জাকাতের ফজিলত

0
146

জাকাত ইসলামের মৌলিক পাঁচটি স্তম্ভসমূহের অন্যতম একটি। এর আভিধানিক অর্থ পবিত্র হওয়া, বৃদ্ধি পাওয়া। জাকাতের শাব্দিক অর্থ হলো পবিত্র হওয়া, বৃদ্ধি পাওয়া। যেহেতু জাকাত প্রদানের মাধ্যমে মানুষ কৃপণতা, সম্পদের মোহ ইত্যাদি আধ্যাত্মিক ব্যাধি থেকে পবিত্রতা লাভ করে, অবশিষ্ট সম্পদ পবিত্র হয় এবং বৃদ্ধি পায়, তাই জাকাতকে জাকাত বলে। তবে যেকোনো ধরনের বৃদ্ধি পাওয়াকে জাকাত বলা হয় না। বরং আল্লাহ প্রদত্ত বরকতে যে প্রবৃদ্ধি হয়, সেটাকেই জাকাত বলে।

আল্লামা যাগেব ইস্পাহানী (রহ.) বলেন, জাকাতের মূল অর্থ হচ্ছে, আল্লাহ প্রদত্ত বরকতে প্রবৃদ্ধি। (আল মুফরাদাত ফী গরিবিল কোরআন: ২১৮)।

শরিয়তের পরিভাষায় জাকাত বলা হয় প্রাপ্তবয়স্ক, সুস্থ মস্তিষ্কসম্পন্ন নেসাব পরিমাণ বর্ধনশীল সম্পদের অধিকারী প্রত্যেক মুসলমান ব্যক্তির পক্ষ থেকে উক্ত নেসাবের ওপর পূর্ণ এক চন্দ্র বছর অতিবাহিত হলে, শরিয়ত কর্তৃক নির্ধারিত অংশ নির্দিষ্ট ব্যক্তিদের মালিক বানিয়ে দেওয়া। (ফাতাওয়া হিন্দিয়া: ১/১৭৭)

আল্লামা ইবনে হাজার আসকালানি (রহ.) বলেন,

‘জাকাত শরিয়তের এমন এক অকাট্য বিধান, যে ব্যাপারে দলিল-প্রমাণের আলোকে আলোচনার প্রয়োজন নেই। জাকাতের শাখাগত কিছু মাসআলায় ইমামদের মধ্যে মতভিন্নতা থাকলেও মৌলিক বিষয় সম্পর্কে কোনো মতভেদ নেই। যে ব্যক্তি জাকাত ফরজ হওয়াকে অস্বীকার করে, সে ইসলাম থেকে খারিজ হয়ে যায়।’ (ফাতহুল বারি ৩/৩০৯)

পবিত্র কোরআনুল কারিমের কমপক্ষে ৩২ স্থানে জাকাত শব্দের উল্লেখ রয়েছে এবং অন্তত ২৯ স্থানে নামাজের পাশাপাশি জাকাত প্রদানের নির্দেশ দিয়েছেন। শুধু দুই স্থানে কেবল জাকাত শব্দের উল্লেখ আছে; সালাতের কথা নেই।

আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘তোমরা সালাত আদায় কর, জাকাত প্রদান কর এবং আল্লাহ তা’আলার দ্বীনকে আঁকড়ে ধরো’ (সুরা হজ ৭৮)

অপর আয়াতে আল্লাহ মুমিনদের গুণাবলি উল্লেখ পূর্বক ইরশাদ করেন: এগুলো সুস্পষ্ট গ্রন্থ কোরআনের আয়াত, তা পথ প্রদর্শক ও সুসংবাদদাতা মুমিনদের জন্য। যারা নামাজ কায়েম করে এবং জাকাত আদায় করে। আর এরাই প্রকৃতপক্ষে আল্লাহ তা’আলার প্রতি বিশ্বাস রাখে। (সুরা নামল ১-৩)

হাদিস শরিফে এসেছে রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন: “পাঁচটি স্তম্ভের ওপর ইসলামকে স্থাপন করা হয়েছে।

