সিরাজদিখানে মানছে না কেউ সামাজিক দূরত্ব

0
39

জাহাঙ্গীর আলম চমক: করোনা দুর্যোগের কারনে মানুষ আজ ঘরে বন্দি। ঘরের বাইরে গেলে পরতে হচ্ছে মাস্ক ও পি.পি.ই। কিন্তু মুন্সীগঞ্জে সিরাজদিখান উপজেলায় অনেকেই তা মানছে না। উপজেলার বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখা যায় অনেকের মাস্ক থাকলেও তা পরেনি। কেউ সামাজিক দুরত্বও মানছে না। প্রশাষন ও জেনে হাল ছেড়ে দিয়েছে।

উপজেলার রশুনিয়া ইউনিয়নের বাজারে গেলে দেখা যায়, মানুষ একজন আরেকজনের গয়ের উপরে আছে। উপজেলার সরকারী-বেসরকারী ব্যাংক গুলোর সামনে প্রতিদিন থাকে লম্বা লাইন। সেখানেও কেউ মানে না সামাজিক দুরত্ব এমনকি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিতে কোন পদক্ষেপ নেয় না। গন পরিবহন বন্ধ থাকলেও অটো গুলোতে গাদাগাদি করে ৫ জন বা কোন অটোতে ৬ জনও নিতে দেখা যায়।

সিরাজদিখানে বর্তমানে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখা ৪৯ জন। এর মধ্যে পুলশ, চিকিৎক ও স্বাস্থ্যকর্মীও রয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন ৬ জন। বর্তমানে সিরাজদিখানের প্রশাসন কঠোর না হলে উপজেলার করোনা পরিস্থিতি আরোও অবনতি হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে সিরাজদিখান বাজার কমিটির সাধারন সম্পাদক মোতাহার হোসেন বলেন, আমরা বাজারের দোকানের সামনে নিরাপদ দুরত্বে বৃত্ত দিয়ে দিয়েছি ও প্রতিটি দোকানে সচেতন করেছি।

সোনালী ব্যাংক সিরাজদিখান শাখার ম্যানেজার মো. কামরুল ইসলাম বলেন, নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখার জন্য আমাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আমাদের যতটুকু যায়গা আছে তার মধ্যেই আমরা তিন ফিট দুরে দুরে বক্স করে দিয়েছি। ব্যাংকের বাইরে অনেক বড় লাইন আছে। আমরা দশ জন করে ভিতরে ঢুকিয়ে সেবা দেই। আমরা পেনশন, বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধি ভাতা ও বিধাব ভাতা উত্তোলনের সুবিধা টা আমরা এখানেও রেখেছি এবং পাশের একটি বিল্ডিংয়ে ও রেখেছি যাতে ভির কম হয়। আমরা এসব ভাতা ইউনিয়ন পরিষদের মাঠে গিয়েও দিয়ে এসেছি।

সিরাজদিখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ফরিদ উদ্দিন বলেন, মানুষ সচেতন ভাবে সামাজিত দুরত্ব লঙ্ঘন করছে। আমরা সচেতনতার জন্যে লিফলেট দিয়েছি ও মাইকিং করেছি। সচেতনতা নিজের কাছে। জনগণ যদি নিজেরা সচেতন না হয় আমাদের একার পক্ষে কিছুই করার থাকে না।

সেনাবহিনীর সিরাজদিনের দায়িত্বরত পেট্রোল কমান্ডার ক্যাপ্টেন চার্লেজ জিকো বলেন, এই মহামারী থেকে রক্ষার প্রধান ও প্রথম উপায় হচ্ছে নিজেদের মনে সচেতনতা সৃস্টি করা। ব্যাক্তি সচেতন না হলে আসলে আমাদের পক্ষে কারো ঘরে ঘরে গিয়ে বা কাউকে বাধ্য করানোটা সম্ভব না কারণ আমরা সংখ্যায় মাত্র ১২ জন কিন্তু বাজারে আসে হাজারো মানুষ। একটা মানুষ যদি নিজে থেকে সচেতন না হয় তার নিজের মধ্যে যদি সেই ভয় কাজ না করে সে ক্ষেত্রে আমাদের পক্ষে আসলে কিছু করার থাকে না। আমরা বাজার বা কোন যায়গায় টহলরত অবস্থায় থাকবো আমরা থাকার পরেও যদি একটা মানুষ নিজে থেকে সচেতন না হয় সেক্ষেত্রে আমাদের জন্য তাকে সচেতন করা বা সামাজিক দুরত্ব টা নির্ধারন করাটা আমাদের জন্য খুব কঠিন হয়ে যায়।

উপজেলা নির্বহী কর্মকর্তা আশফিকুন নাহার বলেন, আমরা নিয়মিত বজার গুলোতে টহল দিচ্ছি। সেনা বাহিনি এসেও টহল দিচ্ছে। আমরা যখন সেখানে থাকি তখন সবাই নিরাপদ দুরত্বে থাকলেও যখন চলে আসি তখন আবার আগের মত হয়ে যায়।