সংক্রমণ বাড়ছে, উঠছে লকডাউন

0
144

করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবেলায় বিশ্বে বড় ধরনের বিস্ময়ের জন্ম দিতে চলেছে ভারতীয় উপমহাদেশ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) পরামর্শ ও সতর্কবানী উপেক্ষা করে পুরো বিশ্বের বিপরীতে হাঁটছে তিনটি দেশ-বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তান।বিশ্বব্যাপী দেখা গেছে, করোনার বিস্তার ঠেকাতে দেশগুলো কঠোর লকডাউনে গেছে। নতুন সংক্রমণের ধারা নিম্নমুখী না হওয়া পর্যন্ত বজায় রেখেছে এই লকডাউন।

কিন্তু উপমহাদেশের তিন দেশের বেলায় ঘটছে উল্টো ঘটনা। করোনা মোকাবেলায় এরাও লকডাউন দিয়েছে। সে কারণে হয়তো মহামারি কিছুটা নিয়ন্ত্রণেও থেকেছে। কিন্তু ঠিক চূড়ান্ত পর্যায়ের (Peak) কাছে এসে এদের ধৈর্যচ্যুতি ঘটেছে। সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ সময়ে সবচেয়ে ভুল কাজটি করছে। তুলে নিচ্ছে অথবা শিথিল করছে লকডাউন। আর তাতে করোনার ভয়ংকরভাবে কামড় বসানোর সুযোগ তৈরি হচ্ছে।

বাংলাদেশে করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার ৬০ তম দিন পার হয়েছে কাল। করোনা মোকাবেলায় গত ২৬ মার্চ থেকে দেশে সাধারণ ছুটি (প্রকারান্তরে লকডাউন) চলছে। এর মধ্যেই বেড়েছে সংক্রমণ। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত দেশে ১২ হাজার ৪২৫ জনের শরীরে নভেল করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) শনাক্ত হয়েছে। আর এর অর্ধেকেরও বেশি শনাক্ত হয়েছে গত ১০ দিনে।দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় ৮ মার্চ। পরবর্তী এক মাসে রোগী বেড়েছে ১৬১ জন।

তার পরের তথা গত এক মাসেই বেড়েছে ১২ হাজার ২৬৭ জন। এর মধ্যে শুধু শেষ ১০ দিনে শনাক্ত হয়েছে অর্ধেকের বেশি রোগী। ঠিক এই ১০ দিনের মধ্যেই নেওয়া হয়েছে গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিসহ কলকারখানা ও দোকানপাট খুলে দেওয়ার নানা সিদ্ধান্ত। সোমবার দেশে সর্বোচ্চ সংখ্যক (তখন পর্যন্ত) নতুন রোগী শনাক্ত হয়, আর সেদিনই ঘোষণা দেওয়া শপিংমলসহ দোকানপাট খুলে দেওয়ার।

সর্বোচ্চ সংক্রমণের দিনে লকডাউন শিথিলের ঘোষণা খোদ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের রিপোর্ট অনুসারে, মে মাসের মাঝামঝি দেশে করোনার সংক্রমণ চূড়ান্ত পর্যায়ে যাবে। মে মাস পর্যন্ত দেশে ৪৮ হাজার থেকে ১ লাখ মানুষ প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে। এই পূর্বভাসকে বিবেচনায় নিলে আগামী ২২ দিনে সর্বনিম্ন ৩৬ হাজার এবং সর্বোচ্চ ৮৮ হাজার পর্যন্ত মানুষ করোনায় আক্রান্ত হতে পারে। গড়ে দৈনিক আক্রান্ত হতে পারে ১৬শ থেকে ৪ হাজার পর্যন্ত।

অথচ এই উদ্বেগজনক পূর্বাভাস থাকা সত্ত্বেও সরকারি-বেসরকারি অফিস ছাড়া সব কিছু থেকে লকডাউন তুলে নেওয়া হয়েছে। আর এ কারণে সংক্রমণের সংখ্যা আরও বেড়ে যাতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে।গত সপ্তাহে ভারতে চলমান লকডাউনের মেয়াদ আরেক দফা বাড়িয়ে ১৬ মে পর্যন্ত করা হয়েছে। কিন্তু তার মধ্যেই অসংখ্য খাতকে দেওয়া হয়েছ লকডাউন থেকে অব্যাহতি।দেশটিতেও সংক্রমণ লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক নতুন রোগী শনাক্তের মধ্য দিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫২ হাজার ছাড়িয়েছে। দেশটির সরকারীপূর্বাভাসেই মে মাস নাগাদ দেশটিতে ২ লাখ মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে।একই অবস্থা পাকিস্তানের। গত বৃহস্পতিবার দেশটিতে একদিনে সর্বোচ্চ ১ হাজার ৫২৩ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। মোট রোগীর সংখ্যা হয়েছে ২৪ হাজার ৭৩ জন।

আর এমন রেকর্ডের দিনে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খাত ঘোষণা দিয়েছেন, শনিবার থেকে ধাপে ধাপে লকডাউন তুলে নেওয়া হবে।তাড়াহুড়া করে লকডাউন তুলে নিলে ফের লকডাউনের প্রয়োজন হতে পারে। ক্ষয়ক্ষতি হবে অনেক বেশি এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসের কোনো টিকা বা চিকিৎসার কার্যকর ওষুধ আবিস্কৃত না হওয়ায় এই ভাইরাসের মহামারি ঠেকানোর প্রধান উপায়ই হচ্ছে লকডাউন।

লকডাউনের মাধ্যমে সবাইকে ঘরে পাঠিয়ে শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করা এবং পর্যাপ্ত পরীক্ষার মাধ্যমে আক্রান্তদের আলাদা করে আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া। তাই্‌ওয়ান, ভিয়েতনাম, নেপাল, ভুটানসহ যেসব দেশ করোনাকে ঠেকিয়ে দিতে পেরেছে তারা এই কৌশলেই সফল হয়েছে।শুরু থেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও করোনার মোকাবেলার এই প্রেসক্রিপশন দিয়ে এসেছে। পাশাপাশি একাধিকবার দেশগুলোকে সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, লকডাউন প্রত্যাহারে তাড়াহুড়া করলে ভয়ংকর পরিণতি হতে পারে।

বুধবার রাতে এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থার প্রধান আবারও বিষয়টির উল্লেখ করে বলেছেন, কোনো সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা (Exit Plan) ছাড়া উপযুক্ত সময়ের আগে লকডাউন তুলে নিলে করোনাভাইরাস প্রচণ্ডভাবে চেপে বসতে পারে। তাতে আবার লকডাউনে যাওয়ার প্রয়োজন হতে পারে সংশ্লিষ্ট দেশের। আর দ্বিতীয় দফার লকডাউনের মেয়াদ হবে আগের চেয়ে দীর্ঘ, ক্ষয়ক্ষতিও হবে বেশি।বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানের ক্ষেত্রে কী তবে এই আশংকাই বাস্তব হবে? জানার জন্য হয়ত অপেক্ষা করতে হবে আরও কিছু দিন।