শীর্ষ নিউজ

পাঁচটি নতুন ‘পোর্টস অব কল’ ও দুটি নৌরুট সংযোজন

  • 4
    Shares

বাংলাদেশ-ভারতের সঙ্গে নৌপথে ব্যবসা-বাণিজ্য ও চলাচলের জন্য পাঁচটি নতুন ‘পোর্টস অব কল’ ও দুটি নৌ প্রটোকল রুট সংযোজন করা হয়েছে। এর আগে প্রটোকল অন ইনল্যান্ড ওয়াটার ট্রানজিট অ্যান্ড ট্রেডের (পিআইডব্লিউটিটি) আওতায় দুই দেশের সঙ্গে ছয়টি ‘পোর্টস অব কল’ ও আটটি নৌ প্রটোকল রুট বিদ্যমান ছিল।

গতকাল নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে পিআইডব্লিউটিটির দ্বিতীয় সংযোজনীপত্র স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানানো হয়। দ্বিতীয় সংযোজনীপত্রে স্বাক্ষর করেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী ও বাংলাদেশের ভারতের হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ।

দুই দেশের মধ্যে বিদ্যমান ‘পোর্টস অব কল’গুলোর সঙ্গে নতুন করে যুক্ত হয়েছে রাজশাহী, সুলতানগঞ্জ, চিলমারী, দাউদকান্দি ও বাহাদুরাবাদ এবং ভারতের ধুলিয়ান, ময়া, কোলাঘাট, সোনামুরা ও জগিগোপা। দুটি করে ‘এক্সটেন্ডেড পোর্ট অব কল’ হলো বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জ পোর্টস অব কলের আওতায় ঘোড়াশাল ও পানগাঁও পোর্ট অব কলের আওতায় মুক্তারপুর এবং ভারতের কলকাতা পোর্ট অব কলের আওতায় ত্রিবেনী (বেন্ডেল) ও করিমগঞ্জ পোর্ট অব কলের আওতায় বদরপুর।

২০১৮ সালের নয়াদিল্লিতে ও ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে ঢাকায় উভয় দেশের নৌ সচিব পর্যায়ের বৈঠক এবং পিআইডব্লিউটিটির স্ট্যান্ডিং কমিটির সভায় সিদ্ধান্তের আলোকে নতুন পাঁচটি ‘পোর্টস অব কল’, নতুন দুটি নৌ প্রটোকল রুট সংযোজন, হাইড্রোগ্রাফিক সার্ভে ও ড্রেজিংয়ের জন্য পিআইডব্লিউটিটির দ্বিতীয় সংযোজনীর প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। এর আগে ২০১৮ সালের ২৫ অক্টোবর পিআইডব্লিউটিটির প্রথম সংযোজনী স্বাক্ষরিত হয়। সেখানে বাংলাদেশের পানগাঁও এবং ভারতের ধুবরীকে ‘পোর্টস অব কল’ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বিদ্যমান ‘অভ্যন্তরীণ নৌ ট্রানজিট ও বাণিজ্য চুক্তি’ ১৯৭২ সালে স্বাক্ষরের পর থেকে নবায়নের ভিত্তিতে অব্যাহত আছে। ওই প্রটোকলের মেয়াদ ২০১৫ সালের ৩১ মার্চ শেষ হয়। পরবর্তী সময়ে ২০১৫ সালের ৬ জুন পুনরায় পিআইডব্লিউটিটি স্বাক্ষরিত হয়।

বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে বিদ্যমান আটটি নৌরুটের সঙ্গে দাউদকান্দি-সোনামুড়া ও সোনামুড়া-দাউদকান্দি সংযুক্ত করা হয়েছে।উল্লেখ্য, নৌ প্রটোকল রুটে ২০১৮-১৯ সালে বাংলাদেশী জাহাজের মাধ্যমে ২ হাজার ৬৮৫টি ট্রিপে ২২ লাখ ৮৬ হাজার ৮৫২ টন এবং ভারতীয় জাহাজের মাধ্যমে ৫৯টি ট্রিপে ৭৮ হাজার ৭৯৪ টন পণ্য পরিবহন করা হয়।


  • 4
    Shares

Related Articles