রাজশাহীতে অনলাইনে জমজমাট আমের বাজার

0
59

রিপন আলী, রাজশাহী ব্যুরোঃ মহামারি করোনার কারনে বিষেশ প্রয়োজন ছারা মানুষ ঘর থেকে বের হচ্ছে না।এদিকে মৌসুমি ফল আম বাজারে উঠেছে অনেক আগেই।কিন্তু প্রতি বছরের ন্যায় এবার বাজার গুলোতে ক্রেতাদের ভির তুলনামুলক কম দেখা যাচ্ছে। কিন্তু এবার অনলাইনে জমে উঠেছে আম কেনা-বেচা। ফোনকল, ইমো, ভাইভার হোয়াটস্যাপ আর ফেসবুক ম্যাসেনজারে বেড়েছে ক্রেতা-বিক্রেতাদের কর্মতৎপরতা।কদর বেড়েছে সুস্বাদু- খেরসাপাত, গোপাল ভোগ ও ল্যাংড়া আমের। দিন যত অতিবাহিত হচ্ছে ততই বাড়ছে এ সব আমের চাহিদা ও দাম।

স্থানীয় আম ব্যবসায়ীরা জানান, বিগত সময়ে অনলাইনে আমের বেচা-বিক্রী ছিলনা। এবার বাঘা সদরসহ আসপাশের যুবকরা ফোনকল, ইমো, ভাইভার, হোয়াটস্যাপ আর ফেসবুক ম্যাসেনজারে বিভিন্ন নামে এ্যাড দিয়ে আমের অর্ডার নিচ্ছে। ফলে ভিড় বেড়েছে কুরিয়া সার্ভিস ও রেল স্টোশানসহ ঢাকাগামী বাস টার্মিনালে। আর অর্ডার নেয়া আমের অধিকাংশ কাটুন চলে যাচ্ছে ঢাকা, চিট্ট্রগ্রাম, সিলেট, নরসিংদি ও ভৈরবে। একটানা করোনা সংকোট মহামারি এবং মাঝে মধ্যে বৃষ্টি হওয়ার পরেও যেনো আমের চাহিদার কমতি নেই।

বাঘার বলিহার গ্রামের তরুনী পিয়াংকা রায় মন্ডল (শ্যামা)“অনিমা আম বাজার’’ নামে পেইজ খুলে ২০১০ সালে অনলাইনে আম বিক্রি শুরু করেছিলো।কিন্তু বিগত দিনে এতো অর্ডার সে কখনও পাইনি।এবার ও চিন্তাই ছিলেন করোনার কারনে এবার আর মনে হয় বাগানের সেরা আম ত্রেতাদের হাতে তুলে দিতে পারবে না। কিন্তু সকল ভয় ভিতির অবসান ঘটিয়ে এবার অনলাইনে বেচাকেনা তুঙ্গে।তিনি বলেন আমাদের অভিপ্রায় সবাই যেন বিষমুক্ত আম পায়।অনলাইনের ফলে ভোক্তারা অল্প সময়ের মধ্যে পাচ্ছেন চাহিদা অনুযায়ী ফরমালিনমুক্ত সুস্বাদু ও পরিচ্ছন্ন আম।

শুধু শ্যামা নয়, তার মতো আরো অনেক উদ্যোক্তা আম ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। অনলাইনে অর্ডার নিয়ে তারা বাগান থেকে আম পেড়ে সেখানেই প্যাকিং করে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে ভোক্তার কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন। ক্রেতা বিক্রেতারা বিকাশের মাধ্যমে টাকা লেনদেন করছেন। তবে এখন পর্যন্ত কোন গ্রাহক প্রতারণার শিকার হননি বলে নিশ্চিত করেন কুরিয়া সার্ভিস সেন্টার।

রাজশাহী শাহমুখদুম থানার পুলিশ কর্মকর্তা টুম্পা বলেন কয়েক বছর থেকে এই অনিমা আম বাজার থেকে আম অর্ডার করি। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বন্ধু বান্ধবি,আত্ত্বীয় সজনদের কাছে আম পাঠাই সবাই এদের আম পেয়ে প্রসংসা করে।আমি মনে করি এদের সততাই এদের মূল নিতি।

ঢাকা থেকে অনলাইনের মাধ্যমে আম ক্রেতা বাংলাদেশ ব্যাংক এর স্বপন রাম কানু, ডাচ্ বাংলা ব্যাংক এর আরিফুরজ্জামান ও মেরি ইন্জিনিয়ার সুজাল জানান, বিগত সময়ে বাজার থেকে আম কিনে খেয়েছি। তবে এবারের মতো স্বাদ কখনোই পায়নি। ফেসবুকে অনলাইন ডেলিভারি “অনিমা আম বাজার” নামে পেইজ দেখে মোবাইলে যোগাযোগ করি। তারপর তারা আম পাঠিয়ে দেন। আমার পাশের বাড়িসহ অন্যান্য বন্ধুরাও আমের অর্ডার দিতে দিচ্ছেন।

অনলাইনে আম পাঠানো প্রসঙ্গে অনিমা আম বাজার এর কর্নধর বীরেন মন্ডল বলেন আমার বেশ কিছু বাগান আছে সেখানে বিভিন্ন প্রকার এর আম গাছ আছে।গত ৮ বছর থেকে অনলাইনে আম বিক্রি করে আসছি।শুরু থেকেই ক্রেতাদের আগ্রহ ভাল আম খাবার আর হোমডেলিভারি নিবার।কিন্তু এই বার আমরা হোমডেলিভারি দিচ্ছি ঢাকাতে ৩০ ঘন্টার মধ্য ক্রেতার হাতে আম পৌছে দিতে পারচ্ছি।আর অফিস ডেলিভারি ২৪ ঘন্টা।আম পাবার পর অনেক এ বাগান দেখতে চাই।এবার ঢাকা থেকে বাংলাদেশ ব্যাংক এর কর্মকর্তা স্বপন রাম কানু ও বলিশাল এর সুজাল তালুকদার বাগার পরিদর্শন করেন।