সুন্দরগঞ্জে ৪ এনজিও কর্মীসহ ৮ জনের জরিমানা

0
8

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট কাজী লুতফুল হাসান ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে বেসরকারী স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘আশা’ ও ‘বিজ’র ৪ কর্মীর ৪ হাজার ও ৪ ফলের দোকানীর ৬ হাজারসহ মোট ১০ হাজার টাকা জরিমানাদেশ প্রদান করেছেন।

জানা যায়, বুধবার বিকেলে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে এ আদেশ প্রদান করা হয়। জরিমানাদেশপ্রাপ্তরা হলেন- আশা এনজিও’র সুন্দরগঞ্জ ব্রাঞ্চ ব্যবস্থাপক জাহাঙ্গীর আলম (৪৮), একই শাখার সহকারী ব্যবস্থাপক নুর আহমেদ সরকার (৫০), বিজ এনজিও’র সুন্দরগঞ্জ শাখা ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম (৩৫), ও ফজলে রাব্বী (২৮)। এদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ১ হাজার করে ৪ হাজার টাকা জরিমানাদেশ প্রদান করা হয়েছে।

জরিমানাদেশপ্রাপ্ত জাহাঙ্গীর আলম লালমনিরহাটের হাতিবান্ধা উপজেলার পারুল গ্রামের ওয়াছ উদ্দিনের পুত্র, নুর আহমেদ সরকার, গাইবান্ধা’র গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার হরিপুর গ্রামের জহুরুল হক সরকারের পুত্র, বিজ এনজিও’র স্ন্দুরগঞ্জ ব্রাঞ্চের ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম (৩৫) জেলার পলাশবাড়ি উপজেলার শিবরামপুর গ্রামের বাদশা মিয়ার পুত্র ও একই ব্রাঞ্চের ফজলে রাব্বী বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার হরিপুর গ্রামের মৃত রফিকুল ইসলামের পুত্র।

এছাড়া, উপজেলা শহরে নির্ধারিত সময়ের পরও ফলের দোকান খোলা রেখে নির্বিঘেœই বেচা-কেনা করার দায়ে ৪ দোকানীর ৪ হাজার টাকা জরিমানাদেশ প্রদান করা হয়। এরা হলেন- সুন্দরগঞ্জ পৌরশহরের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের শফিউল হোসেনের পুত্র সোহেল রানা (২৫), ৯ নম্বর ওয়ার্ডের মাষ্টারপাড়াস্থ হোসেন আলীর পুত্র রুবেল মিয়া (২৮) একই পাড়ার মেনাজ উদ্দিনের পুত্র শফিউল ইসলাম (৩৯) ও হোসেন মিয়ার পুত্র আঃ রহিম (৫২)।

বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট কাজী লুতফুল হাসান জানান, সরকারী আদেশ অমান্য করে এনজিও কর্মীরা ঋণের কিস্তি আদায় করা অব্যাহত রেখেছে। এছাড়া, নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে বিকেল ৪ টার পরও অবাধে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রেখে ছিল ফলের দোকানদাররা।