১. এ কথার সাক্ষ্য দেওয়া যে, আল্লাহ ব্যতীত কোনো মাবুদ নেই এবং মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আল্লাহর বান্দা ও তাঁর রাসুল। ২. নামাজ কায়েম করা। ৩. জাকাত প্রদান করা। ৪. হজ করা। ৫. রমজানের রোজা রাখা। সহিহ বুখারি ১/৬, সহিহ মুসলিম ১/৩২

জাকাত প্রদানের ফজিলত ও পরকালীন ফায়দা

কোরআন ও হাদিসে জাকাত প্রদানের বহু ফজিলত বর্ণিত হয়েছে। এক হাদিসে এসেছে, হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘যে ব্যক্তি কোনো জিনিসের এক জোড়া আল্লাহ তায়ালার রাস্তায় দান করবে তাকে কেয়ামতের দিন জান্নাতের সব দরজা দিয়ে আহ্বান করা হবে। আর জান্নাতের অনেক (আটটি) দরজা রয়েছে। সুতরাং যে ব্যক্তি নামাজিদের অন্তর্ভুক্ত হবে। তাকে নামাজের দরজা দিয়ে আহ্বান করা হবে। যে ব্যক্তি মুজাহিদদের দলভুক্ত হবে তাকে জিহাদের দরজা দিয়ে আহ্বান করা হবে। যে ব্যক্তি দান-সদকাকারীদের (জাকাত প্রদান কারীদের) অন্তর্ভুক্ত হবে, তাকে দান-সদকা (জাকাতের দরজা দিয়ে আহ্বান করা হবে)। যে ব্যক্তি রোজাদারদের অন্তর্ভুক্ত হবে, তাকে রাইয়ান নামক দরজা দিয়ে আহ্বান করা হবে। (সহিহ বুখারি ১/১৫৪)

জাকাত ও দান-সদকা আল্লাহ তাআলার ক্ষোভের আগুন নিভিয়ে দেয়।

হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন। নিঃসন্দেহে দান-সদকা (জাকাত) আল্লাহ তাআলার ক্ষোভের আগুন নিভিয়ে দেয় এবং অপমৃত্যু থেকে রক্ষা করে। (তিরমিজি শরিফ ১/১৪৪)

জাকাত প্রদানের মাধ্যমে বহু গুণ সওয়াব পাওয়া যায়

আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘তোমাদের মধ্যে যারা আল্লাহ তাআলার সুন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে জাকাত প্রদান করে, তারাই আল্লাহ তাআলার নিকট দিগুণ সওয়াব প্রাপ্ত হবে। (সুরা: রুম ৩৯)

জাকাত প্রদানের পার্থিব ফায়দা

জাকাত প্রদানের দ্বারা যেমনিভাবে পরকালীন ফায়দা অর্জিত হয়, তেমনিভাবে পার্থিব ফায়দাও হয়। জাকাত প্রদানের দ্বারা সম্পদ বৃদ্ধি পায়।

আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন: আল্লাহ তাআলা সুদকে নিশ্চিহ্ন করেন এবং দান-খায়রাতকে (জাকাত) বৃদ্ধি করেন। (সুরা বাকারা ২৬৬)

আরেক হাদিসে এসেছে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন: দান-সদকা (জাকাত) সম্পদকে কমিয়ে দেয় না। বরং মালকে বহুগুণে বৃদ্ধি করে দেয়। সহিহ মুসলিম ২/৩১১

জাকাত প্রদানের দ্বারা সম্পদ পবিত্র হয় এবং রাসুল রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের দোয়া পাওয়া যায়।

আল্লাহ তাআলা বলেন: ‘হে নবী! আপনি তাদের সম্পদের জাকাত গ্রহণ করুন। যা তাদেরকে (জাকাতের মাধ্যমে পবিত্র ও পরিশুদ্ধ করবে এবং তাদের জন্য রহমতের দোয়া করুন। নিশ্চয়ই আপনার দোয়া তাদের জন্য শান্তিস্বরূপ। (সুরা তাওবা : ১০৩)

জাকাত প্রদানের দ্বারা বিপদাপদ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়

হজরত জাবের (রা.) বলেন, ‘এক ব্যক্তি বললেন ইয়া রাসুলুল্লাহ! যদি কোনো ব্যক্তি তার সম্পদের জাকাত আদায় করে। তাহলে এর দ্বারা তার কী সত্তয়াব হবে? তখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, যে ব্যক্তি তার সম্পদের জাকাত আদায় করবে, এর দ্বারা তার সম্পদ থেকে অনিষ্টতা দূর হয়ে যাবে।

