সকাল ৮:৪৬ মঙ্গলবার ১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

নেত্রকোনায় আওয়ামী যুবলীগের ৪৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত | নেত্রকোনায় জাতীয় পার্টি নেতাদের ঘরে অবরুদ্ধ করে রাখার হুঁশিয়ারি | রামপালে ঘূর্নিঝড় বুলবুল এর প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থ ৬৩৬ টি ঘরবাড়ি | নেত্রকোনায় হুমায়ুন আহমেদের ৭১তম জন্মবার্ষিকী পালিত | রাবিতে ইসলামের ইতিহাস বিভাগের মাস্টার্সের বিদায় সংবর্ধনা | ‘সুলতান মনসুর একজন বেঈমান’ | আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানতঃ শুষ্ক থাকতে পারে | অসুস্থ মতিউর রহমানের পাশে তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান | ছোটোখাটো নেতা হলেই গাড়ি-বাড়ির অভাব হয় না : রাষ্ট্রপতি | কুষ্টিয়ায় যুবলীগের ৪৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী অনুষ্ঠানে জননেতা আতাউর রহমান আতা |

ডিসিসিআইতে নিরাপদ ও হালাল খাদ্য নিশ্চিতকরন বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ২৬, ২০১৯ , ১০:১৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : অর্থ ও বাণিজ্য
পোস্টটি শেয়ার করুন

ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) আয়োজিত ‘নিরাপদ ও হালাল খাদ্য নিশ্চিতকরন : বর্তমান প্রেক্ষিত ও করণীয় নির্ধারন’ শীর্ষক সেমিনার ২৬ অক্টোবর, ২০১৯ তারিখে ডিসিসিআই অডিটোয়িামে অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে বাংলাদেশে নিযুক্ত সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূত মান্যবর সৈয়দ মোহাম্মদ আল-মুহাইরি গেষ্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ-এর চেয়ারম্যান সৈয়দা সারওয়ার জাহান এবং বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউন্ডেশন-এর মহাপরিচালক শামীম মোহাম্মদ আফজাল বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

স্বাগত বক্তব্যে ঢাকা চেম্বারের সভাপতি ওসামা তাসীর বলেন, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাংলাদেশের কৃষি ও খাদ্য উৎপাদান খাত হতে রপ্তানির পরিমান ছিল প্রায় ১.৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। তিনি বলেন, বাংলাদেশের রপ্তানি বৃদ্ধি এবং রপ্তানিমুখী পণ্যের সংখ্যা বাড়ানোর জন্য আমাদের পণ্য উৎপাদন হতে বিপনন ও ভোক্ত পর্যায় পৌঁছানো পর্যন্ত আন্তর্জাতিক মান নিয়ন্ত্রন করতে হবে। তিনি জানান, অবকঠামোখাতের দূর্বলতা, প্রদত্ত সনদের আর্ন্তজাতিক স্বীকৃতির অভাবে বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক বাজারে নিজেদের উৎপাদিত হালাল পণ্য রপ্তানিতে পিছিয়ে পড়ছে। ঢাকা চেম্বারের সভাপতি বলেন, ২০১৭ সালে বিশে^র মুসলমান দেশসমূহ খাদ্য ও পানীয় খাতে প্রায় ১.৩ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করেছে এবং পরিসংখ্যানে আরো দেখা যায়, ব্রাজিল, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড এবং থাইল্যান্ডের মত দেশসমূহ হালাল পণ্য রপ্তানিতে এগিয়ে রয়েছে। তিনি বাংলাদেশের হালাল পণ্য রপ্তানি বৃদ্ধিতে বিশেষকরে পণ্য রপ্তানিতে বৈশি^ক ভ্যালু চেইন প্রক্রিয়ায় আন্তর্জাতিক মান বজায়ে রাখার আহŸান জানান। এছাড়াও তিনি হালাল পণ্য রপ্তানি বৃদ্ধিতে বেসরকারীখাতের গবেষণা ও দক্ষতা বৃদ্ধি, সহায়ক নীতিমালা প্রণয়ন ও কার্যকর বাস্তবায়ন, আন্তর্জাতিকভাবে গ্রহণযোগ্য হালাল সনদ প্রদানে প্রতিষ্ঠান স্থাপন, অবকাঠমোগত উন্নয়ন এবং হালাল পণ্য প্রক্রিয়াজাতকরণে বিনিয়োগ বাড়াতে বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চলসমূহে জমি বরাদ্দ প্রদান প্রভৃতি বিষয়ের উপর জোরারোপ করেন।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূত মান্যবর সৈয়দ মোহাম্মদ আল-মুহাইরি বলেন, হালাল পণ্য নিরাপদ, স্বাস্থ্যসম্মত ও পুষ্টিসমৃদ্ধ হওয়ায় নন-মুসলিমদেশসমূহেও-এর চাহিদা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। তিনি বলেন, সারা পৃথিবীতে হালাল খাদ্যের ব্যবহার প্রতিবছর প্রায় ৮.১৪% হারে বাড়ছে এবং আগামী ৫ বছরের মধ্যে হালাল পণ্যের বাজার আরো ৬.১% বৃদ্ধি পাবে। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, খুব শীঘ্রই বাংলাদেশ আরব আমিরাতের বাজারে হালাল পণ্য রপ্তানি করতে সক্ষম হবে।

বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ-এর চেয়ারম্যান সৈয়দা সারওয়ার জাহান বলেন, মুসলিম খাদ্য পণ্য ও পানীয় গ্রহণের দিক থেকে বাংলাদেশ সারা পৃথিবীতে ৫ম স্থানে রয়েছে এবং নিরাপদ খাদ্য প্রাপ্তির বিষয়টিতে জনগনের চাহিদা প্রতিনিয়ত বাড়ছে, যদিও বাংলাদেশের মত অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশসমূহে নিরাপদ খাদ্যনিশ্চিতকর বিষয়টি বরাবরই উপক্ষিত। তিনি জানান, সরকার জনগনের নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতরনের জন্য বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ গঠন করেছে এবং ‘নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩’ নামে একটি আইন প্রণয়ন করেছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ যদি মাংস উৎপাদনে আন্তর্জাতিক মানদন্ড বজায়ে রাখতে পারে, তাহলে মুসলিম অধ্যুষিত দেশসমূহের পাশাপাশি বিশে^র অন্যান্য দেশসমূহে এর রপ্তানি বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি টেকসই উন্নয়ন এবং সবার জন্য নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতকরনের লক্ষ্যে সকলকে এগিয়ে আসার আহŸান জানান।

বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউন্ডেশন-এর মহাপরিচালক শামীম মোহাম্মদ আফজাল, হালাল সনদ প্রদান প্রক্রিয়া সহজতর করার জন্য বিএসটিআই’র নেতৃত্বে একটি ‘ওয়ান-স্টপ’ সার্ভিস চালু করার প্রস্তাব করেন এবং এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষকে একযোগে কাজ করার আহŸান জানান।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংযুক্ত আরব আমিরাত ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান আরএসিএস-এর কনফরমিটি ডিরেক্টর ড. সামিয়া আবদেললতিফ এবং মওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিদ্যালয়ের ফুড টেকনোলোজিত অ্যান্ড নিউট্রিশনাল সাইন্স বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এ কে ওবিদুল হক। ড. এ কে ওবিদুল হক বলেন, অনিরাপদ খাদ্য আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য যেমনি ক্ষতিকারক তেমনি আমাদের অর্থনীতি, ব্যবসা-বাণিজ্য এবং পর্যটনের জন্য সুখকর নয়। তিনি বাংলাদেশে হালাল সার্টিফিকেট প্রদানকারী কর্তৃপক্ষ স্থাপনের প্রস্তাব করেন। ড. সামিয়া আবদেললতিফ বলেন, আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত হালাল সনদ প্রাপ্তির জন্য যথাযথ অবকাঠামো ও দক্ষ জনবলের কোন বিকল্প নেই এবং বাংলাদেশে এ ধরনের ল্যাবরেটরি স্থাপনের যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি বাংলাদেশকে ‘ইন্টারন্যাশনাল হালাল এসোসিয়েশন ফোরাম (আইএইচএএফ)’-এর সক্রিয় সদস্য হওয়ার আহŸান জানান।
নির্ধারিত আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এসিআই ফুড লিমিটেড’র উপ-নির্বাহী পরিচালক অনুপ কুমার সাহা, বেঙ্গল মিট-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এ এফ এম আসিফ, কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের ড. মোঃ সালেহ আহমেদ, কৃষি মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব আনোয়ার ফারুক এবং ঢাকা চেম্বারের সমন্বয়কারী পরিচালক এনামুল হক পাটোয়ারী। আলোচকবৃন্দ হালাল পণ্যের বাজারসম্প্রসারণে অবকাঠানোখতের উন্নয়ন, পণ্যের উৎপাদন হতে বিপনন পর্যন্ত ভ্যালু চেইন প্রক্রিয়ায় আন্তর্জাতিক মান নিশ্চিতকরন, আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত হালাল সনদ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান স্থাপন, এখাতের উদ্যোক্তাদের স্বল্পসুদে ঋণ প্রদানের সুবিধা প্রদান, কর অবকাশ সুবিধা প্রদান এবং প্রস্তাবিত ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের মধ্যে ১০টিকে হালাল পণ্য প্রক্রিয়াজাত বিষয়ক শিল্পের জন্য বরাদ্দ রাখার প্রস্তাব করেন।

ডিসিসিআই সমন্বয়কারী পরিচালক বলেন, জীবনের জন্য খাদ্য, জীবনের বিনিময় নয়। তিনি বলেন, আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম কে সুরক্ষার জন্য খাদ্যে ভেজাল মিশ্রনকারীদের বিরুদ্ধে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

মুক্ত আলোচনায় ডিসিসিআই আহŸায়ক নিয়ামত উল্ল্যাহ মজুমদার, প্রাক্তন ঊর্ধ্বতন সহ-সভাপতি এম এস সেকিল চৌধুরী, প্রাক্তন পরিচালক এ কে ডি খায়ের মোহাম্মদ খান, বিসিএসআইআর-এর প্রতিনিধি দিপা ইসলাম, বাংলাদেশ ফ্রোজেন ফুড এসোসিয়েশনের প্রতিনিধি শাহজাহান আলী খান এবং ঢাকা চেম্বারের সদস্য এম এস সিদ্দিকী অংশগ্রহণ করেন।

ডিসিসিআই ঊর্ধ্বতন সহ-সভাপতি ওয়াকার আহমেদ চৌধুরী ধন্যবাদ সমাপনী বক্তব্য জ্ঞাপন করেন। তিনি বলেন, বৈশি^ক প্রায় ৩ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারের হালাল বাজার আমাদের উৎপাদিত বিশেষত এগ্রো-প্রসেস ফুড, বেভারেজ, কক্সমেটিকস এবং ফার্মাসিউটিক্যাল পণ্য রপ্তানির মাধ্যমে এসুযোগ গ্রহণ করতে হবে এবং এলক্ষ্যে সকলকে একযোগ কাজ করার উপর জোরারোপ করেন।

ডিসিসিআই সহ-সভাপতি ইমরান আহমেদ, পরিচালক হোসেন এ সিকদার এবং নূহের লতিফ খান প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

Comments

comments