বেড়েছে শাক-সবজির দাম, অস্বস্তিতে নিম্ন আয়ের মানুষ

0
91

এম এ মাসুদ, সুন্দরগঞ্জ(গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে বন্যা পরবর্তীকালে পেঁয়াজ, রসুন, আদার দাম না বাড়লেও বেড়েছে মরিচের ঝাঁজ, সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে আলু, পটল, বেগুন, করলা, ঢেঁড়স, ঝিঙা, মুলা, পেঁপেসহ বিভিন্ন শাক-সবজির দামও। আর এসব ভোগ্য দ্রব্যের এমন অস্বাভাবিক দাম বৃদ্ধিতে অস্বস্তিতে পড়েছেন স্থির ও নিম্ন আয়ের মানুষ।

বুধবার বিকেলে পৌরসভার সুন্দরগঞ্জ, মীরগঞ্জ পাইকারী ও খুচরা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রকারভেদে প্রতি কেজি আলু পাইকারী বাজারে ৩৫-৪০ টাকা, খুচরা বাজারে তা ৪০-৪৫ টাকা দরে বিক্রয় হচ্ছে । মরিচ প্রতি কেজি পাইকারী ১২০ টাকা, খুচরা ১৬০-২০০ টাকা।করলা প্রতি কেজি পাইকারী ৭০ টাকা, খুচরা ৮০ টাকা। পটল পাইকারী ৩৫ টাকা, খুচরা ৪০ টাকা। মূলা পাইকারী ৩৫ টাকা, খুচরা ৪০-৪৫ টাকা। ঝিঙা পাইকারী ৩৫ টাকা, খুচরা ৪৫-৫০ টাকা। বেগুন প্রতি কেজি পাইকারী ৫০ টাকা, খুচরা ৬০ টাকা ও প্রতি কেজি পেঁপে পাইকারী ২০ টাকা এবং তা খুচরা বাজারে ২৫ টাকা দরে বিক্রয় হচ্ছে।

তবে কয়েক মাস ধরে স্থির রয়েছে পেঁয়াজ ও রসুনের দাম। এর আগে আদার বাজারে অস্থিরতা দেখা দিলেও নতুন আদা বাজারে আসায় কমেছে আদার দামও। প্রতি কেজি আদা খুচরা বাজারে বিক্রয় হচ্ছে ১২০-১৪০ টাকা।

নিত্য প্রয়োজনীয় এসব খাদ্য দ্রব্যের দামের বৃদ্ধিতে নিম্ন ও স্থির আয়ের মানুষের মাঝে দেখা দিয়েছে অস্বস্তি। ব্যবসায়ীরা বলছেন, ‘ বন্যার কারণে শাক-সবজি নষ্ট ও সরবরাহ কমে যাওয়ায় দামের এ বৃদ্ধি ঘটেছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সৈয়দ রেজা ই মাহমুদ তরঙ্গ নিউজকে জানান,’ উপজেলায় ৬০০ হেক্টর জমিতে সবজি চাষ করা হলেও ৬ দশমিক ৫০ হেক্টর সবজি ক্ষেত ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। তবে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে বন্যাদুর্গত এলাকার ২ হাজার কৃষককে বিনামূল্যে সবজি বীজ সরবরাহ করা হবে। আশা করি অল্প সময়ের মধ্যে দাম কমে আসবে।