আত তারগিব ওয়াত তারহিব ১১১২

এ ছাড়া জাকাতের আরও বিভিন্ন উপকারিতা রয়েছে। মুমিন বান্দা নফসের মাধ্যমে যেমন আল্লাহর আবদিয়্যাত ও দাসত্ব প্রকাশ করে, যাতে সে রহমত প্রাপ্ত হয় তেমনি জাকাত প্রদানের মাধ্যমেও বান্দা একথার স্বীকৃতি প্রদান করে যে, তার কাছে টাকা পয়সা, ধন সম্পদ যা কিছু আছে, সবকিছুর প্রকৃত মালিক কেবল আল্লাহ।

অনুরূপ জাকাত আদায়ের মাধ্যমে অসহায় গরিব মিসকিনদের সহায়তা করা হয়। মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে সমাজের বিত্তশালীদের ওপর এটি একটি বড় দায়িত্ব। জাকাত আদায়ের দ্বারা এই মানবিক দায়িত্বের বহিঃপ্রকাশ ঘটে এবং এর মাধ্যমে ধন-সম্পদের প্রতি মোহ ও লোভ লালসা অন্তর থেকে দূর হয়ে যায়।

জাকাত প্রদানের মাধ্যমে সমাজের শ্রেণিবিশেষের হাতে সম্পদ পুঞ্জিভূত হওয়া থেকে রক্ষা পায়। সমাজের সব শ্রেণির মানুষের হাতে সম্পদ বিদ্যমান থাকে। মানুষের জীবনযাত্রার পথ সুগম হয়। সমাজে শান্তি ও নিরাপত্তা আসে।

জাকাত না দেওয়ার পরকালীন ক্ষতি

আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন: যারা স্বর্ণ ও রৌপ্য জমা করে রাখে এবং তা আল্লাহর পথে ব্যয় করে না, তাদেরকে আপনি যন্ত্রণাদায়ক শাস্তির সুসংবাদ দিন। যেদিন সেগুলো উত্তপ্ত করে তা দ্বারা তাদের মুখমণ্ডল, পার্শ্ব ও পিঠে দাগ দেওয়া হবে (এবং বলা হবে) এগুলো তোমাদের সেই সম্পদ, যা তোমরা নিজেদের জন্য কুক্ষিগত করে রেখেছিলে। এখন তোমরা নিজেদের অর্জিত সম্পদের স্বাদ আস্বাদন কর। সুরা তাওবা :৩৪-৩৫

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন আল্লাহ তাআলা যাকে ধন সম্পদ দিয়েছেন সে যদি তার সম্পদের জাকাত আদায় না করে, তাহলে তার সম্পদকে কেয়ামতের দিন টাকপড়া বিষধর সাপে রূপ দেওয়া হবে যার চোখের উপর দুটি কালো দাগ থাকবে। কিয়ামতের দিন সেই সাপকে তার গলায় পেঁচিয়ে দেওয়া হবে। অতঃপর সাপ তার মুখে দংশন করতে থাকবে এবং বলবে আমি তোমার সম্পদ, আমি তোমার সঞ্চয়। অন্য এক হাদিসে এসেছে, যে জাকাত আদায় করবে না কিয়ামতের দিন সে ব্যক্তি জাহান্নামে জ্বলবে।

জাকাত না দেওয়ার পার্থিব ক্ষতি

আল্লাহ তাআলা যাকে ধন-সম্পদ দিয়েছেন সে যদি এগুলোর জাকাত আদায় না করে, তাহলে সে যেমন আখেরাতের ভয়াবহ যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি ভোগ করবে, তেমনিভাবে জাকাত না দেওয়ার কারণে দুনিয়াতেও বহু ক্ষতির সম্মুখীন হবে।

জাকাত না দিলে সম্পদ ধ্বংস হয়ে যায়

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন: স্থলভাগে ও সমুদ্রে যত মাল ধ্বংস হয় তা জাকাত না দেওয়ার কারণেই। অপর এক হাদিসে এসেছে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন

