ট্যুরিজম

খুলনায় নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে করোনা,জেলায় মোট সনাক্ত ১২০ জন

  • 9
    Shares

খুলনা প্রতিনিধি : খুলনা মহানগরী ও জেলার ৯ উপজেলা এলাকায় নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে ভয়ংকর করোনা ভাইরাস । খুলনা জেলায় শনাক্ত হওয়া রোগীরা ভিন্ন ভিন্ন এলাকার বাসিন্দা। আর সে কারণেই প্রত্যেকটি এলাকায় এই ভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। অভিজ্ঞমহলের আশংকা , আশু কঠোর পদক্ষেপ না নিলে পরিস্থিতি মারাত্মক পর্যায়ে পৌঁছে যেতে পারে।

খুলনা সিভিল সার্জনের দপ্তর ও খুলনা মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাব সূত্রে জানা গেছে, এ পর্যন্ত জেলায় মোট ১২০ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মহানগরীর মধ্যে রয়েছে ৬০ জন, দিঘলিয়া উপজেলায় ২৪ জন, রূপসায় ১২ জন, ডুমুরিয়ায় ৭ জন, দাকোপে ৬ জন, বটিয়াঘাটা ৩ জন, তেরখাদায় ৩ জন, ফুলতলায় ২ জন পাইকগাছায় ১ জন ও কয়রায় ২ জন। আর করোনায় মারা গেছেন ৪ জন। যার মধ্যে রূপসায় ৩ ও দিঘলিয়ায় ১ জন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৩৮ জন। পুরোপুরি সুস্থ হয়েছেন ২৩ জন।

খুলনা সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ বলেন, খুলনায় এ ভাবে করোনা শনাক্ত হতে থাকলে সামনের পরিস্থিতি ভয়াবহ পর্যায়ে যেতে পারে। খুলনার প্রত্যেকটি উপজেলায় করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। আর মহানগরীর অভ্যন্তরে করোনা শনাক্ত হয়েছে বিভিন্ন এলাকায়।

তিনি আরও বলেন, ২ জুন মঙ্গলবারই শুধুমাত্র মহানগরে ১০ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। তারা ছোট বয়রা, নিউ মার্কেট, খান এ সবুর রোড (পুরাতন যশোর রোড), দৌলতপুর, ক্রিসেন্ট কলোনী ও কেডি ঘোষ রোড এলাকার বাসিন্দা। প্রত্যেকের বাড়ী পৃথক সড়কে। এখনো মানুষ যদি অযথা বাইরে ঘোরাঘুরি করে তবে সহজে করোনায় আক্রান্ত হবেন।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. মুন্সি রেজা সেকেন্দার বলেন, খুলনা শহরে মানুষ যে ভাবে বিনা প্রয়োজনে ঘোরাঘুরি করে বেড়াচ্ছে, তাতে পরিস্থিতি আরো খারাপ পর্যায়ে যাবে। মানুষকে বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বাহির হওয়া বন্ধ না করতে পারলে ভবিষ্যৎ খুব খারাপ হবে।

তিনি আরো বলেন, খুলনার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে বর্তমানে ৩৮ জন রোগী ভর্তি আছেন। দৈনিক ৭ থেকে ৮ জন রোগী ভর্তি হচ্ছেন। এভাবে করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকলে ভবিষ্যতে হাসপাতালের ধারণ ক্ষমতা আরো বাড়াতে হবে। উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেন, বাংলাদেশে করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য মোট ১৮ হাজার বেড আছে। আর বর্তমানে দেশে আক্রান্ত হয়েছেন ৫০ হাজারের উপরে। সুতরাং খুলনার পরিস্থিতি সামনে এমন হতে পারে।
এদিকে খুলনার বর্তমান পরিস্থিতিতে সংক্রমণরোধে বাড়ির বাইরে চলাচলের সময় মাস্ক পরিধানসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মেনে চলার নির্দেশ প্রদান করেছেন খুলনার, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন। তিনি বলেছেন, খুলনায় রাত আটটা থেকে সকাল ছয়টা পর্যন্ত অতীব জরুরি প্রয়োজন (প্রয়োজনীয় ক্রয়-বিক্রয়, কর্মস্থলে যাতায়াত, ঔষধ ক্রয়, চিকিৎসাসেবা, মৃতদেহ দাফন বা সৎকার ইত্যাদি) ব্যতীত বাড়ির বাইরে যাওয়া যাবে না। এ নির্দেশ অমান্যকরীর বিরুদ্ধে সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মুল) আইন, ২০১৮ অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ##


  • 9
    Shares

Related Articles