জাতীয়নির্বাচিত

প্রতিটি গ্রাম শহরের সুবিধা পাবে: প্রধানমন্ত্রী

দারিদ্রমুক্ত দেশ গঠনে গ্রাম ও প্রতিরক্ষা বাহিনীকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘দেশের সর্ববৃহৎ বাহিনী হিসেবে আনসার বাহিনীকে দেশের উন্নয়নে আরও কার্যকরি ভূমিকা পালন করতে হবে। এতে করে বাংলাদেশের প্রতিটি গ্রাম আলোকিত হবে, শহরের সুবিধা পাবে।’

তিনি বলেন, ‘আর্থ সামাজিক উন্নয়নে এ বাহিনীর উন্নতি করেছে বর্তমান সরকার। তাদের উন্নয়নে পদন্নতি থেকে শুরু করে আলাদা ব্যাংক প্রতিষ্ঠা ও ঝুঁকি ভাতা চালু করা হয়েছে।’

আজ বৃহস্পতিবার গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার সফিপুর আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৪০ তম জাতীয় সমাবেশে অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় এসে আনসার বাহিনীর উন্নতি নিয়ে চিন্তা করে। ৯৮’ সালে ক্ষমতাসীন সরকারই সর্বপ্রথম গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী হিসেবে সম্মান দেয়।’

আনসার বাহিনীর প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘বর্তমানে সারাদেশে ৬৮ লাখ আনসার সদস্য রয়েছে। তারা দেশের অর্থনীতির চাকা সমুন্নত রাখতে ভূমিকা রাখছে। জাতীয় নির্বাচন থেকে শুরু করে সন্ত্রাস দমন, জঙ্গিবাদ নির্মূল, অগ্নিকাণ্ড ঠেকাতে ও জননিরাপত্তা কাজে এ বাহিনী গুরুত্বের সাথে তাদের দায়িত্ব পালন করে আসছে।’

‘এ বাহিনীর উন্নতিতে সরকার সবসময় গুরুত্ব দিয়ে আসছে। এ লক্ষ্যে ২টি মহিলা ব্যাটালিয়নসহ সারাদেশে ৪২টি ব্যাটালিয়ন টিম গঠন করা হয়েছে। যারা কূটনীতি থেকে শুরু করে প্রয়োজনে ব্যবসায়ীদেরও নিরাপত্তায় কাজ করছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বর্তমানে বাংলাদেশের আনসার বাহিনী শুধু দেশে নয়, আন্তর্জাতিক পর্যায়েও তারা সুনাম বয়ে আনছে। সম্প্রতি বিভিন্ন খেলাধুলায় ১৪২টি পদকের মধ্যে ৫৮টি পদক তারা ছিনিয়ে এনেছে। তাই তাদের সেবা ও সাহসিকতার পদকও প্রবর্তন করা হয়েছে।’

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকার তেজগাঁও বিমানবন্দর থে‌কে হেলিকপ্টারযোগে সফিপুরে পৌঁছfন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী কর্তৃক আয়োজিত কুচকাওয়াজে সালাম গ্রহণ করেন তিনি।

Comments

comments