দুপুর ১:১০ রবিবার ১৭ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

শ্রীনগরে আখের ফলন ভালো: তবে চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুলাই ১০, ২০১৯ , ১২:৫২ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : কৃষি
পোস্টটি শেয়ার করুন

আরিফুল ইসলাম শ্যামল: মুন্সীগঞ্জে শ্রীনগরে আখ চাষে ফলন ভালো হয়েছে। তবে এচাষে সরকারিভাবে কোন সুযোগ সুবিধা না থাকায় আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক। যার ফলে দিন দিন কমছে আখ চাষীদের সংখ্যা। উপজেলায় মাত্র ১০০ হেক্টর জমিতে আখ চাষ করা হয়েছে। উপজেলার বিভিন্নস্থানে দু-একটি করে আখের জমি দেখা গেলেও বিশেষ করে এ অঞ্চলের বীরতার, সিংপাড়া, সাতগাঁও, আটপাড়া এলাকায় বাণিজ্যিভাবে আখ চাষ করেন চাষীরা। আখ চাষের ওপরে সরকারিভাবে আর্থিক সুবিধা দেয়া হলে এ অঞ্চলে আখ চাষে কৃষকদের আগ্রহ বাড়তো। এমনটাই মনে করছেন স্থানীয়রা।

আখ বা ইক্ষু একটি সপুষ্পক উদ্ভিদ। সকল শ্রেণি পেশা মানুষের খাবারের পছন্দের তালিকায় থাকে আখ। কয়েক দশক পূর্বেও শ্রীনগর উপজেলার স্থানীয় হাট-বাজার গুলোতে দেখা গেছে আখ কিনতে মানুষের ভিড় লেগেই থাকতো। সাংসারিক নিত্য দিনের প্রয়োজনীয় কেনা-কাটার পরেও সর্বশেষ আখ কেনা না হলে মনে হতো হাট-বাজারে যাওয়াটাই বৃথা।

আখের রস দিয়ে চিনি ও গুর তৈরী করা হলেও এখন আর আগের মতো শতভাগ আখের চিনি ও আখের গুর পাওয়া বড়ই মুশকিল! দেখা যায়না গ্রাম গঞ্জের খাল পুকুরে নৌকা বোঝাই আখ বিক্রি করতে আসা ফেরিওয়ালা। হাট-বাজার গুলোতেও দেখা যায়না আখ নিয়ে ক্রেতা বিক্রেতার মধ্যে দর কষাকসির দৃশ্য। তবে সিজন অনুযায়ী শ্রীনগর ছনবাড়ী চৌরাস্তার পাশে আখের একটি বড় আড়ৎ গড়ে উঠে। এলাকার চাষীরা এখানেই পাইকারীভাবে আখ বিক্রি করেন। দিনব্যাপী এ আড়ৎতে ভালো মানের আখ কেনা-বেচা হয়ে থাকে। এখান থেকে পাইকাররা আখ কিনে জেলার বিভিন্ন হাট বাজারে খুচরা বিক্রি করেন।

আখ চাষী আফজাল হোসেন, আমজাত শেখ, শফিক, মোঃ বোরহান মিয়াসহ অনেকেই জানান, এ বছর আখের ফলন ভালো হচ্ছে। আর কিছুদিন পর থেকে জমি থেকে আখ তোলা হবে। তবে আগের তুলনায় আখের চাষ অনেক কম হয়। কারণ হিসেবে তারা বলেন, জমিতে আখ পরিচর্যায় শ্রমিকের মজুরী বেশী, এ কাজে আগের মতো শ্রমিক পাওয়া কষ্টদায়ক, যুগোপযোগী জমির দাম বেশী। জমিতে আখ রক্ষায় ইদুর, শিয়াল, মাজরা পোকা ও ছাতরা পোকা নিধনে ব্যয় করতে হয় হাজার হাজার টাকার কীটনাশক। সব কিছুতেই খরচ বেড়েছে কয়েকগুন। খরচ বাদ দিলে আখ চাষে লাভ নেই। তারা আরো বলেন, এ অঞ্চলের আখ চাষীদের সরকার যদি আর্থিকসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা দিতো তাহলে আখ চাষের ওপর কৃষকদের আগ্রহ বাড়তো।

উপজেলা কৃষি অফিসার শান্তনা রানী জানান, উপজেলায় এবছর ১০০ হেক্টর জমিতে আখ চাষ করা হয়েছে। এখানে আখ চাষের ওপর সরকারিভাবে কোন আর্থিক সুযোগ সুবিধা আসেনি। তবে আখের পরিচর্যায় রোগ বালাই সংক্রান্ত বিষয়ে কেউ আসলে কৃষি অফিস থেকে তাদের এ বিষয়ে সঠিকভাবে পরামর্শ দেয়া হয়।

Comments

comments