত্মর্মযাদাশীল জাতি গঠনের স্বপ্ন’। জাতির পিতা এ দেশে মাত্র সাড়ে তিন বছরের জন্য রাষ্ট্র পরিচালনায় ছিলেন। এ ক্ষুদ্র সময়ে তিনি তার লক্ষ্য অর্জনের শুভযাত্রা শুরু করেছিলেন। দেশের সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক অগ্রহায়ণের কারণে ক্ষুধা পরাজিতের পথে।

আন্তর্জাতিক মঞ্চে যুক্তরাষ্ট্র এই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরই গ্লোবাল পাওয়ার হিসেবে আবর্ভিূত হয়। তার প্রায় একশো বছরের মতো সময়ের আগে সানফ্রানসিসকো পোতাশ্রয়ের মূলে গোল্ডেন গেইট ব্রিজ নির্মিত হয়। সেটি ছিল তাদের এক অর্জিত শৌর্যবীর্যের প্রতীক।

আজ ২৫ জুন ২০২২ বৈশ্বিক মঞ্চে ‘আমার টাকায় আমার সেতু/ বাংলাদেশের পদ্মা সেতু’ শুভ উদ্বোধনের মাধ্যমে আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে আমাদের নবযাত্রা শুরু হচ্ছে- মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি থাকছেন সেই নবযাত্রার হুইসেল ব্লোয়ার।

লেখক:-: সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র ডিএসসিসি |√| কাউন্সিলর ২৬ নম্বর ওয়ার্ড ডিএসসিসি |√| উপদেষ্টা বাংলা পোস্ট |√| ও সাধারণ সম্পাদক: ২৬ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ |√|