জাতীয়

গণস্বাস্থ্যের কিটে করোনা পরীক্ষায় নিষেধাজ্ঞা


করোনাভাইরাস শনাক্তে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত জিআর কোভিড-১৯ ডট ব্লট র‌্যাপিড টেস্টিং কিটে নমুনা পরীক্ষায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ঔষধ প্রশাসন আধিদপ্তর। এর প্রেক্ষিতে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র তাদের পূর্ব ঘোষিত পরীক্ষা কার্যক্রম স্থগিত করেছে।আগের ঘোষণা অনুসারে আগামীকাল মঙ্গলবার (২৬ মে) এই পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল।

গণস্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ এটিকে ট্রায়াল হিসেবে অভিহিত করেছিল। প্রতি নমুনার জন্য ৭০০ টাকা করে এই পরীক্ষার কথা ছিল।সংশ্লিষ্ট সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।সূত্র জানিয়েছে, গণস্বাস্থ্যের ওই কিট এখনো বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল (বিএমআরসি) এর অনুমোদন না পাওয়ায় দেশে এই কিট ব্যবহার বিধিসম্মত নয় বলে উল্লেখ করেছে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

এ বাস্তবতায় আলোচিত কিটে করোনার নমুনা পরীক্ষায় সাময়িক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে এই বিষয়ে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রকে সহায়তা করার অনুরোধ জানায় স্বাস্থ্য খাতের এই নিয়ন্ত্রক সংস্থা। তার প্রেক্ষিতে সংস্থাটি আগামীকাল পরীক্ষা শুরু না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।উল্লেখ, ঈদের পরদিন থেকে নিজেদের কিট দিয়ে করোনার পরীক্ষা কথা আগেই জানিয়েছিল গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র।

আজ সোমবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আবারও বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছিল।বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছিল, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল (বিএমআরসি) অনুমোদিত জিআর কোভিড ১৯ র‍্যাপিড ডট ব্লট কিটের অভ্যন্তরীন গুনগত মান পরীক্ষার ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অংশ হিসেবে কাল মঙ্গলবার নমুনা সংগ্রহ করবে।

সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১২ টার মধ্যে করোনাভাইরাসের উপসর্গ আছে এ রকম ৫০ জনের কাছ থেকে বিএমআরসি অনুমোদিত নিয়মে আগে এলে আগে নেওয়া হবে ভিত্তিতে লালা এবং রক্ত বা যে কোন একটি নমুনা সংগ্রহ করা হবে। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র জানায়, এই নমুনা সংগ্রহ গবেষণার অংশ, কোন সেবা বা রোগ নির্ণয়ের অংশ নয়।গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র করোনাভাইরাস শনাক্তকারী ২০০ কিট গত ১৩ মে বিএসএমএমইউতে হস্তান্তর করে।

এর আগে গত ৩০ এপ্রিল গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রকে বিএসএমএমইউতে কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষার অনুমতি দেয় ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর। তবে এখন পর্যন্ত কিটের কার্যকারিতা বিষয়ে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রকে কিছু জানানো হয়নি বলে জানান গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি চিকিৎসক জাফরুল্লাহ চৌধুরী।তবে রোববার বিএসএমইউ গঠিত কমিটি গণস্বাস্থ্যের কিট সংক্রান্ত প্রতিবেদন উপাচার্যের কাছে জমা দিয়েছে বলে জানা গেছে।

বিএসএমইউ এই রিপোর্ট ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর এবং বিএমআরসির কাছে পাঠাবে। সব প্রক্রিয়া শেষে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানতে মাস খানেক সময় লেগে যেতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে।এদিকে আজ গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন তিনি নিজেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। আর এটি গণস্বাস্থ্যের কিটে দিয়ে করা পরীক্ষায় ধরা পড়েছে। তিনি বাসায় আইসোলেশনে আছেন।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button