“যে মালে জাকাত মিশবে সে মাল ধ্বংস হয়ে যাবে। আত তারগিব ওয়াত তারহিব, হাদিস: ১১৫৪

জাকাত না দিলে দুর্ভিক্ষ আসে

হজরত বুরাইদা (রা.) থেকে বর্ণিত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, যে সম্প্রদায় জাকাত দিতে অস্বীকার করবে, আল্লাহ তাআলা তাদেরকে ক্ষুধা ও দুর্ভিক্ষে নিমজ্জিত করবেন। আত তারগিব -১১৫৬

জাকাত ইসলামের অন্যতম ভিত্তি, অবশ্যপালনীয় ইবাদত। পবিত্র কোরআন ও হাদিস শরিফে জাকাতের ইহকালীন- পরকালীন বিভিন্ন উপকারিতা এবং অনাদায়ে বিভিন্ন ক্ষতি ও ভয়াবহ পরিণামের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। অথচ এই মহাগুরুত্বপূর্ণ ইবাদত পালনের ব্যাপারে আমাদের সমাজে অবহেলা লক্ষ করা যায়। অনেকে তো জাকাত আদায়ই করে না। কোন কোন সম্পদের জাকাত দিতে হবে- এ ব্যাপারে অনেকের সুস্পষ্ট ধারণাও নেই। অপরদিকে যারা জাকাত প্রদান করে, তারা অনেক সময় ব্যয়ের সঠিক খাতে দেয় না। অথচ সঠিক খাত পর্যন্ত না পৌঁছালে তার জাকাতই আদায় হবে না। ফলে সামাজের অনেকেই বাহ্যত জাকাত আদায় করে। অনাদায়ের গুনাহগার থেকে যায়। আর এ সব কিছুই হচ্ছে জাকাতের ব্যাপারে চরম উদাসীনতা ও অজ্ঞতার ফসল। তাই এমনভাবে জাকাত আদায় করতে হবে, যাতে তা সঠিক খাতে পৌঁছায়। তাহলেই জাকাত আদায় হবে এবং এর সুফল পাওয়া যাবে।

জাকাত কার ওপর ফরজ

প্রাপ্ত বয়স্ক, সুস্থ মস্তিষ্কসম্পন্ন প্রত্যেক মুসলিম নর-নারী যার মালিকানা সত্ত্বেও ঋণ ব্যতীত নিত্য প্রয়োজনের অতিরিক্ত নেসাব পরিমাণ বর্ধনশীল সম্পদ থাকবে এবং সে সম্পদের উপর পূর্ণ এক চন্দ্র বছর অতিবাহিত হবে। তার উপর জাকাত আদায় করা ফরজ হবে। ফাতওয়ায়ে হিন্দিয়া: ১/১৭১

জাকাতের নেসাব

১. স্বর্ণের নেসাব: কারো মালিকানায় যদি ২০ দিনার তথা ৭.৫ তোলা স্বর্ণ থাকে, তাহলে তার ওপর জাকাত ফরজ। আধুনিক পরিমাপ অনুযায়ী যা ৮৭.৪৮ গ্রাম হয়ে থাকে। অতএব কারো মালিকানায় ন্যূনতম এ পরিমাণ স্বর্ণ থাকলে তার ওপর জাকাত ফরজ। তার জাকাতযোগ্য সমুদয় সম্পদের ২.৫০% হিসাবে জাকাত আদায় করতে হবে। জাওয়াহিরুল ফিকহ ১/৪২৩ কাযিখান : ১/১১৯

২. রুপার নেসাব: রুপার নেসাব হলো দুইশত দিরহাম। কারো মালিকানায় যদি দুইশত দিরহাম, আধুনিক পরিমাপ অনুযায়ী ৬১২.৩৬ গ্রাম রূপা থাকে, তাহলে তার ওপর জাকাত ফরজ।

নগদ ক্যাশ ও ব্যবসা পণ্যের নেসাব।

সোনা-রুপা ব্যতীত অন্যান্য সম্পদ যেমন: টাকা-পয়সা, ব্যবসা পণ্য ইত্যাদিতে সোনা বা রুপার উপরোক্ত নেসাবের মূল্য ধর্তব্য হবে। এ ক্ষেত্রে নিয়ম হলো, যা ধরা হলে জাকাত ফরজ হবে (অর্থাৎ যে নেসাবের মূল্য কম হবে সতর্কতামূলক) তাই ধরতে হবে।

একাধিক প্রকার সম্পদের সংমিশ্রণ থাকলে জাকাতের নেসাব

কারো মালিকানায় যদি জাকাতযোগ্য বিভিন্ন সম্পদ থাকে যেমন কিছু সোনা-রুপা কিছু নগদ ক্যাশ ইত্যাদি, তাহলে এ ক্ষেত্রে সোনা-রুপার যে নেসাব ধরা হলে জাকাত ফরজ হবে তাই ধর্তব্য হবে। যেমন কারো নিকট ১ তোলা স্বর্ণ, ২ তোলা রুপা ও কিছু নগদ টাকা আছে, তাহলে সবগুলোর মূল্য হিসাব করলে স্বর্ণের নিসাব সমমূল্যের তো হবে না তবে রুপার নেসাব সমমূল্য পরিমাণ হবে। তো তার ওপর রুপার নেসাব বিবেচনা করে জাকাত ফরজ হবে। অর্থাৎ একাধিক সম্পদের সংমিশ্রণ থাকলে জাকাতের সর্বনিন্ম নেসাব ধর্তব্য হবে।

উল্লেখ্য যে বর্তমানে যেহেতু রুপার মূল্য কম, তাই রুপার নেসাবই চূড়ান্ত বিবেচিত হবে।

যেসব জিনিসের ওপর জাকাত ফরজ হয়

১. সব ধরনের সম্পদ ও সামগ্রীর ওপর জাকাত ফরজ হয় না। শুধু সোনা-রুপা, টাকা-পয়সা, পালিত পশু (নির্ধারিত নিয়ম অনুযায়ী এবং ব্যবসার পণ্যে জাকাত ফরজ হয়।

২. সোনা-রুপার অলংকার সর্বদা বা কালেভদ্রে ব্যবহৃত হোক কিংবা একেবারেই ব্যবহার না করা হোক সর্বাবস্থায়ই তার জাকাত দিতে হবে। (সুনানে আবু দাউদ ১/২৫৫; সুনানে নাসায়ী)

৩. অলংকার ছাড়া সোনা-রুপার অন্যান্য সামগ্রীর ওপরও জাকাত ফরজ হয়। (মুসান্নাফে আবদুর রাজ্জাক, হাদিস ৭০৬১; ৭০৬৬; ৭১০২)

৪. জামাকাপড়় কিংবা অন্য কোনো সামগ্রীতে সোনা-রুপার কারুকাজ করা থাকলে তা-ও জাকাতের হিসাবের অন্তর্ভুক্ত হবে এবং যে পরিমাণ সোনা-রুপা কারুকাজে লেগেছে অন্যান্য জাকাতযোগ্য সম্পদের সঙ্গে, তারও জাকাত দিতে হবে। (মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, হাদিস: ১০৬৫১)

সোনা-রুপা ছাড়া অন্য কোনো ধাতুর অলংকার ইত্যাদির ওপর জাকাত ফরজ নয়। তদ্রূপ হিরা, মণি-মুক্তা ইত্যাদি মূল্যবান পাথর ব্যবসাপণ্য না হলে সেগুলোতেও জাকাত ফরজ নয়। (মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা ৬/৪৪৭-৪৪৮)

৫. মৌলিক প্রয়োজন থেকে উদ্ধৃত্ত টাকা-পয়সা নিসাব পরিমাণ হলে এবং এক বছর স্থায়ী হলে বছর শেষে তার জাকাত আদায় করা ফরজ হয়। (মুসান্নাফে আবদুর রাজ্জাক ৭০৯১)

তদ্রুপ ব্যাংক ব্যালান্স, ফিক্সড ডিপোজিট, বন্ড, সার্টিফিকেট ইত্যাদিও নগদ টাকা-পয়সার মতোই। এ সবের ওপরও জাকাত ফরজ হয়।

৬. টাকা-পয়সা ব্যবসা-বণিজ্যে না খাটিয়ে এমনি রেখে দিলেও তাতে জাকাত ফরজ হয়। (আদ্দুররুল মুখতার ২/২৬৭; রদ্দুল মুহতার ২/২৬২,৩০০)

৭. হজের উদ্দেশ্যে কিংবা ঘরবাড়ি নির্মাণ, ছেলে-মেয়ের বিয়েশাদি ইত্যাদি প্রয়োজনের জন্য যে অর্থ সঞ্চয় করা হচ্ছে তা-ও এর ব্যতিক্রম নয়। সঞ্চিত অর্থ পৃথকভাবে কিংবা অন্যান্য জাকাতযোগ্য সম্পদের সঙ্গে যুক্ত হয়ে নিসাব পরিমাণ হলে এবং নিসাবের ওপর এক বছর অতিবাহিত হলে জাকাত ফরজ হবে। বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই তা যদি খরচ হয়ে যায় তাহলে জাকাত ফরজ হবে না। (মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদিস ১০৩২৫)

৮. দোকানপাটে যা কিছু বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে রাখা থাকে, তা বাণিজ্য-দ্রব্য। এর মূল্য নিসাব পরিমাণ হলে জাকাত আদায় করা ফরজ। (সুনানে আবু দাউদ ১/২১৮)

৯. ব্যবসার নিয়তে কোনো কিছু ক্রয় করলে তা স্থাবর সম্পত্তি হোক যেমন জমিজমা, ফ্ল্যাট কিংবা অস্থাবর যেমন মুদি সামগ্রী, কাপড়চোপড় অলংকার, নির্মাণ সামগ্রী, গাড়ি, ফার্নিচার, ইলেক্ট্রনিক সামগ্রী, হার্ডওয়ার সামগ্রী, বইপুস্তক ইত্যাদি, তা বাণিজ্যদ্রব্য বলে গণ্য হবে এবং মূল্য নিসাব পরিমাণ হলে জাকাত দেওয়া ফরজ হবে। (মুসান্নাফে আবদুর রাজ্জাক হাদিস ৭১০৩)

১০. ডেভেলপমেন্ট লোন

সাধারণত জাকাতযোগ্য কোনো কর্জ বা লোন থাকলে তা জাকাতের হিসাব থেকে বিয়োগ করার বিধান রয়েছে। কিন্তু শিল্পবিপ্লবের এ যুগে কর্জের ধরনই বদলে গেছে। এখন বড় বড় ধনাঢ্য ব্যক্তিরাই সবচেয়ে বেশি ঋণী। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো মোটা অঙ্কের ঋণ দেওয়ার জন্য তাদেরই বাছাই করে থাকে। তারা বড় বড় শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার জন্য এবং বাণিজ্যিক ভিত্তিতে বিশাল বিশাল অট্টালিকা নির্মাণের জন্য কোটি কোটি টাকার লোন গ্রহণ করে থাকে। পরিভাষায় এগুলো হল ডেভেলপমেন্ট বা উন্নয়নমূলক লোন। জাকাতের হিসাবের সময় ডেভেলপমেন্ট লোন বিয়োগ হবে না। বরং হিসাব করে জাকাতের আওতাভুক্ত করতে হবে।

রমজান মাসে জাকাত প্রদান।

সাধারণত মানুষ রমজান মাসে স্বীয় সম্পদের জাকাত হিসাব করে রমজানেই তা প্রদান করে থাকে। এর কারণে সত্তর ফরজ আদায় করার সওয়াব পাওয়া যায়। জাকাত যেহেতু ফরজ, তাই রমজানে তা আদায় করলে সত্তর গুণ সওয়াব বেশি পাওয়া যাবে। এ ধারণা সঠিক। তবে নেসাবের মালিক হওয়ার তারিখ জানা থাকলে শুধু এই অজুহাতে জাকাতের তারিখ রমজানে নির্ধারণ করা যাবে না। তাকে নির্ধারিত তারিখেই জাকাত হিসাব করে আদায় করতে হবে। অবশ্য জাকাত প্রদানের ক্ষেত্রে ধীরে ধীরে প্রদান করে অবশিষ্ট জাকাত রমজান শরিফে আদায় করা যেতে পারে। তবে হ্যাঁ, যদি কারো নেসাবের মালিক হওয়ার দিন-তারিখ স্মরণ না থাকে, তাহলে রমজানুল মোবারকের কোনো তারিখকে বেছে নেওয়া যেতে পারে।

লেখক: ইসলামী চিন্তাবিদ