সকাল ৮:১৬ শনিবার ১৬ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

বৃদ্ধা আমেতন বেগমের জীবনযুদ্ধ

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ১৬, ২০১৯ , ১২:৪৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিশেষ প্রতিবেদন
পোস্টটি শেয়ার করুন

আরিফুল ইসলাম শ্যামল: মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার মথুরাপাড়া গ্রামের আমেতন বেগম (৭৫) জীবনযুদ্ধে এ বয়সেও রেদ বৃষ্টি উপেক্ষা করে হামাগুরি দিয়ে ভিক্ষা করছেন। স্বামী আকালী মিয়া ২০ বছর পূর্বেই চলে গেছেন না ফেরার দেশে। সংসারে রেখে গেছেন স্ত্রীসহ ৩ ছেলে ও ১ মেয়েকে। তারা যে যার মতো বিয়েসাদী করে আলাদাভাবে সংসার নিয়ে ব্যস্ত। বৃদ্ধা মায়ের খোঁজ খবর নেয়ার মত সময় নেই তাদের। এ পরিস্থিতিতে পেটের দায়ে রাজপথে ভিক্ষায় নামতে হচ্ছে বৃদ্ধা মা আমেতন বেগমের!

বৃদ্ধার বাড়িতে গিয়ে জানাযায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের মথুরা পাড়া গ্রামের তার স্বামীর ভিটাটি বিক্রি করে দিয়েছেন সন্তানরা। বাড়ি বিক্রির পরেও অন্যের মালিকানা জায়গায় একটি ছোট্র টিনের ঘর তুলে প্রায়ই অনাহারে বেঁচে থাকার সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। আগেরমত শরীর-স্বাস্থ্য ভালো নেই তার। বয়সের ভাড়ে বিভিন্ন রোগে শোকে প্রায় অচল হয়ে পরেছেন। এর পরেও সপ্তাহে প্রায় দিনই ভিক্ষায় নামতে হচ্ছে। ব্যস্ততম শ্রীনগর বাজার এলাকার বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও পথচারীদের কাছে গিয়ে হাত পাতছেন। সারাদিনের ভিক্ষার সামন্য আয় থেকেই নিজের সবধরণের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে হয়। এ সময় লক্ষ্য করা যায়, আমেতন বেগমের পাশেই ছোট ছেলে কাদির মিয়া তার স্ত্রী সন্তান নিয়ে বসবাস করছেন। বৃদ্ধ মা ও শাশুরীর খোঁজ খবর নেয়ার সময় নেই তাদের। কাদির মিয়া রংয়ের কাজ করেন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে বয়স্ক ভাতসহ কিছু চাল পান তিনি। এতে তার সব ধরণের চাহিদা পুরণ হচ্ছেনা। স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, বড় ছেলে আফসার মিয়া ও মেঝ ছেলে মান্নান মিয়া তারা স্ত্রী, সন্তান নিয়ে ঢাকায় বসবাস করেন। এক মেয়ে তার বিয়ে হয়ে যাওয়ায় তিনি স্বামীর সংসার নিয়েই ব্যস্ত। এ অবস্থায় পথে পথে মানুষের কাছে হাত পাতা ছাড়া বিকল্প কোনও পথ নেই আমেতন বেগমেন!

আমেতন বেগম বলেন, বয়স হয়েছে বিভিন্ন রোগে শোকে ভোগতাছি। দেখারমতন কেউ নাই। পোলাপান যে যারমতন নিজেগো সংসার নিয়া ব্যস্ত। বড় পোলায় মাধে মধ্যে সামান্য বাজার সদাই করে দেয়। বাকিরা কোনও খোঁজ খবর নেয়না। ছোট পোলার বৌ আমারে খালি গালমন্দ করে। হাটতে পারিনা অনেক কষ্ট কইরা রাস্তায় রাস্তায় ভিক্ষা করি। ভিক্ষা করতে যাইয়া রোইদ-বৃষ্টিতে ভিজি! আল্লায় সবাইরে ভাল রাখুক বলে কান্নায় ভেঁঙে পরেন।

এ সময় তিনি আরো বলেন, সরকার আমারে কিছু সহযোগিতা করলে বাকি জীবনটা কোন রকমে কাটাইয়া মরতে পারতাম। ছোট ছেলে কাদির মিয়ার কাছে তার মায়ের বিষয়ে জানতে চাইলে কাজে ব্যস্ত রয়েছেন বলে নিজের মোবাইল ফোনটি রেখে দেন।

Comments

comments