রাত ৪:৫১ বৃহস্পতিবার ২১শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ঘুর্নিঝড় বুলবুল প্রবল শক্তিসঞ্চার করে মোংলা উপকুলে ধেয়ে আসছে

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : নভেম্বর ৮, ২০১৯ , ৫:৪৭ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : খুলনা
পোস্টটি শেয়ার করুন

মোংলা প্রতিনিধিঃ ঘুর্নিঝড় বুলবুল প্রবল শক্তিসঞ্চার করে মোংলা বন্দরসহ সুন্দরবন উপকুলে ধেয়ে আসছে। এ ঘুর্নিঝড়ের প্রভাবে রাত থেকে দুপুর পর্যন্ত হামলা মাঝারি বৃস্টি অব্যহত রয়েছে। এ ঘুর্নিঝড় নিয়ে উপকুলীয় এ জনপদের মানুষের মধ্যে অজানা আতংক বিরাজ করছে। ইতিমধ্যে ঘুর্নিঝড়ের প্রভাব মোকাবেলায় মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ, উপজেলা প্রশাসন ও মোংলা পোর্ট পৌর সভার উদ্যেগে পৃথক ৫টি কন্টোল রুম খোলা হয়েছে।

আজ দুপুরে শহরের উপজেলা ও পৌর প্রশাসনের উদ্যোগে মাকিং করে জনসাধারনকে নিরাপদ আশ্রয় গ্রহন ও প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহনের জন্য বলা হয়েছে। মোংলা পৌর এলাকায় সহ উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে প্রস্তুত রাখা হয়েছে ৩৬ টি আশ্রয় কেন্দ্র এবং সিপিপির ৯৯০ জন স্বেচ্ছাসেবক।

ঘুর্নিঝড়ের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে বন্দর কর্তৃপক্ষ ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যেগে বিকাল ৪ টায় পৃথক সভা আহবান করা হয়েছে। এ দিকে মোংলা বন্দরের পশুর চ্যানেল ও বহিনোঙ্গরে অবস্থানরত দেশী-বিদেশী বানিজ্যিক জাহাজ সমূহকে বেতার বার্তায় সর্তক থাকার পরামর্শ দিয়েছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

অপর দিকে সুন্দরবন সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত প্রায় ১০ হাজার মৌসুমি শুটকী জেলে চরম ঝুকির মুখে রয়েছে। দুবলার চলাঞ্চালে পর্যাপ্ত আশ্রায় কেন্দ্র না থাকায় শংকার মধ্যে রয়েছে এ সক জেলে ও শ্রমিক এবং ব্যবসায়ীরা।

সমুদ্র প্রচন্ড উত্তাল থাকায় অংসখ্য শিসিং ট্রলার ও জেলেরা তীরে ফিরে আসছে এবং সুন্দরবনের অভ্যন্তরের ছোট ছোট বিভিন্ন খালে আশ্রয় নিয়েছে। দুবলা ফিস্যারম্যান গ্রুপের চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন মুঠোফোনে জানান, গত রাত ১ টার দিকে দুবলার চরাঞ্চল সংলগ্ন সাগরে আকস্মিক টের্নোডো আঘাত হানে । এতে একটি ফসিং ট্রলার ডুবে অন্তত ৭ জেলে নিখোঁজ হয়েছে। সমুদ্র থেকে ভাসমান অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে চট্রগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার বাসিন্দা।

Comments

comments