দেশজুড়ে

চট্টগ্রামে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যু কমেছে


চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যু কমেছে। এ সময়ে ৭৯০ জন নতুন রোগী শনাক্ত ও ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। সংক্রমণ হার ২৩ দশমিক ৭৬ শতাংশ।
সিভিল সার্জন কার্যালয়ের রিপোর্টে বলা হয়, এন্টিজেন টেস্ট, কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ও চট্টগ্রামের নয় ল্যাবে গতকাল ৩ হাজার ৩২৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হলে নতুন ৭৯০ জন পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে শহরের বাসিন্দা ৫৬১ জন ও ১৪ উপজেলার ২২৯ জন রয়েছে। উপজেলায় আক্রান্তদের মধ্যে সর্বোচ্চ রাউজানে ৭৪ জন, হাটহাজারীতে ৫০ জন, ফটিকছড়িতে ৩৭ জন, বোয়ালখালী ও সীতাকু-ে ১৩ জন করে, লোহাগাড়ায় ১২ জন, সাতকানিয়ায় ৮ জন, মিরসরাইয়ে ৬ জন, পটিয়ায় ৫ জন, সন্দ্বীপে ৪ জন, রাঙ্গুনিয়া, বাঁশখালী ও আনোয়ারায় ২ জন করে এবং চন্দনাইশে ১ জন রয়েছেন। জেলায় এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা ৭৩ হাজার ৩৮২ জন। এর মধ্যে শহরের বাসিন্দা ৫৫ হাজার ৬৪৩ জন ও গ্রামের ১৭ হাজার ৭৩৯ জন।
গতকাল করোনাভাইরাসে শহরের ৩ জন ও গ্রামের একজন মারা গেছে। ফলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৮৬০ জন হয়েছে। এতে শহরের বাসিন্দা ৫২৯ জন ও গ্রামের ৩৩১ জন। সুস্থতার ছাড়পত্র পেয়েছেন নতুন ২৫৩ জন। ফলে মোট আরোগ্য লাভকারীর সংখ্যা ৫৩ হাজার ১৩০ জনে উন্নীত হয়েছে। এর মধ্যে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন ৭ হাজার ৩৮৫ জন ও ঘরে থেকে চিকিৎসায় সুস্থ হন ৪৫ হাজার ৭৪৫ জন। হোম কোয়ারেন্টাইন ও আইসোলেশনে নতুন যুক্ত হন ২১৩ জন এবং ছাড়পত্র নেন ১৯২ জন। বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ২ হাজার ১১৭ জন।
উল্লেখ্য, গতকাল ৪ জনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে চলতি মাসের প্রথম বিশ দিনে চট্টগ্রামে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৫৩ জনে। গত এপ্রিল, মে ও জুন মাসের প্রথম ২০ দিনে যথাক্রমে ৮৮, ৬৯ ও ৩৯ করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছিল। আগের দিন করোনাকালের সর্বোচ্চ ১৫ জনের মৃত্যু হয়। এ সময় ৯২৫ জনের দেহে ভাইরাস শনাক্ত হয়। সংক্রমণ হার ছিল ৩৬ দশমিক ৪৬ শতাংশ।
ল্যাবভিত্তিক রিপোর্টে দেখা যায়, ফৌজদারহাটস্থ বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে গতকাল সবচেয়ে বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এখানে ১ হাজার ১২০ জনের নমুনা পরীক্ষায় শহরের ৯৯ ও গ্রামের ৩৫ জন জীবাণুবাহক পাওয়া যায়। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ২৬৫ টি নমুনা পরীক্ষায় শহরের ৯০ ও গ্রামের ১৩ টিতে ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলে। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এন্ড এনিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ২৪৩ টি নমুনায় শহরের ৫৯ ও গ্রামের ৪৬ টিতে করোনার জীবাণু পাওয়া যায়। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ল্যাবে ১৯৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হলে শহরের ৫০ ও গ্রামের ৩৬ জনের দেহে ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়। নমুনা সংগ্রহের বিভিন্ন বুথে ১৫১ জনের এন্টিজেন টেস্টে গ্রামের ৬৫ জন আক্রান্ত বলে জানানো হয়। নগরীর বিশেষায়িত কোভিড চিকিৎসা কেন্দ্র আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতালের আরটিআরএল-এ ২৫ জনের নমুনার মধ্যে শহরের ১৩ ও গ্রামের একজনের পজিটিভ রেজাল্ট আসে।
বেসরকারি ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরি শেভরনে ৬৮৩ টির মধ্যে নমুনা পরীক্ষা করে শহরের ৮৯ ও গ্রামের ২০ টি, ইম্পেরিয়াল হাসপাতালে ৪৪০ নমুনায় শহরের ৬০ ও গ্রামের ৭ টি, মেডিকেল সেন্টারে ৪২ টি নমুনার মধ্যে শহরের ২০ টি এবং এপিক হেলথ কেয়ারে ১৪৯ টি নমুনা পরীক্ষায় গ্রামের চারটিসহ ৮৫ টিতে ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়।
চট্টগ্রামের ১৪ জনের নমুনা কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে পাঠানো হয়। পরীক্ষায় গ্রামের ২ টি ছাড়া অবশিষ্টগুলোর রেজাল্ট নেগেটিভ আসে। তবে আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে এদিন কোনো নমুনা পরীক্ষা হয়নি।
ল্যাবভিত্তিক রিপোর্ট বিশ্লেষণে বিআইটিআইডি’তে ১১ দশমিক ৯৬ শতাংশ, চমেকে ৩৮ দশমিক ৮৭, সিভাসু’তে ৪৩ দশমিক ২১, চবি’তে ৪৪ দশমিক ৫৬, এন্টিজেন টেস্টে ৪৩ দশমিক ০৪, আরটিআরএলে ৫৬ শতাংশ, শেভরনে ১৫ দশমিক ৯৬, ইম্পেরিয়ালে ১৫ দশমিক ২৩, মেডিকেল সেন্টারে ৪৭ দশমিক ৬২, এপিক হেলথ কেয়ারে ৫৭ দশমিক ০৪ এবং কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে ১৪ দশমিক ২৮ শতাংশ সংক্রমণ হার নির্ণিত হয়।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন