দুর্দিনে শ্রমিক ছাঁটাই মরার ওপর খাড়ার ঘা : কাদের

0
11

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দুর্দিনে শ্রমিক ছাঁটাই না করতে মালিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি আজ সোমবার নিজ বাসভবনে ব্রিফিংকালে মালিকদের প্রতি এই আহ্বান জানান।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘শ্রমিকরা সুদিনে মালিকদের মুনাফা এনে দিয়েছে। সেজন্য এই দুর্দিনে তাদের ছাঁটাই না করার জন্য মালিকদের প্রতি অনুরোধ জানাই।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ছাঁটাইয়ের মতো অসন্তোষ উদ্রেককারী সিদ্ধান্তের খবর মরার ওপর খাড়ার ঘা’র মতো অবস্থা হবে। সেজন্য বিষয়টি বিজিএমইএসহ সংশ্লিষ্টদের মানবিক দিক বিবেচনায় নিয়ে সমন্বয়ের আহ্বান জানাই।

শুধু ব্যবসা নয়, অসহায় মানুষগুলোর প্রতি সহমর্মী হয়ে ছাঁটাই না করার জন্যও মালিকদের প্রতি অনুরোধ জানান সেতুমন্ত্রী।

ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দেশে করোনা পরিস্থিতি অবনতিশীল। এ অবস্থায় শেখ হাসিনা সরকার জনস্বার্থে ও জনস্বাস্থ্য রক্ষায় কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে এবং নিতে যাচ্ছে। সংক্রমিত, সংক্রমণপ্রবণ এলাকা চিহ্নিত করে শিগগিরই কিছু পদক্ষেপ ঘোষণা করা হবে। জনগণকে ধৈর্যের সঙ্গে সরকারি সিদ্ধান্ত কঠোরভাবে প্রতিপালনের আহ্বান জানাচ্ছি। উদাসীনতা নয়, ক্ষণিকের অবহেলায় পরিস্থিতি ভয়াবহ করে তুলছে। এখন থেকে সাবধান না হলে আগামী দিনগুলো আরও ভয়ংকর হতে পারে।

সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরতদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, আপনারা করোনাযোদ্ধা। করোনা ও অন্যান্য রোগীর প্রতি মানবিক হবেন। ইতোমধ্যে চিকিৎসা না পেয়ে হাসপাতাল ঘুরে মৃত্যুবরণের মতো ঘটনাও ঘটেছে। তাই আপনারা মানবিক ও সহানুভূতিশীল হবেন, এটাই আশা করি।

এদিকে আজ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এক শোকবার্তায় বলেন, বাঙালির ইতিহাসের শোকাবহ ১৫ আগস্টের কালরাতের একজন প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন শাহানারা আবদুল্লাহ। তার মৃত্যু দলের জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহানারা ছিলেন একজন দক্ষ রাজনীতিবীদ এবং সমাজসেবক। ছিলেন একজন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব।’

শোকবার্তায় কাদের মরহুমার রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

উল্লেখ্য, শাহানারা আব্দুল্লাহ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে মিন্টো রোডের বাড়িতে হত্যাকাণ্ডের অন্যতম স্বাক্ষী। ওই রাতে ঘাতকদের বুলেটে শহীদ হন তার শিশু সন্তান সুকান্ত বাবু। তিনি নিজেও গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন।