দেশজুড়ে

শ্রীনগর কামারগাঁওয়ে পদ্মার তীরে ড্রেজার বাণিজ্য

  • 32
    Shares

আরিফুল ইসলাম শ্যামল: মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকুল ইউনিয়নের কামারগাঁও বাজার সংলগ্ন পদ্মা নদীর তীরে ছাড়পত্রবিহীন ড্রেজার স্থাপন করে বালু বাণিজ্য করার অভিযোগ উঠেছে ওই এলাকার জহির বেপারী ওরফে জহেরের বিরুদ্ধে। কাঁচা রাস্তা ও বসতবাড়ির ওপর দিয়ে ড্রেজারের পাইপ লাইনের সংযোগ দেওয়ায় মানুষের ভোগান্তি হচ্ছে।

একদিকে অবৈধ ড্রেজিং ব্যবস্থায় রাস্তার ক্ষতি যেমন ক্ষতি হচ্ছে। অপরদিকে ড্রেজার মেশিনের বিকট শব্দে বসবাসকারীরা বাড়িতে রাতে ঘুমাতে পারছেন না বলে অভিযোগ উঠেছে। গত ৫/৬ মাস ধরে এখানে ড্রেজার বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন জহের।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঢাকা-শ্রীনগর-দোহার আন্ত:সড়কের ভাগ্যকুল এলাকার কামারগাঁও বাজার থেকে প্রায় ৩’শত ফুট দক্ষিণে পদ্মা নদীর তীরে ড্রেজারের একটি সাব-স্টেশন স্থাপন করা হয়েছে। এখানে বাল্কহেড থেকে ড্রেজারে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করা হচ্ছে। এখানকার একটি কাঁচা রাস্তা ও ওই এলাকার বসতবাড়ি দিয়ে যত্রতত্রভাবে ড্রেজার পাইপের সংযোগ দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, কয়েক মাস যাবত এখানে জহের বেপারী ড্রেজারটি আনেন। প্রথমে রাস্তা কেটে পাইপ লাইনের সংযোগ দেয়া হয়। বাল্কহেড থেকে দিনে ও রাতে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। প্রায় সময়ই ড্রেজার ও বাল্কহেডের মেশিনের বিকট শব্দে বাড়িতে ঘুমানো প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ছে। এছাড়াও পাইপের কারণে রাস্তায় চলাফেরা করতে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন তারা।

এ সময় ড্রেজার ও বাল্কহেডের লোকজন জানায়, তারা এখানে রোজে শ্রমিকের হিসেবে কাজ করেন। ড্রেজারটি পরিচালনা করেন জহের বেপারী। তিনি এখন এখানে নেই। তার সাথে কথা বলেন।

ড্রেজার ব্যবসায়ী মো. জহির বেপারী ওরফে জহেরের কাছে ড্রেজার সংক্রান্ত বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি দম্ভ করে বলেন, কেন ভাই? পত্রিকায় লিখবেন নি? মনে যা চায় লিখেন গা, বলেই মোবাইল ফোন রেখে দেন।

এ ব্যাপারে ভাগ্যকুল ভূমির সহকারী কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান জানান, প্রায় ৮/১০ দিন আগে ছাড়পত্রবিহীন ড্রেজারটি বন্ধ করা হয়েছিল। এলাকাবাসীর কাছে শুনেছি ড্রেজারটি পুনরায় চালু করা হয়েছে। এখন আপনাদের মাধ্যমেও আবার জানতে পারলাম। এ বিষয়ে এসিল্যান্ড স্যারের সাথে আলাপ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


  • 32
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন