সকাল ৬:৫৮ শনিবার ১৬ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

পিতার হাত ধরে রাজনীতিতে আসা সেই ছোট্ট খোকা আজ যুবলীগের উজ্বল নক্ষত্র

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ৩০, ২০১৯ , ৩:২৮ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিশেষ প্রতিবেদন
পোস্টটি শেয়ার করুন

এস. এম. মনির হোসেন জীবন : ছেলে বেলায় পিতার হাত ধরে ছাত্র রাজনীতিতে আসা সেই ছোট্ট খোকা আজ ঢাকা মহানগর উত্তর ’’তুরাগ থানা আওয়ামী যুবলীগের মো: নাছির উদ্দিন নাছিম ওরফে তুরাগ নাসির’’।

আজ বুধবার সকালে রাজধানী তুরাগে আমাদের বিশেষ প্রতিনিধি এস. এম. মনির হোসেন জীবনের সাথে এক বিশেষ সাক্ষাতকারে তুরাগ থানা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক মো: নাছির উদ্দিন নাছিম এসব কথা বলেন।

যুবলীগ নেতা নাছির উদ্দিন নাছিম বলেন, রাজধানীর তুরাগ থানার সাবেক ৫ নং ওয়ার্ড বর্তমানে ডিএনসিসি ৫৩ নম্বর ওয়ার্ড চন্ডার ভোগ গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা মো: লেহাজ উদ্দির ছেলে নাছির উদ্দিন নাছিম বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে বাবার হাত ধরে আমি ছাত্র রাজনীতিতে আমার আগমন ঘটে।

তিনি বলেন, ১৯৯৫ সালে ৫ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ লাভ করি। পরবতী সময়ে টঙ্গী সরকারী কলেজে অধ্যায়নরত অবস্থায় বাংলাদেশ থেকে সপরিবারে দক্ষিণকোরিয়ায় গমন করি। সেখানে গিয়ে ও আমি রাজনীতির নেশা ছাড়তে পারিনি। নেশার টানে আমি পরবতীতে ২০০০ সালে দক্ষিণকোরিয়ার বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক পদে নির্বাচিত হই। এরপর ২০০১ সালে যুগ্ন সাধারণ সম্পাদ পদ লাভ করি।

নাছির উদ্দিন নাছিম বলেন, প্রবাসে থাকাকালীন সময়ে আমি কোরিয়ার আনছান সিটিতে বাংলাদেশী প্রবাসীদের নিয়ে একটি মসজিদ নির্মান করি। সেখানে আমি বাংলাদেশী প্রবাসীদের পক্ষে বিভিন্ন সময় তাদের ন্যাযদাবী আদায়ের লক্ষে কাজ করেছি।

দীর্ঘ ৭ বছর থাকার পর ২০০৩ সালে আমি দেশে ফিরে আসি। ২০০৪ সালে বৃহত্তর উত্তরা থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও হরিরামপুর ইউনিয়র পরিষদের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্বা মো: আবুল হাসিম এর হাত ধরে বৃহত্তর উত্তরা থানা আওয়ামী যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য নির্বাচিত হই। এরপর থানা বিভক্ত হওয়ার পর ২০০৬ সালে আমি হরিরামপুর ইউপি আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক পদ লাভ করি। এরপর ২০১২ সালে আমার রাজনীতির কর্মদক্ষতা, মেধা ও দলীয় মূল্যয়ন করে আমাকে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী যুবলীগ তুরাগ থানার যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক নির্বাচিত করেন।

তুরাগ থানা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক নাছির উদ্দিন নাছিম বলেন- ২০১২ সালের আমাকে একজন তৃণমূল নেতা ও দলীয় ভাবে কাজের পারফরমেন্স দেখে যুবলীগ আমাকে মূল্যায়ন করে । পরবর্তী সময়ে যুবলীগ চেয়ারম্যান আলহাজ মো: ওমর ফারুক চৌধুরী উত্তরায় এক অনুষ্ঠানে ’’ তুরাগ নাছির খ্যাতাবি’’ উপাদিতে ভুষিত করে। এরপর থেকে আমি সেই উৎসাহ আর উদ্দীপনা নিয়ে অদ্যবধি পর্যন্ত দলের জন্য জীবন বাজী রেখে কাজ করছি।

আমার পরিবার হল রাজনৈতিদক দলের পরিবার উল্লেখ করে যুবলীগ নেতা নাসির বলেন, ১৯৯৫ সালে বিএনপির শাসনামলে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার উত্তরায় গেইট ভাংচুরের ঘটনায় আমার পিতা আওয়ামীলীগ কর্মী মো: লেহাজ উদ্দিনকে ওই মামলায় আসামী করা হয়। পরবর্তীতে আমার বাবা ৩মাস ডিটেনশন খাটেন। সে দিন ১৯৯৫ সালের আমি এসএসসি পরীক্ষা চলাকালীন সময় বাবাকে জেলে রেখে পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করি। তখন চোখের পানি জড়াতে জড়াতে মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়েছিলাম। তৎকালীন সময়ে স্থানীয় এমপি’র কাছে গিয়েও কোনো ধরনের সহযোগিতা পাইন।

তিনি আরও বলেন, আমি ও আমার পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন সময় মিথ্যা মামলা সহ অহেতুক ভাবে হয়রানীর শিকার হই। আমার পরিবার হল নির্যাতিত পরিবার।

পারিবারিক জীবনের কষ্টের কথা তুলে ধরে যুবলীগ নেতা নাছির বলেন, বাবাকে জেলে রেখে আমি এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে ফার্স্ট ডিভিশন পেয়েছিলাম। ২০০৬ সনে বিএনপি যখন ক্ষমতায় আমাদের পরিবারকে ধ্বংস করার জন্য এলাকার বিএনপি’র বড় বড় নেতারা আমাদের পরিবারের সবাইকে একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করেছে। আমরা তখন বাড়িতে থাকতে পারিনি ঢাকা শহর পালিয়ে পালিয়ে ঘুরেছিলাম।

তখন শুধু মামলা দিয়েই ক্ষান্ত হননি তারা। সে সময় আমি হারিয়েছি আমার ছোট চাচাকে তার লাশ দাফন করতে ও পারেনি। তখন আমি বাসায় এসে আমার অসুস্থ দাদীকে দেথতে পাই। পরিবারের নির্যাতন,অহেতুক পুলিশী হয়নারী আর পুত্র ছেলে সহ পরিবারের শোকে আরও বেশি অসুস্থ হয়ে পরবর্তী সময়ে ইন্তেকাল করেছেন।। সে দিন কি দোষ ছিল আমার ও আমার পরিবারের ।

তৃণমূল পর্যায়ের দলের পরিক্ষিত যুবলীগ নেতা নাছির উদ্দিন নাছিম বলেন, সেই দিন কোথায় ছিলেন দলের হাইব্রিড ও নভ্য আওয়ামীলীগ নেতারা। আজকে দল ক্ষতায় আসলে ও নব্য ও হাইব্রিড নেতারা পদে পদে সয়লাব হয়ে গেছে। সেই দিন তো আমার আওয়ামীলীগের দু:সময়ে বিপদের সময় কাউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। তাহলে কি দলের ত্যাগী নেতাদের কি কোন মূল্যায়ন থাকবেনা ?।

সামাজিক উন্নয়নের কথা তুলে ধরে যুবলীগ নেতা নাছির উদ্দিন নাছিম বলেন, আমি তুরাগ থানা সাবেক ৫ নম্বর ওয়ার্ডস্থ কমিউনিটি পুলিশের সাধারণ সম্পাদক, চন্ডালভোগ পুকুরপাড় আল হেলাল ইসলামিয়া মাদ্রাসার কমিটির পরপর দুইবার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। এছাড়া ২০০৮ সালের ডিয়াবাড়ি মডেল হাই স্কুলের নির্বাচিত অভিভাবক সদস্য নির্বাচিত হই। এছাড়া সমাজের বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের রাস্তাঘাট ড্রেন নির্মানে এলাকার মুরব্বিদের নিয়ে কাজ করে যাচিছ।

নাছির উদ্দিন নাছির বলেন, একটি সংগঠনকে শক্তিশালী করার জন্য যত ধরনের ত্যাগ আর পরিশ্রম করার দরকার ছিল সেটি আমি করে যাচিছ। আমাদের সমাজের এক শ্রেণীর কুৎসিত মনের মানুষ আমার রাজনীতি ক্যারিয়ার ধ্বংস করার জন্য মিথ্যা তথ্য দিয়ে আমাকে বিভিন্ন সময় অহেতুক ভাবে হয়রানী করছে, তার জন্য আমি নিন্দা জানাই।

তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন সময় গরিব-দুঃখীদের পাশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেই। আমি কোরিয়া থেকে যে জ্ঞান অর্জন করে দেশে এসেছি আমি সর্বদা চেষ্টা করি দেশের কল্যাণে লাগানোর জন্য কাজে লাগাতে। আমাকে অনেক মণেপ্রাণে ভালবাসেন। আমি কুরিয়াতে থাকা অবস্থায় দুইটি ভাইকে দক্ষিণ কোরিয়াতে নিয়েছি । আমার এক ভাই স্টুডেন্ট ভিসায় পড়াশুনার জন্য লন্ডনে পাঠিয়েছি। প্রায় ৯ বছর যাবত সে উখানে লেখা পড়া করছেন। আমার পরিবারের সকলে দেশে-বিদেশে ব্যবসায় জড়িত।

আগামী দিনে দলকে শক্তিশালী করার আশাবাদ ব্যক্ত করে যুবলীগের এই পরীক্ষিত নেতা নাছির উদ্দিন বলেন, যতই বাধা আসুক না কেন ? আগামী দিন গুলোতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী যুবলীগ শক্তিশালী করার জন্য তুরাগ থানা যুবলীগের প্রত্যেকটি ওয়ার্ডকে সাথে নিয়ে কাজ করে যাবো। পাশাপাশি তুরাগ থানা আওয়া যুবলীগকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলবো।

তুরাগের বলিষ্ঠ যুবলীগ নেতা নাছির উদ্দিন নাছিম বলেন, আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়ামের অন্যতম সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী এবং ঢাকা-১৮ আসনের (এমপি) এ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনের হাতকে বেগমান ও আরো শক্তিশালী করতে তুরাগের নেতাকর্মী ও মানুষকে ঐক্যবদ্ব হতে হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগ সভানেত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনা, ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সংগ্রামী সভাপতি মাইনুল ইসলাম খান নিখিল ও দলের সাধারণ সম্পাদক মো: ইসমাইল হোসেন ভাইয়ের নেতৃত্বে আমি যুবলীগ করছি।

এবিষয়ে তুরাগ থানা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহসভাপতি ও ডিএনসিসি ৫৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর বীরমুক্তিযোদ্বা আলহাজ মো: নাছির উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, তুরাগ থানা আওয়মী যুবলীগ একটি সুসংগঠিত দল।

তিনি বলেন, দলের পরীক্ষিত, ত্যাগী তৃণমূল পর্যায়ের পদ-পদবী প্রাপ্ত যুবলীগ নেতারা দলের জন্য নিরলস ভাবে কাজ করছেন। আমি ও আমার দলের নেতাকর্মীরা দলকে শক্তিশালী করার লক্ষে দিন রাত পরিশ্রম করে যাচেছন। আসন্ন আওয়ামী যুবলীগের সম্মেলনকে সামনে রেখে আগামী দিনে দলের পরিক্ষিত নেতাদের অবশ্যই শীর্ষ পর্যায়ের নেতা ও নীতি নির্ধারকরা এই বিষয়টিকে মাথায় রেখে তৃণমূল পর্যায়ের ত্যাগী, স্বচছ, সৎ, কর্মঠ, নিষ্ঠাবান ও পরিশ্রমী নেতাদেরকে মূল্যায়ন করবেন এমনটিই আমি আশা করি।

নিজেকে পারিবারিক ভাবে অনেকটা সুখি দাবি করে যুবলীগ নেতা নাছির উদ্দিন নাছিম বলেন, ১৯৭৯ সালের ২৫ মে রাজধানী তুরাগের সাবেক ৫ নং ওয়ার্ড চন্ডাল ভোগ গ্রামের এক মুসলিম পরিবারের জন্মগ্রহন করেন মো: নাছির উদ্দিন নাছিম। তার পিতার নাম মো: লেহাজ উদ্দিন। ৯ ভাই আর ১ বোনের মধ্যে নাছির সবার বড়। পারিবারিক ভাবে ২ পুত্র ও ১ কণ্যা সন্তানের জনক হলেন নাছির উদ্দিন নাছিম ওরফে তুরাগ নাছির।

Comments

comments