মুন্সিগঞ্জ

শ্রীনগরে পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক


আরিফুল ইসলাম শ্যামল: মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে সোনালী আঁশ হিসেবে পরিচিত পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন কৃষক। এক সময়ে প্রচুর পরিমানে পাটের চাষ করা হলেও এখন এ অ লের কৃষক পাট চাষ থেকে সরে দাড়াচ্ছেন। প্রায় একযুগ আগেও দুই ফসলী জমিগুলো আলু, সরিষা, গমসহ অন্যান্য রবিশস্যের আবাদের পরেই এসব জমিতে পাটের চাষ বীজ বপন করতের কৃষক। বর্ষায় নৌকা বোঝাই করে এসব শুকনো পাট নেওয়া স্থানীয় হাটবাজারে। এছাড়া এ অ লের অসংখ্য কৃষক পরিবারের রান্না-বান্নার জ্বালানী ও ঘরের বেড়া তৈরীর কাজে পাট খড়ির ব্যবহার হতো। বিভিন্ন কারণেই শ্রীনগরের কৃষকরা পাট চাষে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার আটপাড়া, বীরতারা, তন্তর, কুকুটিয়া ও বাড়ৈখালী এলাকায় কিছু জমিতে এখনও পাটের চাষাবাদ করা হচ্ছে। এরই মধ্যে বর্ষার পানিতে জমি সব ডুবেছে। প্রায় কোমর পানিতে নেমে পাট কাটতে দেখা গেছে শ্রমিকদের। এ মৌসুমে কোন কোন চকে কিছু পরিমাণ জমিতে পাটের দেখা মিললেও অসংখ্য জমি ফাঁকা থাকতে দেখা গেছে। আগের মত চকজুড়ে পাট ক্ষেতি না থাকায় এখানকার কৃষক ও শ্রমিকদের মধ্যে পাট নিয়ে তেমন কোন কর্ম ব্যস্ততা দেখা যায়নি। লক্ষ্য করা যায়, কাটা পাট আটি বেঁধে পঁচানোর জন্য পানিতে ডুবিয়ে রাখা হচ্ছে। ক’দিন পরেই পাটখড়ি থেকে আঁশ আলাদা করা হবে।

স্থানীয় কৃষকরা জানায়, বিভিন্ন কারণেই পাট চাষ থেকে সরে আসছেন। কারণ হিসেবে তারা বলেন, আবহাওয়া জলবায়ুর পরিবর্তণ, অতিখরা ও অসময়ে ঝড়বৃষ্টি, বর্ষার পানি আসা যাওয়ার ধারাবাহিকতা না থাকা, এ চাষে ব্যাপক খাটা খাটোনী শেষে পাটের কাঙ্খিত মূল্য না পাওয়া ইত্যাদি কারণেই পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন। এ বছর উৎপাদীত প্রতিমণ পাটের (মান অনুযায়ী) ৩ থেকে ৪ হাজার টাকায় বিক্রির স্বপ্ন দেখছেন জানান তারা।

শ্রীনগর উপজেলা কৃষি অফিসার শান্তনা রানী জানান, এ বছর উপজেলায় ১৮০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের পাট চাষ করা হয়েছে। পাট চাষে ১০টি প্রদর্শনী রয়েছে। পাট অধিদপ্তর পাটের মূল্য নির্ধারণ করে থাকেন।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button