লাইফস্টাইল

ইফতারে দইয়ের উপকারিতা

  • 8
    Shares

রোজার সময় শরীরে প্রচুর পানির চাহিদা থাকে। আর দইয়ে রয়েছে জলীয় ও পুষ্টিগত উপাদান, যা শরীরের জন্য বিশেষ উপকারী। অন্যান্য উপাদানের পাশাপাশি, দইয়ে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন। বিশেষ করে উল্লেখযোগ্য মাত্রায় ভিটামিন ‘বি৫’, জিংক, পটাশিয়াম, ফসফরাস, আয়োডিন ও রিবোফ্লাভিন।

এছাড়া এবার গরমকালে রোজা। তাই রোজা রাখার পর খাদ্যতালিকায় দুগ্ধজাত খাবার নিয়মিত রাখলে পুষ্টিগতভাবে ঠিক থাকবে শরীর। সারাদিন রোজা থাকার পর এমনিতেই দুর্বল হয়ে পরে শরীর। আর এই দুর্বলতা উপশমে সবচেয়ে ভালো খাবার হতে পারে দই। তাই বাংলাদেশ জার্নালের পাঠকদের জন্য তুলে ধারা হলো ইফতারে দইয়ের উপকারিতা।

দইয়ের উপকারিতা:

• পেট ঠান্ডা থাকে দই খেলে।

• পেটে এসিডিটি তৈরি হয় সারদিন রোজা থাকায়। আবার ইফতারে একসঙ্গে অনেকগুলো খাবার খেয়ে ফেলায় অস্বস্তি শুরু হয়। এসময় খুবই কার্যকর দই খাওয়া।

• দই সহযোগিতা করে খাদ্য ডাইজেশন বা হজম প্রক্রিয়ায়।

• পুষ্টিতে ভরপুর একটি খাবার হলো দই ।

• দইয়ের প্রথম উপাদান হচ্ছে ফাইবার, যা শরীরের ডাইজেশন বা হজম প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করে।

• দইয়ে থাকে প্রবাইটিস যা উপকারি ব্যকটেরিয়া নামে পরিচিত। এই ব্যকটেরিয়া শরীরে ডাইজেশন বা পারিপাক প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করে।

• দইয়ে আছে প্রচুর পরিমাণে ক্যলসিয়াম এবং ফসফরাস ।

• যারা দুধ খেতে পারেন না তাদের জন্য খুবই ভালো বিকল্প হতে পারে দুই।
• দই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরিতে এবং শরীরে ইমিউনিটিতে ভূমিকা রাখে।

যেভাবে দই খাবেন

• যারা দই সরাসরি খেতে পারেন না, তারা চাইলে ফলের সালাদ তৈরি করে দই মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারে।

• দই খাওয়া যেতে পারে লাচ্ছি তৈরি করে। যার ফলে একই সঙ্গে পানীয় এবং দইয়ের গুণাগুণ দুই ভাবেই কাজ করবে।

• যারা সরাসরি মিষ্টি দই খেতে পারে না, তারা কাঁচা টমেটো বা শসার সালাদের সঙ্গে টক দই মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারেন।
• সেহরির সময় অল্প দই বা লাচ্চি খেলে সারা দিনের হজম প্রক্রিয়ায় ভালো ফল পাওয়া যেতে পারে।


  • 8
    Shares

Related Articles